বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লায় হত্যা মামলায় ৪ জনের মৃত্যুদণ্ড

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ১১, ২০২৪
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লার দাউদকান্দিতে সিএনজিচালিত অটোরিকশাচালক ইকতার হোসেনকে হত্যার দায়ে চারজনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ তৃতীয় আদালতের বিচারক রোজিনা খান এ রায়ে দেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন, দাউদকান্দি উপজেলার কালাইরকান্দি গ্রামের নলি মিয়ার ছেলে মো. জাহাঙ্গীর (৩০), দেবিদ্বার উপজেলার জাফরাবাদ (মন্তাজ সাহেবের বাড়ি) গ্রামের হাতেম আলীর ছেলে ইমরান (১৮) এবং দাউদকান্দি উপজেলার জুরানপুর গ্রামের ডিপটির ছেলে সুমন (২২) ও দেবিদ্বার উপজেলার জাফরাবাদ (রহমান সাহেবের বাড়ি) গ্রামের রুবেল (২৩)।

অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) অ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল সিএনজিচালিত অটোরিকশাচালক ইকতার হোসেন রাতে বাড়িতে ফিরে না আসায় বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করে তার পরিবার। পরদিন দাউদকান্দি থানা পুলিশের মাধ্যমে জানতে পারেন, দুইজন ছিনতাইকারীকে দাউদকান্দি থানাধীন ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে স্থানীয়রা আটক করে গণধোলাই দিয়ে পুলিশকে খবর দেয়। আরও জানতে পারেন যে, ছিনতাইকারীরা যাত্রীবেশে সিএনজিতে উঠে ইকতারকে এলোপাতাড়ি মারধর ও পরে পানিতে চুবিয়ে হত্যার পর কচুরিপানা দিয়ে ডেকে মরদেহ গুম করে পালিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয়রা আটক করে থানা পুলিশকে খবর দেয়।

এ ঘটনায় ২০১৩ সালের ২৫ এপ্রিল নিহতের বড় ভাই মো. আক্তার হোসেন বাদী হয়ে একই উপজেলার কালাইরকান্দি গ্রামের নলি মিয়ার ছেলে মো. জাহাঙ্গীর, দেবিদ্বার উপজেলার জাফরাবাদ গ্রামের হাতেম আলীর ছেলে ইমরান এবং দাউদকান্দি উপজেলার জুরানপুর গ্রামের ডিপটির ছেলে সুমন ও দেবিদ্বার উপজেলার জাফরাবাদ গ্রামের রুবেলকে আসামি করে দাউদকান্দি মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

পরে চারজনের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হওয়ায় মামলায় তদন্তকারী কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) তপন কুমার বাকচী তাদের বিরুদ্ধে ২০১৩ সালের ২৩ আগস্ট আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। পরে ১৬ জন সাক্ষীর মধ্যে ১১ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ এবং আসামি জাহাঙ্গীর ও ইমরানের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি পর্যালোচনাক্রমে আসামিদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় আদালত আজ এই রায় দেন। তবে রায় ঘোষণার সময় কোনো আসামিই কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন না।

আর পড়তে পারেন