শুক্রবার, ২১শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

অবৈধ জিনসিন বোতলে বাজার ও ফার্মেসী সয়লাব

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ৮, ২০১৭
news-image

শাহাদাত হোসেনঃ

শক্তিবর্ধক যৌনশক্তি বৃদ্ধিতে কার্যকর বোতলের গায়ে লেখা অবৈধ জিনসিন বোতলে এখন বাজার সয়লাব। যা বিক্রিতে কোন লুকোচুরি হচ্ছেনা বরং হর হামেশাই বাজারে পাওয়া যাচ্ছে কোমল পানীয়র আড়ালে এসব যৌন উত্তেজক ও শরীরের জন্য ক্ষতিকর পানীয়।
তবে এগুলো ঔষধ হিসেবে নয়, কোমল পানীয় হিসেবেই পান করছে উঠতি বয়সের তরুন-তরুনী ও বয়ষ্ক মানুষ। চাহিদা বাড়ছে দিন দিন। তাই এক ব্যবসায়ীর দেখাদেখি অন্যরা ও বিক্রি শুরু করেছেন।

বর্তমানে মনোহরগঞ্জ বাজার , মান্দারগাও বাজার, হাসনাবাদ বাজার,বাইশগাঁও বাজার, লক্ষনপুর বাজারের দোকান ও ফার্মেসীতে জিনসিন বোতলে সয়লাব হয়ে গেছে। আর দাম? তাও কম নয়, ১০০ মি.লি. বোতলের দাম রাখা হচ্ছে ১৮০ টাকা। আবার কোনটি বিক্রি হচ্ছে ৭০-৮০ টাকার। কিন্তু যারা এসব পানীয় পান করছে তাদের কেউই জানেনা তারা আসলে কী পান করছে। বোতলের গায়ে শক্তি বর্ধক দেখেই তারা হুমড়ি খেয়ে পড়ছে এসব পন্যের উপর। যেগুলোর একটির নেই সরকারি কোন অনুমোদন।
বাইশগাঁও বাজারে “আরোগ্য মেডিকেল হল ”সুমন আচার্য্যর ঔষধ দোকানে গিয়ে দেখা যায়, প্রকাশ্যে সাজিয়ে রাখলেন জিনসিন ও জিনসিন প্লাস এর বোতল। দাম জিগেস করলে ১০০মি.লি. ১৮০ টাকা। বোতলের গায়ে বি এস টি আই (ইঝঞও) এর কোন অনুমতি নাই। বিভিন্ন বাজারে আরো দেখা যায় বাজারে নানা পানীয় বিক্রি হচ্ছে। এর মধ্যে বেশকিছু পন্যের মধ্যে অ্যালকোহলের মাত্রা সহনীয় পর্যায়ে থাকায় মোড়কের গায়ে রয়েছে ইউনিসন হোমিও ল্যাভরেটোরিজ, ঢাকা বাংলাদেশ এর নাম। কিন্তু এসব পানির বাইরে হারবাল উপাদান দিয়ে তৈরী অতিমাত্রায় অ্যালকোহল ও ক্ষতিকর ব্যবহার করে শক্তি বর্ধক বলে প্রচার দিয়ে বাজারজাত করা হচ্ছে বেশ কিছু পানীয়। বেশিরভাগ বোতলে ইউনানী ও হারবাল কোম্পানীর নাম লেখা রয়েছে। দেয়া আছে বডি বিল্ডারের ছবি। কোন কোন বোতলের মোড়কে পানীয়কে যৌন শক্তি বৃদ্ধিতে কার্যকর বলে প্রচার করে দিয়েছে কোম্পানী। শক্তিবর্ধক বলে প্রচার করায় উঠতি বয়সীরা এগুলো পান করছে। যা পানের ফলে মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। বাইশগাঁও বাজার এলাকায় পানীয় পান করা অবস্থায় এক তরুনের সঙ্গে কথা হয়, সে আজকের কুমিল্লাকে বলেন, আমি মাঝে মাঝে খাই, খাইলে খুব গরম লাগে মনে হয় ভালোই শক্তি পাইছি। তবে এগুলো খাইতে তিতা লাগে। কান গরম হয়ে যায়। স্বাস্থ্যের পক্ষে ভালো না খারাপ তা জেনে খাচ্ছে কিনা এমন জবাবে সে বলে, বাজারে বেশির ভাগ দোকানেই যখন এগুলো পাওয়া যায় তাহলে মাল তো ভালোই মনে হয়।
এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা শাহজাহান সরকার বলেন, যদি অনুমতি থাকে তাহলে তা বিক্রি করতে পারে। আর সে ক্ষেত্রে যে বিক্রি করবে তার প্রেসক্রিপশন করার ধারনা থাকতে হবে এবং এ পন্য সর্ম্পকেও ভালো ধারনা থাকা দরকার।
এ বিষয়ে মনোহরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইউসুফ আলী জানায়, আমরা মনোহরগঞ্জ বাজার সহ বিভিন্ন জায়গা ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে আসছি। অভিযোগ পেলেই এ বিষয়ে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নিব।

আর পড়তে পারেন