রবিবার, ২১শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লার চান্দিনায় ফার্মেসিগুলোতে জরুরী ঔষধ না পাওয়ার অভিযোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ৩, ২০২০
news-image

 

শরীফুল ইসলাম, চান্দিনাঃ

কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলা সদরের ফার্মেসিগুলোতে জরুরী ঔষধ সেবা না পাওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

চান্দিনা বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কেমিস্ট এন্ড ড্রাগিস্ট সমিতির আওতায় থাকা কমপক্ষে একটি ফার্মেসি ২৪ ঘন্টা ঔষধ সেবা দেওয়ার কথা। কিন্তু সেই সিদ্ধান্তও বাস্তবায়ন করেনি কেমিস্ট এন্ড ড্রাগিস্ট সমিতি।

এদিকে ফার্মেসিগুলো কিছু কিছু ঔষধ অতিরিক্ত মূল্যে বিক্রি করছে এমন অভিযোগ ক্রেতাদের। সিন্ডিকেটের মাধ্যমে সর্বোচ্চ খুচরা মূল্যে ঔষধ বিক্রি করছে ফার্মেসিগুলো। এছাড়া সিন্ডিকেটের মাধ্যমে অতিরিক্ত মূল্যেও ঔষধ বিক্রির অভিযোগ রয়েছে।

চান্দিনা বাজার মুদি ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মো. বাহারুল ইসলাম বাহার বলেন- শনিবার (৩ অক্টোবর) ভোর ৫টায় আমার জরুরী ঔষধের প্রয়োজন হওয়ায় চান্দিনা বাজার ফার্মেসিগুলো থেকে ঔষধ কিনতে পারিনি। দত্ত মেডিকেল হল, সাহা মেডিকেল হল, নাহা মেডিকেল হল, মেডিসিন কর্নার এই দোকানগুলোতে অনেক ডাকাডাকি করলেও কেউ দোকান খুলেনি। মানবিক কারণে কমপক্ষে একটি দোকানে ২৪ ঘন্টা ঔষধ বিক্রি করা প্রয়োজন।

হারং গ্রামের রাশেদুল ইসলাম বলেন- ফার্মেসিগুলোতে সর্বোচ্চ খুচরা মূল্যে ঔষধ বিক্রি হয়। আগে ১০-১২শতাংশ কম মূল্যে ঔষধ বিক্রি হতো। সিন্ডিকেট করে তারা সর্বোচ্চ মূল্য নিচ্ছে। এছাড়া কিছু কিছু ঔষধ সরবরাহ নেই দাবি করে গায়ের রেইটের চেয়ে বেশি মূল্যে ঔষধ বিক্রি করছে। এতে রোগী ও তার স্বজনরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।

এব্যাপারে মেডিসিন কর্নারের মালিক পিযুষ সাহা বলেন- আমাদের কোন সিন্ডিকেট নেই। কোন ঔষধ সরবরাহ না থাকলে কেউ কেউ হয়তো বেশি দাম নেয়। কিন্তু এর সংখ্যা একেবারেই কম। আমরা খুচরা মূল্যের কিছুটা কমেই বিক্রি করি।

চান্দিনা বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মো. এরশাদ আলী ভূইয়া বলেন- ব্যবসায়ী সমিতির সভায় আমরা কেমিস্ট এন্ড ড্রাগিস্ট সমিতির আওতায় থাকা কমপক্ষে একটি ফার্মেসি ২৪ ঘন্টা ঔষধ সেবা দেওয়ার জন্য অনুরোধ করি। সেই অনুযায়ী সমিতির সভাপতির মালিকানাধীন দত্ত মেডিকেল হলে বিশেষ প্রয়োজনে রোগী বা তার স্বজনরা ডাক দিলে দোকান খুলে ঔষধ দেওয়ার কথা ছিলো। তারা কেন এটা বাস্তবায়ন করেনি আমি জানিনা।

এব্যাপারে চান্দিনা উপজেলা কেমিস্ট এন্ড ড্রাগিস্ট সমিতির সভাপতি ও দত্ত মেডিকেল হলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তপন কুমার দত্ত বলেন- আমি ব্যবসায়ী সমিতির কথা মতো রাত ১টা পর্যন্ত দোকান খোলা রাখি। এর পর কারো ঔষধের প্রয়োজন হলে সাইনবোর্ডে আমার নাম্বার দিয়ে রেখেছি। ফোন দিলেই আমরা দোকান খুলে ঔষধ দিয়ে থাকি। শনিবার ভোরে আমাকে কেউ ফোন করেনি।
তিনি আরও বলেন- আমাদের কোন সিন্ডিকেট নেই। গায়ের দামেই ঔষধ বিক্রির নিয়ম। তারপরও রোগীদের স্বার্থে আমরা কিছুটা কম মূল্যেই ঔষধ বিক্রি করি।

 

আর পড়তে পারেন