বৃহস্পতিবার, ২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

মনোহরগঞ্জে ফতোয়াবাজীর শিকার একটি পরিবার,স্ত্রী-সন্তান ফিরে পেতে ইউএনও’র হস্তক্ষেপ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ৮, ২০১৭
news-image

স্টাফ রিপোর্টার ঃ
কুমিল্লার মনোহরগঞ্জে ফতোয়াবাজীর শিকার একটি পরিবার মানবেতর জীবন যাপন করছে। ফতোবাজীর কারনে দীর্ঘদিন যাবত স্ত্রী সন্তানের অধিকার থেকে বঞ্চিত থাকতে হয়েছে। স্ত্রী সন্তানকে ফিরে পেতে মনোহরগঞ্জের উত্তর হাওলার ইউনিয়নের বরল গ্রামের রেজওয়ানুল বারী হেলাল অবশেষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছেন।
ওই অভিযোগে জানা যায়, মনোহরগঞ্জের উত্তর হাওলার ইউনিয়নের বরল গ্রামের মাওলানা ফয়জুল্লাহ সিদ্দিকীর ছেলে রেজওয়ানুল বারী হেলাল ২০০৮সালে পার্শ্ববর্তী বড়কাচি গ্রামের মাওলানা হেদায়েত উল্লাহর মেয়ে তাইয়্যেবা আক্তার মুক্তার সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন এবং ওই ঘরে বর্তমানে তার ৩টি সন্তান রয়েছে। পারিবারিক মনমানিল্যের কারনে গত ১৫/৫/২০১৬ইং মুসলিম পারিবারিক আইনের ১৯৬১ইং এর ৮ নম্বর ধারার ৭ নম্বর উপধারা অনুযায়ী বিপুলাসার ইউপির চেয়ারম্যান এবং তার স্ত্রীর ঠিকানায় একখানা তালাকের নোটিশ প্রেরন করেন। পরবর্তীতে আবেদনকারী রেজওয়ানুল বারী হেলাল নিজের ভুল বঝতে পেরে তালাক কার্যকরের আগেই কাজীর মাধ্যমে ২১/৭/২০১৬ইং তালাক প্রত্যাহারের নোটিশ প্রেরন করেন।
অভিযোগে আরো উল্লেখ করা হয়, ওই তালাকনামার সুযোগে তার লোভী শ্বশুর স্থানীয় নাথেরপেটুয়া ফাযিল মাদরাসার শিক্ষক মাওলানা হেদায়েত উল্লাহর নিজেই তালাক কার্যকরের ফতোয়া দিয়ে হেলালের স্ত্রী ও সন্তানদেরকে আটক করে রেখেছেন। এতে তার শিশু সন্তানরা স্ত্রীসহ ওই বাড়ীতে খেয়ে না খেয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। এছাড়াও তার সাথে কোন প্রকার যোগাযোগের সুযোগ দিচ্ছেননা। এছাড়াও তার স্ত্রীকে জোরপূর্বক অন্যত্র বিয়ে দেয়ারও পায়তারা চলছে।
এ বিষয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি সাজেদা বেগম জানান, মাওলানা হেদায়েত উল্লাহ সাধারন একজন মাদরাসা শিক্ষক হয়ে কিভাবে ফতোয়া দেন এবং ওই ফতোয়া মুসলিম পারিবারিক আইন এবং সরকারী বিধান অনুযায়ী গ্রহনযোগ্যতা আছে কিনা তা ভেবে দেখার বিষয়।
উপজেলার নাথেরপেটুয়া ফাযিল মাদরাসার শিক্ষক ও রেজওয়ানুল বারী হেলালের শ্বশুর মাওলানা হেদায়েত উল্লাহর নিকট মুঠো ফোনে এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি জানান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহোদয় আমাকে এ ব্যাপারে ডেকেছেন, আমি সেখানেই জবাব দিবো।
মনোহরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউসুফ আলীর নিকট এ বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি জানান, লিখিত অভিযোগটি পেয়েছি, বিষয়টি সুরাহার জন্য উভয়পক্ষেকে হাজির হওয়ার জন্য নোটিশ পাঠিয়েছি।

আর পড়তে পারেন