শুক্রবার, ১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

অযোগ্যদের বোঝা কতদিন বইবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা?

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ১৪, ২০২০
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট:

করোনা মোকাবেলার ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিনরাত একাকার করে কাজ করছেন।  জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণেও তিনি করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় তাঁর সরকার কি কি করেছেন তাঁর বর্ণনা দিয়েছেন। কিন্তু আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে কাজগুলো করছেন সেই কাজগুলো পণ্ড করে দিচ্ছে তাঁর কিছু অযোগ্য মন্ত্রী, দলকানা আমলা এবং সুবিধাবাদী কিছু কর্মকর্তারা।

আর সে কারণে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে শেখ হাসিনা যতই কাজ করার চেষ্টা করুক না কেন, যতই পরিস্থিতিকে নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করুক না কেন, কিছু কিছু অযোগ্য ব্যক্তির কারণে এই পরিস্থিতি ক্রমশ নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে। আর একারণেই এখন সময় এসেছে অযোগ্যদের চিহ্নিত করা এবং তাঁদেরকে কাঁধ থেকে নামিয়ে দেয়ার। এই অযোগ্যদের বোঝা আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আর কতদিন বহন করবেন? সেই প্রশ্ন উঠেছে।

করোনা পরিস্থিতির শুরু থেকেই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সমন্বয়হীনতা, লেজেগোবরে অবস্থা সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে এবং করোনা মোকাবেলার ক্ষেত্রে নূন্যতম যে ব্যবস্থা রাখা হয়েছিল, সেই ব্যবস্থা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় রাখেনি। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় শুধুমাত্র কিছু তথ্যের হিসেব দিচ্ছে। কিন্তু বাস্তবে দেখা যাচ্ছে পরিস্থিতি অত্যন্ত শোচনীয়। কুয়েত মৈত্রী হাসপাতাল নিয়ে যা ঘটলো, তা ন্যাক্কারজনক। যখন চিকিৎসকদেরকে সাহস দিয়ে সামনে নিয়ে আসতে হবে, তখন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় চিকিৎসকদের বরখাস্ত করে পরিস্থিতি জটিল করে তুললো। কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালে নানারকম অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে, অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে যে সারাদেশে করোনা মোকাবেলার জন্য যে হাসপাতাল তৈরি বা অন্যান্য ব্যবস্থা থাকার কথা ছিল সেগুলোর কিছুই নেই। শুধুমাত্র কথামালার বাহাস চলছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তাদের মুখে। আর তাই এখনই যদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে ব্যাপক পরিবর্তন আনা না হয় তাহলে শেখ হাসিনা যতই চেষ্টা করুক, পরিস্থিতি তিনি নিয়ন্ত্রণে আনতে পারবেন কিনা তা নিয়ে সংশয় রয়েছে।

দ্বিতীয় দিনের মতো শ্রমিকরা রাস্তায়, তাঁরা বেতন-ভাতার দাবিতে রাস্তায় মিছিল করছে। সামাজিক বিচ্ছন্নতার যে নির্দেশ, সেই নির্দেশকে তোয়াক্কা না করে পেটের দায়ে তাঁরা বিক্ষোভ করছে। এই পরিস্থিতিতে শ্রম প্রতিমন্ত্রী ২৪ ঘন্টা নিশ্চুপ থাকার পরে একটি হুমকি দিয়েই শেষ করেছেন। এখানে করণীয় কি তা তাঁরা জানেন না। শ্রম মন্ত্রণালয়ের এই ব্যর্থতার দায় কে নিবে।

আমরা দেখেছি যে, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এই সর্বনাশের মূল হোতা। বাণিজ্য মন্ত্রী যে গার্মেন্টস খোলার সর্বনাশা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, তাঁর মাশুল দিতে হচ্ছে আজ। এই বাণিজ্য মন্ত্রী পেঁয়াজ কেলেঙ্কারি করেছিলেন, তখন তাঁকে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখেছিলেন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কিন্তু পেঁয়াজ আর মানুষের জীবন এক জিনিস নয়। এই ব্যর্থতায় এখনো যদি এসব ব্যর্থদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া না হয় তাহলে আমরা সর্বনাশের কূলকিনারা খুঁজে পাবো না।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চেষ্টা করছেন, সারাদেশের মানুষকে নির্দেশনা দিচ্ছেন এবং প্রত্যেকটি জেলার সাথে নিয়মিত সংযুক্ত হচ্ছেন। কিন্তু তাঁর যে আকাঙ্ক্ষা এবং তিনি যেভাবে সমস্যা সমাধানের রূপ পরিকল্পনা করেছেন, সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য মাঠে লোক কোথায়?

একটি যুদ্ধে সেনাপতি নির্দেশনা দিতে পারেন, যুদ্ধের কৌশল তৈরি করতে পারেন। কিন্তু সেই সেনাপতির সহযোদ্ধারা যদি অযোগ্য হন, ব্যর্থ হন, দুর্নীতিবাজ হন, লোভী হন- তাহলে সেই যুদ্ধে কখনো জয়লাভ করা সম্ভব হবেনা। আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এখন সেই অবস্থাই হয়েছে। তিনি যেন একাকী এক সেনাপতি, তাঁর পেছনে যারা রয়েছেন তাঁরা কাপুরুষ, লোভী, দুর্নীতিবাজ। এদেরকে নিয়ে শেখ হাসিনা কতদূর যেতে পারবেন সেই প্রশ্ন এখন উঠেছে। তাই প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিনীত অনুরোধ, তিনি জনগণের কথা ভাবেন, তিনি জনগনকে নিয়েই কাজ করেন, জনগণের জন্যই তিনি তাঁর সকল্কিছু উজাড় করে দিয়েছেন। তাই জনগণের কল্যাণের জন্য অযোগ্যদের বোঝা কাঁধ থেকে নামিয়ে ফেলা উচিত। অযোগ্যদের বাদ দিয়ে যোগ্যদের দায়িত্ব দিয়ে দ্রুত তিনি যে রূপ পরিকল্পনা করেছেন, সেই রূপ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন ঘটাতে হবে। নাহলে আমরা যে সর্বনাশের কিনারায় চলে গেছি, সেখান থেকে আমাদের বাঁচার কোন পথ থাকবে না।

সূত্র: বাংলা ইনসাইডার

আর পড়তে পারেন