শনিবার, ১৮ই মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

করোনা ঝুঁকিতে চাঁদপুরের পল্লী চিকিৎসকসহ স্বাস্থ্যকর্মীরা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ৮, ২০২০
news-image

 

মাসুদ হোসেন, চাঁদপুরঃ

করোনাযুদ্ধে সামনের সারিতে থেকে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন চাঁদপুরের আট উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে কর্মরত বিভিন্ন স্বাস্থ্যকর্মী ও পল্লী চিকিৎসকরা। এ যুদ্ধে কাজ করতে গিয়ে জেলায় আক্রান্ত হয়েছেন কমিউনিটি ক্লিনিকে কর্মরত ২ জন কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার (সিএইচসিপি) ও পল্লী চিকিৎসকরা। গ্রামাঞ্চলের অসচেতন মানুষদের জ্বর, সর্দি, কাশি, গলা ব্যথা (করোনা উপসর্গ) এমন সমস্যা দেখা দিলে প্রথমেই ছুটে যান পল্লী চিকিৎসক কিংবা বাড়ির পাশের কমিউনিটি ক্লিনিকে। সেখানে কর্মরত চিকিৎসকগণ তাদেরকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে থাকেন।

চাঁদপুর জেলার প্রায় ছয় হাজার পল্লী চিকিৎসক করোনা ঝুঁকি নিয়ে যেকোন সময়ে মানুষের পাশে এসে দাঁড়ান। এবং প্রথম রোগ শনাক্ত করেন। বিভিন্ন সমস্যার মধ্যে দিয়েও বিরামহীম সেবা দিয়ে যাচ্ছেন তারা। সেবা দিতে গিয়ে ঘটছে বিপত্তি। ইতিমধ্যে বেশ কয়েকজন পল্লী চিকিৎসক করোনায় কিংবা তার উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। পল্লী চিকিৎসকরা মহামারীর এই সময়ে নানা সমস্যায় দিন কাটাচ্ছেন। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মত মানুষের পাশে থেকে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন তারা। দিন-রাত যেকোন সময় মানুষের বিপদে এগিয়ে এসে প্রথম রোগ শনাক্ত করে প্রাথমিক চিকিৎসা দিচ্ছেন কিংবা বড় ধরনের সমস্যা মনে হলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রেরণ করেন।

এ বিষয়ে চাঁদপুর সদরের মধুরোড স্টেশনের একজন পল্লী চিকিৎসক মোঃ সাইফুল ইসলাম বলেন, বর্তমানে সবচেয়ে বেশী ঝুঁকিতে পল্লী চিকিৎসকরা। আমরা সবচেয়ে বেশী রোগীদের পাশে থাকছি। বর্তমানে ৮০% রোগীকে আমরা প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে যাচ্ছি। রোগীর বিপদে আমরা সবার আগে এগিয়ে আসি। বড় বড় ডিগ্রীধারী ডাক্তাররা দেশের এই দুঃসময়ে চেম্বার করছে না। মানুষের পাশে তারা নেই। আবার অনেকই দিন রাত সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। আমরা চাই আমাদের প্রাপ্য সম্মানটুুকু আমাদের দেওয়া হোক। সরকারের কাছে আমার দাবী আমাদের যেনো ঝুঁকি ভাতা সহ অন্যান্য সহযোগিতা করে।

এদিকে নিরলসভাবে প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে যাচ্ছেন বাড়ির পাশের কমিউনিটি ক্লিনিকের কর্মীরা। সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত করোনা উপসর্গসহ অন্যান্য সমস্যা নিয়ে আসা গ্রামের অসচেতন মানুষগুলোর সেবা দিচ্ছেন কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডাররা (সিএইচসিপি)। সেবা নিতে আসা রোগীদের শরীরে এ ভাইরাস আছে কিনা তা জানাও মুসকিল। তারা মানছেনা কোন সামাজিক দুরত্ব। দেশের এই দুর্যোগ মুহুর্তে নিজেদের জীবনের কথা না ভেবে মানুষের পাশে থেকে কাজ করছেন সিএইচসিপিরা। সাথে রয়েছেন অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীরাও। মানুষকে সেবা দিতে গিয়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন জেলার মতলব উত্তরের একজন সিএইচসিপি মাহফুজা আক্তার ও কচুয়া উপজেলার আরেক সিএইচসিপি ফেরদৌস আরা মুক্তা। এই দুই জনের করোনা পজেটিভ এসেছে।

চাঁদপুর সদরের সিএইচসিপি এসোসিয়েশনের সভাপতি মোঃ রিয়াদ খান বলেন, এই ভয়াবহ বিপর্যয় আর মহামারির ক্রান্তিলগ্নে চাঁদপুরের ভয়াবহতা দিন দিন বেড়ে চলছে। আমরা যারা স্বাস্থ্য সেবা কর্মী তারা এই ক্রান্তিলগ্নে মানুষের পাশে থেকে সেবা প্রদান করে যাচ্ছি কারন এটা আমাদের দায়িত্ব। আমরা যেমন আমাদের দায়িত্ব পালন করছি ঠিক তেমনিভাবে সাধারণ জনগনও তাদের উপর দেওয়া সরকারি বিধিনিষেধ ও স্বাস্থ্য বার্তা গুলো যথাযত পালন করা উচিত। কারন আজকের এই অবস্থার জন্য কতিপয় উৎসুক জনতা দায়ী। তারা কোন বিধিনিষেধ মানে না, স্বাস্থ্য বার্তা পালন করে না। অকারনে ঘোরাঘুরি করে, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখে না। আর এই কারনেই পরিস্থিতি দিনদিন বেড়ে যাচ্ছে। কচুয়া উপজেলা সিএইচসিপি এসোসিয়েশনের সভাপতি মোঃ সাইফুল ইসলাম বলেন, দেশের এই মহামারীর সময়ে গ্রামাঞ্চলের সাধারন ও গরীব মানুষকে নিরলসভাবে সেবা দিয়ে যাচ্ছি। নিজেদের সুরক্ষার কথা না ভেবে মানুষের পাশে থাকি। করোনা উপসর্গ নিয়ে আসা রোগীদের সেবা দিয়ে নিজেদের জীবনকে ঝুঁকিতে পরিণত করছি। কারন এটা আমাদের দায়িত্ব। আমার এই উপজেলার পাথৈর ইউনিয়নের দারৈয়ারা কমিউনিটি ক্লিনিকের সিএইচসিপি ফেরদৌস আরা মুক্তা গত কয়েকদিন আগে করোনা পজেটিভ হয়। তারপরও আমরা এসব (করোনা) রোগীদের একটি এপ্স এর মাধ্যমে সেবা দিচ্ছি। আমাদের চাকুরী রাজস্ব করার জন্য দেশের সকল সিএইচসিপিরা জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আন্দোলন করেছিলাম। তখন সরকার আমাদের চাকরী রাজস্ব না করে ট্রাস্টের মধ্যে নিয়ে সরকারী সকল সুবিধা দেয়ার আশ্বাস দেন। কিন্তু আমাদের মত সিএইচসিপিদের দেয়া সরকারের ওয়াদা এখনো বাস্তবায়ন করেনি।

সিএইচসিপি এসোসিয়েশনের চাঁদপুর জেলার প্রচার সম্পাদক মোঃ জানে আলম বলেন, বর্তমানে চাঁদপর জেলায় প্রায় ২২৫টি কমিউনিটি ক্লিনিক সাপ্তাহে ছয় দিন, ছুটির দিন ছাড়া সেবা দিয়ে আসছে, লগডাউনে ও সেবা দিয়ে এখন পর্যন্ত সারা দেশে ৯২ জন সিএইচসিপি সহ চাঁদপুর জেলার দুই জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে। তবু সেবা কার্যক্রম বন্ধ নাই আশা করি সুস্থ্য থাকলে সেবা কার্যক্রম চলমান থাকবে। সেই সাথে সারা জেলা ঔষধ সংকট দেখা দিয়েছে, তাই ঔষধ সর্বরাহ জরুরী হয়ে পড়ছে। আশা করি কর্তৃপক্ষ এ সংকট সমাধানে হস্তক্ষেপে করবেন। সেই সাথে পর্যাপ্ত পরিমান পিপিই ও মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার সরবরাহ করবেন।
সিএইচসিপি এসোসিয়েশন চাঁদপুর জেলা শাখার সভাপতি মোঃ কামরুল বাবলু রবিবার বলেন, আমাদের সিএইচসিপি স্বাস্থ্যকর্মীরা গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলের গরীব হতদরিদ্র মানুষদের সেবা দিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু দুঃখের বিষয় আমাদের ৮৭ জন সহকর্মী এ যাবত কোভিড পজেটিভ। এমনি কয়েকজন মৃত্যুবরনও করেছে। আমরা করোনার সন্মুখ যোদ্ধা হিসেবে কাজ করেছি এবং করবো। এই দূর্যোগে দূর্বার মানুষকে সেবা দিয়ে যাবো।ইতিপূর্বে আমি ফরিগঞ্জে ৯টি করোনা বিষয়ক স্বাস্থ্য কাউন্সেলিং করেছি বিভিন্ন বাড়ি বাড়ি গিয়েছে।

এছাড়াও আমাদের চাঁদপুরের দু’জন সিএইচসিপি তথা সহকর্মী কোভিড পজেটিভ। এবিষয়ে চাঁদপুরের সিভিল সার্জন ডা. মোঃ সাখাওয়াত উল্লাহ বলেন, পল্লী চিকিৎসক কিংবা সিএইচসিপিরা গ্রামাঞ্চলে প্রথমত ওরাই চিকিৎসা দিয়ে যায়। এবং এই করোনার মধ্যে তারা ব্যাপক ভূমিকা রাখছে। তাদের বিষয়টা আমরা ক্রিয়েট করি। তারা অনেক ঝুঁকি নিয়েও গ্রামের মানুষদের চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। অলরেডি ইতিমধ্যে অনেক পল্লী চিকিৎসক ও সিএইচসিপি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। অনেক ডাক্তার চেম্বার করেন না কিন্তু তারা (পল্লী চিকিৎসকরা) রোগীদের পাশে এগিয়ে আসতেছেন। এতে মানুষ ও দেশের জন্য অনেক ভালো।

আর পড়তে পারেন