সোমবার, ২২শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লায় চাষাবাদে ঐতিহ্যের ষাঁড় নাঙ্গল মই

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ৮, ২০১৯
news-image

স্টাফ রিপোর্টারঃ
এখন কলের নাঙ্গ লের যুগ। চাষাবাদে আরো উন্নত প্রযুক্তির ব্যবহার হচ্ছে। কম সময়ে কম শ্রমে চাষাবাদে দেশ এগিয়ে যাছে।তার মাঝেও এখনো চাষাবাদের জন্য আবহমান বাংলায় ঐতিহ্যের প্রতীক ষাড়- নাঙ্গল আর কৃষকের কর্দমাক্ত শরীরের ব্যস্ততা।

গত কয়েক দিন আগে আদর্শ সদর উপজেলার কাটানিসার এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, বোরো আবাদের জন্য ষাঁড় নাঙ্গল ও মই দিয়ে জমি চাষ করছেন কৃষক আবুল হাশেম। হু হরর শব্দ করে হালের ষাঁড় জোড়াকে দিয়ে চাষ করা উচু নিচু মাটি মই দিয়ে সমান করছেন।

একটা সময় বাড়ির উঠোনে খড়ের বড় গাধা, গোয়ালে একজোড়া ষাঁড়, গোয়াল ঘরের বাইরে টানানো নাঙ্গল মই ছিলো সম্ভ্রান্ত গৃহস্থের প্রতীক। কালক্রমে গৃহস্থের জমি চাষের ষাঁড় নাঙ্গল মইয়ের জায়গাটি দখল করে নেয় কলের নাঙ্গলসহ আধুনিক সব কৃষি যন্ত্রপাতি।
তার মাঝেও প্রযুক্তির উৎকর্ষ শুরু হলেও প্রত্যান্ত অঞ্চলে শেষের দিকে ষাঁড় দিয়ে বানিজ্যিক ভাবে জমি চাষ শুরু হয়। এখন সব জায়গাতে সময় ও শ্রম বাঁচাতে চাষাবাদে প্রযুক্তির ব্যবহারই বেড়ে যাচ্ছে।

কথা হয় আদর্শ সদর উপজেলার কাটানিশার এলাকায় জমিতে ষাঁড় নাঙ্গল দিয়ে জমি চাষাবাদ করা রসুলপর এলাকার আবুল হাশেমের সাথে। তিনি জানান, বংশ পরম্পরায় তার দাদা বাবা ও তাদের পূর্ব পুরুষেরাও ষাঁড় নাঙ্গল দিয়ে জমি চাষ করতেন। অনেকটা বাবা দাদার স্মৃতি রক্ষাসহ নিজের শখের বশে অর্থের বিনিময়ে অন্যর জমি চাষ করেন। আবুল হাশেম জানান, বছর দশে আগে আশেপাশের বিস্ততৃর্ন ধানী জমির প্রান্তরজুড়ে বেশ কয়েক জোড়া ষাঁড় দিয়ে জমিচাষাবাদ করতে দেখা গেলেও এখন আমার এক জোড়া ষাাঁড় ছাড়া এ এলাকায় আর কোন ষাঁড় নেই। দু এক বছর পর হয়তো আর কোথাও ষাাঁড় দিয়েে জমি চাষ করতে কেউ দেখবে না। অথচ এক সময় ধান চাষের সময় জমিগুলোতে ষাঁড় নাঙ্গল দিয়ে হাল চাষ ছিলো কৃষকের কাছে উৎসবের। এখন প্রযুক্তি আমাদের সময় শ্রম হ্রাস করেছে ঠিক তবে নিরবে নিভৃতে কেড়ে নিয়েছে আমাদের উৎসবের আমেজ।

আর পড়তে পারেন