শুক্রবার, ১লা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

অপরাধ না করেও নামে মিল থাকায় কারাবাস

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ২৮, ২০১৭
news-image

 

সেলিম সজিবঃ

শুধুমাত্র নামের সাথে মিল থাকায় অপরাধ না করেও বিনাদোষে জেলের ঘানি টানতে হচ্ছে ইউনুস মিয়াকে (৫৩)।

তিনি কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়নের মোচাগড়া গ্রামের রজব আলীর ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, একটি অপরাধে কারণে ২০০০ সালের ১৭ জুলাই চট্টগ্রামে বসবাসকারী কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার যাত্রাপুর ইউনিয়নের মোচাগড়া গ্রামের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের (বাদশা গাজী ফকির বাড়ি) আরেক রজব আলীর ছেলে ইউনুস মিয়াকে পুলিশ গ্রেফতার করে।

ওই ঘটনায় ওইদিনই চট্টগ্রামের কোতোয়ালী থানায় একটি মামলা হয়। ওই মামলায় দীর্ঘ আড়াই বছর হাজতবাস শেষে জামিন পেয়ে পলাতক রয়েছেন সেই ইউনুস মিয়া। মামলাটি বর্তমানে চট্টগ্রামের বিশেষ দায়রা জজ আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। আদালতের বিচারক গত ১০ আগস্ট সেই ইউনুস মিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে। আরও জানা যায়, পরোয়ানাটি চট্টগ্রাম পুলিশ সুপার ও কুমিল্লা পুলিশ সুপারের মাধ্যমে কুমিল্লার ৮ নম্বর আমলী আদালত হয়ে মুরাদনগর থানায় আসে। থানার এসআই জালাল উদ্দিনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ গত ৭ নভেম্বর রাতে মোচাগড়া গ্রামের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের রজব আলীর ছেলে নির্দোষ ইউনুস মিয়াকে যাচাই-বাছাই ছাড়াই নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে। পরদিন ৮ নভেম্বর কুমিল্লা আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। গ্রেফতারের পর থেকে ইউনুস মিয়ার পরিবার অনাহারে-অর্ধাহারে মানবেতর জীবনযাপন করছে। এরমধ্যে বিভিন্ন স্থানে ধর্না দিয়েও তাকে জেল থেকে মুক্ত করার কোন কুল-কিনারা খুঁজে পাচ্ছে না বলে জানা গেছে।

যাত্রাপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ জানান, একজন নিরপরাধ অসহায় ব্যক্তি বিনাদোষে জেল খাটার বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। ওই পরিবারের পক্ষে তাকে জেলখানা থেকে মুক্ত করা সম্ভব নয়। যদি কোন আইন সহায়তাকারী সংস্থা উদ্যোগ নেয় তাহলে তাকে সহসাই মুক্ত করা সম্ভব। মোচাগড়া গ্রামের বাদশা গাজী ফকির বাড়ির রজব আলীর ছেলে ইউনুস মিয়া বাড়ি-ঘর বিক্রি করে সপরিবারে চট্টগ্রামে চলে গেছে বলে শুনেছি। দীর্ঘ ১৮/২০ বছর যাবত তাকে এলাকায় আসতে দেখা যায় না।

এ বিষয়ে মুরাদনগর থানার ওসি এসএম বদিউজ্জামান জানান, ইউনুস মিয়াকে গ্রেফতারের পিছনে পুলিশের কোন ভুল নেই। মামলার এজহারে মোচাগড়া গ্রামের বাদশা গাজী ফকির বাড়ি উল্লেখ থাকলেও গ্রেফতারি পরোয়ানায় শুধু মোচাগড়া লেখা ছিল। তার নাম, পিতার নাম ও গ্রামের নাম মিল ও স্থানীয় গ্রাম পুলিশের শনাক্তক্রমে তাকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি আরো বলেন, সত্যি যদি ভুল হয়ে থাকে এখনে পুলিশের কিছু করার নেই। আদালতের মাধ্যমেই তাকে বের হতে হবে।

কুমিল্লার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ৪ নম্বর বিচার আদালতের এ.পি.পি অ্যাডভোকেট সৈয়দ তানভীর আহমেদ ফয়সাল জানান, প্রকৃত আসামি ইউনুস মিয়া ও পুলিশ কর্তৃক ধৃত ইউনুস মিয়া উভয়ের ভোটার তালিকা অথবা ইউপি চেয়ারম্যান এবং সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড সদস্যের প্রত্যায়নপত্র আদালতে উপস্থাপন করে বিজ্ঞ বিচারককে বুঝাতে পারলেই ধৃত নিরপরাধ ইউনুস মিয়া উক্ত মামলার দায় থেকে অব্যাহতি পেতে পারে।

আর পড়তে পারেন