বুধবার, ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

অবরোধে কুবিতে নীল বাস বন্ধ, শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ৫, ২০২৩
news-image

কুবি প্রতিনিধি:

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল ও জামায়াতে ইসলামির ডাকা অবরোধের দিন নীল বাসসমূহ বন্ধ রেখেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের কতৃপক্ষ। ফলে ক্লাস-পরীক্ষা চলমান থাকায় ক্যাম্পাসে যাতায়াতে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের।

জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের সুবিধার্থে ৮টি নিজস্ব নীল বাস ও ৭টি বিআরটিসি’র লাল বাস রয়েছে। গত ৩০ অক্টোবর বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭৭ তম (জরুরি) একাডেমিক কাউন্সিলের সভার পর নীল বাস সমূহ বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয় পরিবহন পুল। লাল বাসসমূহ চলাচলের অনুমতি দেওয়া হলেও তা শহরের অভ্যন্তরে না গিয়ে শুধুমাত্র শহরের প্রবেশপথ পুলিশ লাইন ও টমছম ব্রীজ পর্যন্ত চলাচল করতে বলা হয়েছে। শিক্ষার্থীদেরকে পুলিশ লাইন ও টমছমব্রীজ থেকে বাসে ওঠা-নামার কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য নির্দেশ দিয়েছে পরিবহন পুল।

এরপর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকটি ফেসবুক গ্রুপে ক্ষোভ প্রকাশ করে শিক্ষার্থীরা। তারা অভিযোগ করে বলেন, আগে যেখানে লাল ও নীল মিলিয়ে মোট ১৫টি বাস চলমান ছিল সেখানে এখন মাত্র ৭টি লাল বাস চলছে। যার ফলে তাদেরকে গাদাগাদি করে বাসে যাতায়াত করতে হচ্ছে এবং তাদের সময় ও অর্থ অপচয় হচ্ছে।

ফাহিম বাবু নামের এক শিক্ষার্থী বলেন, অবরোধের মধ্যে স্টাফ বাস, শিক্ষকদের বাস যাওয়া আসা করে। লাল বাস যাওয়া আসা করে নীল বাসের সম্যসা কি? প্রসাশনের কাছে শিক্ষার্থী অপেক্ষা স্টাফদের ভ্যালু বেশি ?

ফাহমিদা আকতার নামের আরেক শিক্ষার্থী বলেন, অবরোধের কারণে সিএনজিগুলোও ক্যাম্পাসের দিকে যেতে রাজি হয় না। গেলেও অতিরিক্ত ভাড়া চায়। প্রশাসন লাল বাস চালু রাখতে পারলে নীল বাসে কি সমস্যা?

হাবিবা জাহান নামের আরেক শিক্ষার্থী বলেন, লাল বাসগুলো সন্ধ্যার পরে আর ক্যাম্পাসে আসে না। আমরা যারা শহরে টিউশন করি আমাদের রাতে ক্যাম্পাসে ফিরতে ভাড়া গুনতে হয়। আবার যারা মেয়ে আছে তাদেরও বিভিন্ন ঝুঁকিতে পড়ার সম্ভাবনা থাকে।

হেদায়েতুল ইসলাম বলেন, আগে লাল বাসের পাশাপাশি নীল বাসও চলতো তাও বাসে অনেক ভিড় হতো। এখন শুধুমাত্র লাল চলাচল করলে কি পরিমাণ ভিড়ের মধ্যে আমরা যাতায়াত করি এটা প্রশাসনকে একটু ভেবে দেখার অনুরোধ করছি। অবরোধের প্রভাব কেন শিক্ষার্থীদের নীল বাসের উপর পড়বে? শিক্ষক আর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাস তো ঠিকই চলাচল করতেছে।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে পরিবহন প্রশাসক ড. স্বপন চন্দ্র মজুমদার তার কার্যালয়ে গিয়ে দেখা করতে বলেন। এরপর তার কার্যালয়ে একাধিকবার যাওয়ার পরেও তাঁকে পাওয়া যায়নি।

কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো: আসাদুজ্জামানকে মুঠোফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ এফ এম আবদুল মঈনের সাথে একাধিকবার মুঠোফোনে যোগাযোগ করতে চাইলে বরাবরের ন্যায় তিনিও ফোন রিসিভ করেননি।

আর পড়তে পারেন