শুক্রবার, ২১শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

করোনা রোধে জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ অংকুরের মতামত

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ১০, ২০২০
news-image

 

ডাঃ অংকুর দত্ত:

করোনা রোধে জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ হিসেবে আমার নিজস্ব মতামত:

১. সকল চিকিৎসক, নার্স,স্বাস্থ্যকর্মীদের একত্রে করোনা চিকিৎসায় যুক্ত না করে অনেকগুলো টিমে ভাগ করা উচিত, যেমন টিম ১ কেউ ইনফেকটেড হলে টিম ২ কাজ করবে। বাকিরা কোয়ারেন্টাইনে থাকবে।অনেকগুলা টিম থাকলে চিকিৎসকের কোন অভাব হবে না।  বাংলাদেশের সকল চিকিৎসক একডাকে আসবে সেবা দিতে এ আমার বিশ্বাস।

২. প্রতিটি হাসপাতালে বাধ্যতামুলক বাংলাদেশের সকল জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের যুক্ত করতে হবে,এই রিসোর্সকে কাজে লাগানোর এইটাই সময়।

৩.বাংলাদেশের যে সকল স্পেশালাইজড হসপিটাল যেখানে ভেন্টিলেটরের ব্যাবস্থা আছে সেরকম প্রতিটি জেলায় কমপক্ষে একটা করোনা হাসাপাতাল করা যেতে পারে। এতে সকলের সাহায্য হবে।

৪. বাংলাদেশের প্রতিটি জেলায়, উপজেলায়,থানায়, গ্রামে টেস্ট করাতে হবে,টেস্ট ছাড়া কোন পরিত্রান নাই।

৫. বাংলাদেশে ১৪৪ ধারা জারি করে সকল জনগণকে ঘরে থাকতে বাধ্য করতে হবে।কারণ লকডাউন কনসেপ্ট বাঙালী অন্তঃত মানছে না।তাই এটাই উপায়।

৬.যারা ত্রান দেবেন তাদের সবার একটা কথাই বলতে হবে, ঘরে না থাকলে এান নাই।আমি নিজে যতগুলা এান দিয়েছি বাসার দরজায় পৌছানোর ব্যাবস্থা করেছি।

৭. ত্রান দিয়ে ছবি তোলা পরিহার করতে হবে,কারণ যারা ভিহ্মুক তারা আপনার কাছ থেকে সহজে নেবে।কিন্তু একটা মধ্যবিত্ত পরিবার লোকলজ্জায় দরকার হলেও ত্রান নিতে পারবে না।

৮.বাংলাদেশের সকল চিকিৎসক,নার্স, ওয়ার্ড বয়,স্বাস্থ্যকর্মীদের,জন্য পর্যাপ্ত পিপিই,ঔষধ, বাসস্থান,খাদ্যের যোগান দিতে হবে।

৯.ফেইসবুকে গুজব ছড়ানো বন্ধ করতে হবে।

১০.টেলিমেডিসিন সেবায় যেসকল চিকিসৎক সেবা দিচ্ছেন তাদের দরকার ছাড়া ফোন করে খাজুরে আলাপ করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

লেখক: ডাঃ অংকুর দত্ত
জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ।।

আর পড়তে পারেন