বুধবার, ২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

আইসিএল শফিককে জাতীয় পার্টি থেকে বহিষ্কারের দাবী

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১৫, ২০১৮
news-image

স্টাফ রিপোর্টারঃ
আইসিএল শফিককে জাতীয় পার্টি থেকে বহিষ্কারের দাবী জানিয়ে রোববার কুমিল্লা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছে কুমিল্লা দক্ষিন জেলা , মহানগর জাতীয় পার্টি ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠন। পরে কুমিল্লা প্রেসক্লাব থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা বলেন, বির্তকিত ব্যাক্তি আইসিএল শফিকের হাত হতে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে যাওয়া জাতীয় পার্টিকে রক্ষা করতে হলে আইসিএল শফিককে জাতীয় পার্টি থেকে বহিষ্কার করতে হবে। শফিক গন প্রতারক ও বির্তকিত ব্যাক্তি। তার প্রতারণাকে ঢাকতে জাতীয় পার্টিকে ব্যবহার করে কুমিল্লায় জাতীয় পার্টিকে ধ্বংসের কিনারায় নিয়ে গেছে। যখনই প্রতারণার শিকার হাজারো অসহায় পরিবার ফুসে উঠে তখনই জাতীয় পার্টির নাম ভাঙ্গিয়ে উত্তোরণের চেষ্টা করে শফিকসহ তার কতিপয় সহযোগীরা। এমতাবস্থায় কুমিল্লার সর্বস্তরের জনগণ ও জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা দলীয় প্রধানের নিকট প্রতারক শফিককে বহিষ্কারের জোর দাবী জানাচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা আরো বলেন, গত কিছুদিন আগে কুমিল্লা জেলার জাতীয় পার্টির মেয়াদ উর্ত্তীন আহবায়ক কমিটির সদস্য সচিব এইচ. এন. এম. শফিকুর রহমান, কুমিল্লা দক্ষিন জেলা মহানগর ও অঙ্গ-সংগঠনের সকল নেতৃবৃন্দের নিকট অযৌক্তিক অশালীন কিছু বক্তব্য দিয়ে স্বীয় পদ ও চিরতরে রাজনীতি থেকে অব্যাহতি চেয়ে বিদায় নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। সেখানে সে আমাদের সকল নেতাকর্মীদের এই বলে অভিযুক্ত করেছে যে, আমরা নাকি তার প্রতিষ্ঠান রক্ষায় সহযোগিতা করিনা এবং তার টাকায় নির্ভরশীল হয়ে আমরা নাকি রাজনীতি করি। আমরা স্পষ্ট কন্ঠে বলতে চাই, তিনি মানুষের হাজার হাজার কোটি টাকা আতœসাৎ করেছে। তিনি জাতীয় পার্টি তথা আমাদের উপর নির্ভর করেই এই কুমিল্লা এবং ১৪ গ্রামে আসা যাওয়া করেছে। হাজার হাজার গ্রাহককে আমরা বুঝিয়ে রেখেছি। তিনি কুমিল্লার সকল সম্পদ বিক্রি প্রায় শেষ করে ফেলেছে, অথচ কুমিল্লা গ্রাহকদের আমানতের একটি টাকাও পরিশোধ হয়নি। আমরা কোথাও সাংগঠনিক কোন কাজে কুমিল্লার কোথাও যেতে পারিনা। মানুষ আমাদের তাদের আমানতের টাকার জন্য ঘেরাও করে, মান সম্মান নিয়ে রাজনীতি করতে পারিনা। যেখানে যাই সেখানে অপমানিত হয়ে ফিরে আসতে হয়। কেন? আমরা তো আইসিএল এর পার্টি করিনা, আমরা কোন শফিকের পার্টি করিনা। আমরা পল্লীবন্ধু হুসাইন মোহাম্মদ এরশাদের জাতীয় পার্টির রাজনীতি করি। তিনি জাতীয় পার্টিতে রাজনীতি করতে আসেনি, তিনি জঙ্গীবাদের অর্থ যোগানদাতা হিসেবে কুমিল্লা ও চৌদ্দগ্রামে অনেকগুলো জরুরী বিধিতে মামলায় অভিযুক্ত হয়। যখন তিনি দেশ ছাড়ার উপক্রম হয়েছে তখন নিজে এবং প্রতিষ্ঠান বাঁচানোর জন্য জাতীয় পার্টিতে যোগদান করে। যোগদানের পর দলের চেয়ারম্যান ও কেন্দ্রীয় নেতৃৃবন্দকে ব্যবহার করে মামলা হামলা থেকে রক্ষা পায়। আর নেতাকর্মীদের ব্যবহার করে প্রতারণা বাস্তবায়ন করতে চায়। আমরা নেতাকর্মীরা মানুষের টাকার কি করব ? এইটা টাকার প্রশ্ন, এইটা রাজনীতির প্রশ্ন না। রাজনীতিতে সারা দেশে মহাজোটের শরীক দল হিসেবে আওয়ামালীগ এবং জাতীয় পার্টির সুসম্পর্ক আছে, অথচ শুধুমাত্র তার কারনে কুমিল্লায় তিন তিনজন মন্ত্রী থাকা শর্তেও আমরা কোনভাবে মহাজোটের সাথে সুসম্পর্ক রাখতে পারছিনা এবং আমাদের অনেক নেতাকর্মী মামলা হামলায় বিপদগ্রস্থ। জাতীয় পার্টি প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকেই শফিকুর রহমান যোগদানের পূর্ব মুহূর্ত পর্যন্ত জাতীয় পার্টি সুসংগঠিত ছিল এবং সকল নির্বাচনী আসনে প্রার্থীও ছিল। বরং শফিকুর রহমান আসার পরে আমরা আইসিএল এর গ্রাহক ঠেকাতে ঠেকাতে দলীয় কোন কাজে অংশ গ্রহণ করিতে পারিনা। আমাদের অনেক নেতাকর্মীকে মাসিক বেতন ধার্য্য করে গ্রাহক ঠেকানোর কাজে নিয়োগ করে, এতে আমাদের অনেক নেতাকর্মী গ্রাহকদের হাতে নির্যাতিত হয়েছি। কিন্তু বছর কি বছর আমাদের অনেক নেতাকর্মীদের বেতন পরিশোধ না করে এখন আমাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে আমাদেরকে স্বার্থপরতার অভিযোগে অভিযুক্ত করতেছে।

আমরা এই সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে দলের চেয়ারম্যান পল্লীবন্ধু হুসাইন মোহাম্মদ এরশাদসহ দলের সকল নেতা কর্মীদের জানিয়ে দিতে চাই আমরা সুসংগঠিতভাবে কুমিল্লায় হুসাইন মোহাম্মদ এরশাদ এর জাতীয় পার্টির রাজনীতি করতে চাই। শফিক অথবা আইসিএল এর লেজুর ভিত্তিক রাজনীতি করতে চাইনা। আমরা এই অবস্থা থেকে মুক্তি চাই।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন কুমিল্লা মহানগর জাতীয় পার্টির আহবায়ক ও জেলা জাতীয় পার্টির সিনিয়র সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সালামত আলী খান বাচ্চু, কুমিল্লা জেলা যুব সংহতির সভাপতি মোঃ মাহবুবুর রশিদ মাহবুব। এসময় উপস্থিত ছিলেন মহানগর জাতীয় পার্টির যুগ্ন আহবায়ক খলিলুর রহমান রোকন, আলহজ্ব ফজল খান শাহানুর, জেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ন সাংগঠনিক সম্পাদক জয়নাল আবেদীন মাষ্টার, মহানগর যুব সংহতির আহবায়ক ভিপি আবুল কালাম আজাদ, সদস্য সচিব মোবাশ্বের আলম, কুমিল্লা জেলা স্বেচ্ছাসেবক পার্টির সাধারন সম্পাদক এম এ সুবুর, কুমিল্লা মহানগর স্বেচ্ছাসেবক পার্টির আহবায়ক আক্তারুজ্জামান জিবু, সদস্য সচিব আবুল হোসেন, জেলা যুব সংহতির সিনিয়র সহ-সভাপতি নজরুল ইসলাম বাবর, সহ-সভাপতি সোহাগ মোরশেদ চৌধুরী, চৌদ্দগ্রাম উপজেলা যুব সংহতির সিনিয়র সহ-সভাপতি বিল্লাল হোসেন স্বপন, জাতীয় ছাত্র সমাজের কুমিল্লা জেলা সিনিয়র সহ-সভাপতি মিজানুর রহমান, জেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ন প্রচার সম্পাদক মুশফিকুর রহমান মুকুল, চৌদ্দগ্রাম উপজেলা ছাত্র সমাজের আহবায়ক খোরশেদ আলম শিপন, মহানগর ছাত্র সমাজের আহবায়ক মঈন উদ্দিন, জেলা শ্রমিক পার্টির সাধারন সম্পাদক গাজী হোসেন, সদর উপজেলা আহবায়ক জসিম উদ্দিন তালুকদারসহ অন্যান্যরা।

আর পড়তে পারেন