মঙ্গলবার, ২৩শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কাতারে প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভোটার নিবন্ধন করতে ইসির টিম সক্রিয়

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ৪, ২০২৪
news-image

ইউসুফ পাটোয়ারী লিংকনঃ

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগ এবং আইডিইএ (২য় পর্যায়) প্রকল্পের তত্ত্বাবধানে কাতারে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভোটার তালিকায় নাম অন্তর্ভুক্ত করার উদ্দেশ্যে নির্বাচন কমিশনের দল এখন কাতারে অবস্থান করছে। প্রবাসী ভোটার নিবন্ধন এবং এনআইডি রেজিস্ট্রশন কার্যক্রমের প্রস্তুতি পরিদর্শন করতে ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি দল গত ২৯ মার্চ কাতারে পৌছে। উক্ত দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন আইডিইএ (২য় পর্যায়) প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবুল হাসনাত মোহাম্মদ সায়েম, বিজিবিএমএস, এএফডবিউসি, পিএসসি, এমফিল। এছাড়াও সফরসঙ্গী হিসেবে আছেন জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের নিবন্ধন ও প্রবাসী অধিশাখার পরিচালক মোঃ আব্দুল মমিন সরকার এবং আইডিইএ (২য় পর্যায়) প্রকল্পের উপ-প্রকল্প পরিচালক রুহুল আমিন মল্লিক।

এর আগে গত ১৯ মার্চ ২০২৪ নির্বাচন কমিশনের একটি টেকনিক্যাল টিম কাতারে পৌঁছে। ৬ সদস্যের এই টিমের নেতৃত্ব দিচ্ছেন আইডিইএ (২য় পর্যায়) প্রকল্পের কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট কমান্ডার আশরাফুল হক জিহাদ এবং প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা হিসেবে আছেন মোঃ তাজুল ইসলাম। দলটি কাতারে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসে ভোটার নিবন্ধনের সাথে সংশ্লিষ্ট প্রয়োজনীয় ইকুইপমেন্ট সেট আপ, নেটওয়ার্ক সংযোগ এবং দূতাবাসের কর্মকর্তা ও কর্মচারিদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ প্রদান সম্পন্ন করেছে।

মাননীয় প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়ালের নেতৃত্বে বর্তমান কমিশন কর্তৃক প্রবাসী ভোটার নিবন্ধন এবং এনআইডি রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম শুরু করার উদ্যোগ নেওয়া হয়। ইতোমধ্যে সংযুক্ত আরব আমিরাত, সৌদি আরব, ইতালি এবং যুক্তরাজ্যে ভোটার নিবন্ধনের প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ইতালিতে এই কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়েছে। বর্তমানে কুয়েত কাতার এবং মালয়েশিয়ায় নিবন্ধন শুরু করার প্রস্তুতি চলছে। এরই ধারাবাহিকতায় কাতারে অবস্থানরত প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভোটার নিবন্ধন কার্যক্রমের জন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে নির্বাচন কমিশনের প্রেরিত দল কাতারে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসে ভোটার নিবন্ধনের সাথে সংশ্লিষ্ট প্রয়োজনীয় ইকুইপমেন্ট সেট আপ, নেটওয়ার্ক সংযোগ এবং দূতাবাসের কর্মকর্তা ও কর্মচারিদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ প্রদান সম্পন্ন করেছে। যেহেতু এই কার্যক্রম সম্পূর্ণ কারিগরি বিষয়, সেই কারণে আনুমানিক ১/২ মাস টেস্ট এন্ড ট্রায়াল পরিচালনা করা হবে।

ভোটার নিবন্ধন প্রক্রিয়ার প্রশিক্ষণ ও নিবন্ধন কার্যক্রম পরিচালনা শেষে আগামী ৫ এপ্রিল বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের উভয় দলের দেশে ফেরার কথা রয়েছে। টেস্ট এন্ড ট্রায়াল শেষে দূতাবাসের সাথে সমন্বয়ের মাধ্যমে মাননীয় নির্বাচন কমিশনার অথবা নির্বাচন কমিশনের সচিব মহোদয়ের উপস্থিতিতে আনুষ্ঠানিকভাবে কাতারে ভোটার নিবন্ধন কার্যক্রম উদ্বোধন হবে এবং পুরোপুরি চালু হবে।