মঙ্গলবার, ৫ই মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

এখনো স্থায়ী ঠিকানার সন্ধানে “বীরকণ্যা আফিয়া খাতুনের পরিবার”

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৩, ২০১৭
news-image

 

মোঃ বেলাল হোসাইন ঃ
মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় নিজের ইজ্জতের বিনিময়ে যিনি বাঁচিয়েছেন শত শত যুবতী মেয়ের ইজ্জত, যার ইজ্জতের দামে রক্ষা পেয়েছে উপজেলার শত শত মানুষ, সেই আফিয়া খাতুনের পরিবার এখনো পায়নি নিরাপদ আশ্রয়ের ঠিকানা কিংবা আশ্বাস। অত্যন্ত কষ্টে কাটছে বীরকন্যা খঞ্জনীর জীবন।
স্বাধীনতার ৪৬ বছর পূর্ণ হতে যাচ্ছে। দেশ স্বাধীন হলেও কুমিল্লার বীরাঙ্গণা আফিয়া খাতুন ওরফে খঞ্জনী বেগম মুক্তিযোদ্ধা খেতাব পেয়েছেন চলতি বছর। দীর্ঘ ৪৬ বছর ধরে দুঃখ-লাঞ্চনায় মানষিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেছেন বীরকণ্যা আফিয়া খাতুন খঞ্জনী। এখন নিজেই নিজেই কথা বলেন। কারো কথার কোন উত্তর তিনি দিতে পারেন না। শুধু ফেল ফেল করে তাকিয়ে থাকেন। আর্থিক অনটনে উন্নত চিকিৎসাও পাচ্ছেন না এই বীরকন্যা । কুমিল্লা জেলা প্রশাসন থেকে পাওয়া খাস জমি এখনোও স্থানীয় প্রভাবশালীদের দখলে। সব মিলিয়ে স্বাধীন এই বাংলাদেশে নাজুক জীবন যাপন করছেন বীরকণ্যা খঞ্জনী। ফলে এ বীরকন্যার এ পরিবারটি এখনো স্থায়ী ঠিকানার সন্ধানে রয়েছে।
বীরাঙ্গণা আফিয়া খাতুন খঞ্জনী নিজের সম্ভ্রমের বিনিময়ে চৌদ্দগ্রাম এলাকার সোনাপুর গ্রামের নারীদের রক্ষা করেছিলেন। দেশ স্বাধীনতা পেলেও তিনি ফিরে পান নি নিজের ঘর ও সন্তান। দীর্ঘ সময় পর খঞ্জনীকে মুক্তিযোদ্ধা স্বীকৃতি দিয়েছে সরকার।
বীরকণ্যা আফিয়া খাতুন ওরফে খঞ্জনী বেগম ১৯৩৯ সালে ফেনী জেলার বরইয়া চৌধুরী বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম হাসমত আলী চৌধুরী ও মা মছুদা খাতুন। ১৯৬৩ সালে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার জগন্নাথদীঘি ইউনিয়নের সোনাপুর গ্রামের রুহুল আমিন মানিক প্রকাশ হেকমত আলীর সঙ্গে তার বিয়ে হয়। তাদের সংসারে ১৯৬৪ সালে রোকসানা ও ১৯৬৫ সালে আবদুল মতিন নামে এই দুই ছেলেমেয়ে জন্মগ্রহণ করে। ১৯৬৬ সালে চট্টগ্রাম রেলওয়ের বৈদ্যুতিক শাখায় কর্মরত থাকা অবস্থায় ভাড়া বাসায় রহস্যজনকভাবে মারা যান তার স্বামী হেকমত আলী। স্বামী মারা যাওয়ার পর বাবার বাড়িতে ফিরে যাওয়ার প্রস্তাব দেয় আতœীয়-স্বজনরা। কিন্তু এতিম দুই ছেলেমেয়ে ও শাশুড়িকে নিয়ে স্বামীর বাড়িতেই চরম অভাব অনটনে কোনমতে দিন কাটাচ্ছিলেন তিনি।
মুক্তিযুদ্ধের সময় জগন্নাথদীঘি এলাকার পাক হানাদারবাহিনীর ক্যাম্পে স্থানীয় রাজাকারদের সহযোগিতায় এলাকার সুন্দরী মেয়েদের উঠিয়ে নিয়ে যেত হানাদার বাহিনী। এক পর্যায়ে স্থানীয় রাজাকারদের সহায়তায় ক্যাম্পের দায়িত্বরত পাক হাবিলদারের কাছে খবর পৌঁছে যায় সুন্দরী বিধবা খঞ্জনী বেগমের কথা। তাকে পাক হাবিলদারের হাতে তুলে দিলে গ্রামের অন্য নারীদের ওপর নির্যাতন করা হবে না এমন শর্তে স্থানীয় কয়েকজন রাজাকার খঞ্জনীকে হানাদারদের হাতে তুলে দেয়। ওই ক্যাম্পে এই বীরকন্যার উপর চলে প্রতিনিয়ত নির্যাতন। এক সময় পাক হাবিলদার কয়েকজন রাজাকারের উপস্থিতিতে জোর করে খঞ্জনীকে বিয়ে করেন। হানাদারদের কথামতো ১৬ ডিসেম্বরের আগ পর্যন্ত এ গ্রামের আর কোনো নারীকে সম্ভ্রম হারাতে হয়নি। ১৯৭১ এর জুলাই মাসের শেষ দিকে উপজেলার চিওড়া রাস্তার মাথায় সড়ক দুঘর্টনায় খঞ্জনীর কথিত স্বামী পাকিস্থানি হাবিলদার মারা গেলেও ১৫ ডিসেম্বর রাত পর্যন্ত তাকে হানাদারদের ক্যাম্পে থাকতে হয়েছে। নিজের ইজ্জতের বিনিময়ে যুদ্ধকালীন সময়ে সোনাপুর গ্রামসহ আশপাশের অসংখ্য গ্রামের অসহায় লোকজনকে পাক বাহিনীর চোখকে ফাঁকি দিয়ে সামর্থ্য অনুযায়ী সাহায্য করেছেন এই খঞ্জনী বেগম। পাশাপাশি আশেপাশের অনাহারী অভাবী মানুষজনদের জন্য কৌশলে পাক হানাদারদের ক্যাম্প থেকে খাবার দিয়ে তাদের জীবনও রক্ষা করেছেন।
১৬ ডিসেম্বর দেশ স্বাধীনের খবর শুনে ক্যাম্প থেকে বের হয়ে সর্বস্ব হারিয়ে ছুটে যান তার শাশুড়ি ,মেয়ে রোকসানা ও ছেলে মতিনের কাছে। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস, যে গ্রামবাসির জন্য খঞ্জনী বেগম ইজ্জত বিলিয়ে দিয়েছেন তারাই তাকে দেখেই অগ্নিশর্মা হয়ে বলতে লাগলেন, এই নষ্টা ও অসতী খঞ্জনী বেগমকে সোনাপুরে জায়গা দেয়া যাবে না। তাকে জায়গা দিলে গ্রামের মান সম্মান থাকবে না। সমাজের লোকদের কথায় শামিল হয়ে শাশুড়ি বোচন বিবিও সন্তানদের তার কাছে রেখে এক কাপড়ে বিদায় করে দিলেন খঞ্জনী বেগমকে। পাক বাহিনীর ক্যাম্পে থাকার কারনে বাবার বাড়ি ফেনীতে গিয়েও আশ্রয় মেলেনি খঞ্জনী বেগমের। এক পর্যায়ে সে ক্ষুধার জ্বালায় ভিক্ষা করতে শুরু করে। শাশুড়ির কাছে থাকা একমাত্র ছেলে আবদুল মতিন অভাব অনটনে মারা যায় ছয় বছর বয়সে।
নষ্টা নারী বলে সোনাপুরের তৎকালীন সমাজপতিরা মৃত ছেলেকেও দেখতে দেয়নি খঞ্জনী বেগমকে। এভাবে এক সময় তিনি মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেন। নিজে নিজে বকবক করেন, রাস্তাঘাটে কিংবা স্টেশনে গান করেন, কবিতা বলেন, পুঁতি পরেন। যুদ্ধের পর স্বামীর বাড়িতে জায়গা না পেয়ে প্রায় ৩০ বছর রাস্তায় রাস্তায় দিন কাঁটিয়েছেন খঞ্জনী। পরে অসুস্থ অবস্থায় ১৯৯৯ সালের শেষ দিকে খঞ্জনী বেগমকে ফেনীতে আশ্রয় দেন তার ভাই সেনাবাহিনীর সৈনিক আবদুর রহমান চৌধুরী। কিন্তু মান-সম্মান, ছেলেদের ভবিষ্যত এর কথা চিন্তা করে ভাবীর চাপে সেই আশ্রয়স্থলটুকুও বেশিদিন স্থায়ী হয়নি।
আফিয়া খাতুন খঞ্জনীর মেয়ে রোকসানা বেগমের বিয়ে হয় ফুল মিয়া নামক এক শ্রমজীবীর সঙ্গে। ঘাসফুল এর প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত নারীনেত্রী শামছুন্নাহার পরান বেগমের মাধ্যমে মায়ের সন্ধান পেয়ে বিগত ৫ বছর পূর্বে মাকে তার কাছে নিয়ে আসেন রোকসানা। সেই থেকে স্মৃতিভ্রষ্ট বীরাঙ্গনা আফিয়া খাতুন তার মেয়ে রোকসানা ও মেয়ের জামাতা ফুল মিয়ার সঙ্গে কুমিল্লা শহরের পূর্ব বাগিচাগাঁওয়ের বড় মসজিদ ও ফায়ার সার্ভিস সংলগ্ন বড় মসজিদের ওয়াকফ এস্টেটের বস্তির দুকক্ষের একটি খুপড়ি ঘরে থাকেন।
সর্বশেষ চলতি বছরের গত নভেম্বরের ২৩ তারিখে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাধ্যমে চুড়ান্ত স্বীকৃতি স্বরুপ বীরঙ্গনা স্বীকৃতি পান এই আফিয়া খাতুন ওরফে খঞ্জনী বেগম। এ স্বীকৃতির পর প্রথমে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক থেকে চৌদ্দগ্রামের কালকোট মৌজায় বরাদ্দ পান ৫ শতক খাস সম্পত্তি। কিন্তু রাষ্ট্রিয় স্বীকৃতি ও খাস জমি পাওয়ার পরও বীরকন্যা এবং তার একমাত্র মেয়ে, জামাতাকে ভাবতে হয় থাকার জায়গা নিয়ে।
খঞ্জনীর মেয়ে রোকসানা জানান, আমার ৩ সন্তান নিয়ে খুপড়ির এই ঘরে অত্যন্ত কষ্টেই দিন কাটাচ্ছি। এছাড়া বাসার পাশ্ববর্তী এক প্রভাবশালী মাঝে মধ্যেই বস্তির বাসিন্দা এবং তাদের উচ্ছেদের হুমকি প্রদান করেন। ইতিপূর্বে স্থানীয় ওই প্রভাবশালী রোকসানাদের বর্তমান বসতঘরটি ভেঙ্গে ফেলে। ইতিপূর্বে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক আমার মা’র( খঞ্জনী) নামে চৌদ্দগ্রামের কালকোট মৌজার ৩১ দাগের হালে ৬৪০ এর ৫ শতক খাস জায়গা বরাদ্দ দিয়েছেন। কিন্তু ওই গ্রামের খবির আলম নামের এক প্রভাবশালী তখন থেকেই জায়গাটি জোরপূর্বক দখল করে চাষাবাদ করছে। আমরা ওই জায়গায় যেতে চাইলেও প্রভাবশালী হুমকি ধমকি দিয়ে তাদের সেখানে যেতে নিষেধ করে। প্রভাবশালীর বাঁধা ছাড়াও জেলা প্রশাসক কর্তৃক প্রদানকৃত জায়গাটি গর্তে ভরা। জায়গাটি কোনভাবে সরকার আমাদের দখলের ব্যবস্থা করে দিলেও বসবাসের উপযোগী করতে আমাদের ৩/৪ লক্ষ টাকা লাগবে। তার চেয়ে কুমিল্লা শহরের কোথাও কিংবা নিজেদের পৈত্রিক ভিটা জগন্নাথের কোথাও উপযুক্ত জায়গা নতুন করে বরাদ্দ দিলে মা’কে নিয়ে কোনভাবে জীবনযাপন করতে পারবো।
খঞ্জনীর মেয়ে রোকসানা আরো জানান, মা এখন কথা বলতে পারে না। চোঁখেও তেমন দেখে না। সব সময় অসুখে বিসুখে থাকে। তার উন্নত চিকিৎসার দরকার। আমরা যা পারি করি। দুয়েকটা এনজিও মাঝে মধ্যে কিছু টাকা পয়সা দেয়, তা দিয়া কিছু চিকিৎসা করাই। কিন্তু উন্নত চিকিৎসা করাতে পারছি না।
চৌদ্দগ্রামের জগন্নাথদিঘী ইউনিয়ন চেয়ারম্যান জানে আলম জানান, জেলা প্রশাসক/সরকার নিদের্শ দিলে রাষ্ট্রিয় স্বীকৃতিপ্রাপ্ত জগন্নাথের গর্ব আফিয়া খাতুন ও তার পরিবারকে জগন্নাথেই বসবাসের ব্যবস্থা করা হবে এবং তাদের সর্বাতœক সহযোগিতা করা হবে।
চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাইদুর রহমান জানান, যেহেতু উনাকে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক চৌদ্দগ্রাম উপজেলায় জায়গাটি প্রদান করেছে সেহেতু উনার পরিবার বর্তমান জায়গাটির বরাদ্দ বাতিলের আবেদন করলে আমরা নতুন করে তার পরিবারের স্থায়ী বসবাসের ব্যবস্থা করব।
খঞ্জনীর মতো যুদ্ধে যারা শুধু সম্ভ্রমই হারাননি, হারিয়েছেন সংসারও তাদের যথাযথ মূল্যায়ন করবে সরকার। এমনটাই প্রত্যাশা মুক্তিযোদ্ধাদের।

আর পড়তে পারেন