শনিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

অযত্নে পড়ে আছে কুবির কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২৩
news-image

চাঁদনী আক্তার, কুবি প্রতিনিধি:

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) ভাষা আন্দোলনের শহীদদের স্মরণে নির্মিত কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার দীর্ঘদিন পরিষ্কার না করায় শ্যাওলা ও ময়লা জমে পড়ে আছে। জাতীয় দিবসে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন ও পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করা হলেও যথাযথ পর্যবেক্ষণ ও পরিষ্কারের নজর নেই বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষের। এই নিয়ে শিক্ষার্থীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তবে দর্শনার্থীরা শহীদ মিনার পরিদর্শনে এসে ময়লা আবর্জনা ফেলে যায় বলে জানান এস্টেট শাখার ডেপুটি-রেজিস্ট্রার মো. মিজানুর রহমান।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, শহীদ মিনারের আশেপাশে অনেক ময়লা আবর্জনা পড়ে থাকতে দেখা যায়। এমনকি বিভিন্ন জায়গায় শ্যাওলা জমে রয়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে ডাস্টবিন দেওয়া হলেও তা যথাযথ ব্যবহার করছে না কেউ। এমনকি বিভিন্ন সময় পর্যটকরা এসে যেখানে সেখানে ময়লা-আবর্জনা ফেলছেন। ফলে ক্যাম্পাসের পরিবেশ দিন দিন দূষিত হয়ে যাচ্ছে।

শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, কর্তৃপক্ষ নিয়মিত পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করে না। তারা শুধুমাত্র জাতীয় অনুষ্ঠানের আগে শহীদ মিনারটি পরিষ্কার করা হয়। এছাড়া, বাহিরে পর্যটকরা যাতে ক্যাম্পাসে ময়লা আবর্জনা না করে এই বিষয়ে তাদেরকে সচেতন করতে হবে। পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের আরও পরিবেশ নিয়ে সতর্ক থাকতে হবে।

এই নিয়ে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের ১২ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী জান্নাতুল ফেরদৌস পিয়া বলেন, প্রতিবছর একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে শহীদ মিনারে ফুল দেই এবং সম্মান প্রদর্শন করি। তাছাড়া সারা বছর দেখা যায় শিক্ষার্থীসহ পর্যটকরা ঘুরতে এসে শহীদ মিনারে সময় কাটায়। এর ফলে তারা খাবার খেয়ে সেই প্যাকেট নির্দিষ্ট ডাস্টবিনে না ফেলে শহীদ মিনারের আশেপাশে ফেলে রাখে। একজন শিক্ষার্থী হিসেবে এটা খুবই দৃষ্টিকটু লাগে আমার কাছে। এ ব্যাপারে প্রশাসনে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া দরকার।

এ বিষয়ে এস্টেট শাখার ডেপুটি-রেজিস্ট্রার মো. মিজানুর রহমান জানান, নির্দিষ্ট একটা সময় পর পর আমরা পরিচ্ছন্ন কর্মী দিয়ে শহীদ মিনার পরিষ্কার করি। প্রতিদিন পরিষ্কার করা সম্ভব নয় কেননা আমাদের লোকবল কম। তাছাড়াও ইউজিসি থেকে নির্দিষ্ট পরিমাণ একটা বাজেট দেওয়া হয় যার ফলে প্রত্যেকটা সাইটের জন্য আলাদা আলাদা পরিচ্ছন্ন কর্মী নিয়োগ দেওয়া সম্ভব নয়। ক্যাম্পাসে প্রতিদিন শিক্ষার্থী সহ অসংখ্য পর্যটকরা ঘুরতে আসে, শহীদ মিনারের পাশেই ডাস্টবিন দেওয়া হয়েছে কিন্তু বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় ডাস্টবিনে ময়লা না ফেলে যত্রতত্র ময়লা ফেলা হয়, যার ফলে পরিবেশ নোংরা হয়। এক্ষেত্রে শিক্ষার্থীরা সচেতন হলেই শহীদ মিনারসহ ক্যাম্পাস পরিষ্কার থাকবে।

ছাত্র পরামর্শক ও নির্দেশনা কার্যালয়ের পরিচালক মোহাঃ হাবিবুর রহমান জানান, শহীদ মিনারের পাশে ডাস্টবিন দেওয়া হয়েছে তবুও শিক্ষার্থীরা খাবার খেয়ে ডাস্টবিনে না ফেলে যত্রতত্র ফেলে রাখে। শিক্ষার্থীদের উচিত আরও সচেতন হওয়া। তাছাড়া দর্শনার্থীরা এসেও ময়লা আবর্জনা ফেলে যায় কিনা, বিষয়টা আমরা খতিয়ে দেখবো।

আর পড়তে পারেন