শুক্রবার, ১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কুবির বঙ্গবন্ধু ভাস্কর্য ফলক আছে, লেখা নেই!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ১৮, ২০১৯
news-image

 

শাহাদাত বিপ্লবঃ

কুমিল­া বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) দীর্ঘদিন ধরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ভাস্কর্যের নামফলকের লেখা মুছে গেলেও কর্তৃপক্ষের সেদিকে ভ্রুক্ষেপ নেই। প্রকৌশল দপ্তর ও এস্টেট শাখা উভয়ই বিষয়টিকে ‘নিজেদের কাজ না’ বলে এড়িয়ে যায়। বিভিন্ন জাতীয় দিবসে বঙ্গবন্ধু ভাস্কর্যে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হলেও নাম ফলকের বিষয়ে উদাসীনতায় হতাশা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সদস্যরা।

সরেজমিনে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সম্মুখে বঙ্গবন্ধু ভাস্কর্যটি অবস্থিত। ভাস্কর্যের নামফলক থাকলেও সেখানে নাম মুছে গেছে দীর্ঘদিন ধরে। এ বিষয়ে প্রকৌশল দপ্তর ও এস্টেট শাখাকে অবহিত করলে উভয়ই একে অপরের কাজ বলে এড়িয়ে যায়। ২০১৭ সালের ১৫ আগস্ট তৎকালীন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আলী আশরাফ এ ভাস্কর্যের উদ্বোধন করেন। ভাস্কর মৃণাল হক ভাস্কর্যটি নির্মাণ করেন। ভাস্কর্য তৈরি হওয়ার পর মাপ এবং গঠন ঠিক না থাকায় সেটি পুনরায় স্থাপন করা হয়। এ নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগে বেশ কয়েকবার আন্দোলন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। নামফলক নিয়ে উদাসীনতায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন শিক্ষার্থীরা।

লোক প্রশাসন বিভাগের শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী আতিকুজ্জামাল তানজীল বলেন, ‘বিজয় দিবস উদযাপনের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় রঙিন সাজে সজ্জিত হয়েছিল। কিন্তু যেই মহান ব্যক্তি এই বিজয় আনতে সবোর্চ্চ ত্যাগ স্বীকার করেছেন সেই মহান নেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্যের নাম টা যে মুছে গেছে তা আমাদের কতৃপক্ষের চোখে পড়েনি। এটা আসলেই দুঃখজনক আমাদের জন্য।। বিশ্ববিদ্যালয়ে এতগুলো প্রগতিশীল সংগঠন থাকা সত্তেও নাম মুছে যাওয়ার বিষয়টিতে উদাসীনতা দুঃখজনক।’

শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ইলিয়াস হোসেন সবুজ দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, ‘প্রশাসনের ব্যাক্তিদের উদাসীনতার কারণেই আজ বিজয়ের মাসে জাতির জনকের ভাস্কর্যের নামফলকের নাম মুছে গেলেও সেদিকে ভ্রুক্ষেপ নেই। বিষয়টি দুঃখজনক। আশা করি সংশ্লিষ্টরা বিষয়টি দেখবে।’

নামফলকের বিষয়ে জানতে চাইলে প্রকৌশল দপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী (সিভিল) এস. এম. শহিদুল হাসান বলেন, ‘এখানে প্রকৌশল দপ্তরের তেমন কাজ নাই। এটা অতি সামান্য কাজ। এস্টেট দপ্তর এ কাজ করবে।’
বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. মোঃ আবু তাহেরের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘প্রশাসন এ ব্যাপারে খুবই আন্তরিক। আমরা অতি দ্রতই এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিব। এটা মূলত এস্টেট শাখা থেকে চাহিদা দিলে প্রকৌশল দপ্তর কাজ করবে।’

এ বিষয়ে এস্টেট শাখার সহকারী রেজিস্ট্রার মোঃ মিজানুর রহমান বলেন, ‘সংস্কার করা তো আমাদের কাজ নয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্পদের দেখাশুনা করা আমাদের কাজ। চাহিদা দিতে হয় কি না সে বিষয়ে কথা বলবো। যদি আমরা চাহিদা দিলে কাজ হয় তবে আজই(১৭ ডিসেম্বর) চাহিদা দিব।’

আর পড়তে পারেন