সোমবার, ২২শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লায় টিউশন নির্ভর হাজারো শিক্ষার্থী

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৩, ২০২৩
news-image

মোঃ উজ্জ্বল হোসেন বিল্লাল:

ছাত্র জীবনে টিউশনী করে না এমন শিক্ষার্থী খোঁজে পাওয়া  ‍মুশকিল। বিশ্ববিদ্যালয়সহ কলেজের অধিকাংশ শিক্ষার্থীরা টিউশনী করেই মূলত তাদের পড়ালেখার খরচ ও বাসা ভাড়া নির্বাহ করে থাকে। অনেক শিক্ষার্থী টিউশনীর আয় থেকে নিজের খরচ মেটানোর পর পরিবারকেও সহায়তা করে থাকে।

তেমনি কুমিল্লায় ও টিউশনের উপর নির্ভর হাজার শিক্ষার্থী। টিউশনী করে নিজেদের চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি মেটাচ্ছে পরিবারের চাহিদা। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, কুমিল্লা শহরে ৮ থেকে ১০ হাজারের বেশি শিক্ষার্থী মেচে ভাড়ায় থাকেন। তারা কেউ কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ, সরকারি কলেজ, মহিলা কলেজ সহ অন্যান্য কলেজের শিক্ষার্থী। এদের মধ্যে অনেকে বিভিন্ন জেলা থেকে শুরু করে প্রত্যন্ত গ্রাম অঞ্চল থেকে আসা। মেচে ভাড়ায় থাকা অনেক শিক্ষার্থীদের টিউশন নির্ভর জীবন কাটাতে হচ্ছে।

কুমিল্লা শহরে টিউশন নির্ভর ১০ থেকে ১৫ জন শিক্ষার্থীর সাথে কথা হয় দৈনিক আজকের কুমিল্লার এই প্রতিবেদকের। তারা জানান আমরা পড়ালেখার উদ্দেশ্য কুমিল্লা শহরে অবস্থান করতেছি। পড়ালেখার পাশাপাশি টিউশন করে চলছে জীবন। টিউশন করেই নিজের পড়ালেখার খরচ চালাতে হয়। তাছাড়া পরিবারের অবস্থা এতটা সচল না যে আমাদেরকে বাসা ভাড়া দিয়ে শহরে পড়াবে। তাই বাধ্য হয়ে টিউশন খুঁজতে হয়। যদিও পড়ালেখার পাশাপাশি টিউশন করা অনেকটা কষ্টকর তারপর ও করতে হবে কিছুই করার নাই। নিজের জীবনের জন্য হলে কষ্ট করতে হয়। আমরা টিউশন করে শহরে বাসা ভাড়া থাকি। যদি টিউশন বেশি থাকে তখন নিজে চলার পাশাপাশি পরিবারের ছোটখাটো আবদার মেটাতে পারি।

এসময় শিক্ষার্থীরা আরো বলেন, শহর জুড়ে কোচিং সেন্টারের ছড়াছড়ি। বিগত দিনে আমরা যেসব টিউশন থেকে ৪০০০ টাকা পাইতাম এখন ২০০০ থেকে ২৫০০ টাকা পেয়ে থাকি। বর্তমানে শহরে শিক্ষকের অভাব নাই। শিক্ষার্থীদের অবিভাবকরা যেখানে কিছু টাকা কম পায় ঐখানে তাদের ছেলেমেয়দের পড়াচ্ছ। ফলে দিন দিন টিউশনের চাহিদা কমে যাচ্ছে। এতে করে আমরা যারা টিউশন নির্ভর জীবন কাটাই আমাদের শোচনীয় ভাবে চলতে হচ্ছে।

তাছাড়া কুমিল্লা শহর আয়তনে বেশি বড় নয়। এ শহরে আউটসোর্সিং এর চাহিদা নাই বললেই চলে। যদি অন্য কোনো পার্ট টাইম কাজের ব্যবস্থা থাকতো তাহলে হয়তো আমরা আরো ভালো ভাবে জীবন কাটাতে পারতাম।

পরিশেষে আমরা বলতে চাই সরকার যদি আমাদের জন্য পড়ালেখার পাশাপাশি অন্য কোনো পার্ট টাইম কাজ বা আউটসোর্সিং এর ব্যবস্থা করে তাহলে বিশেষ করে আমরা যারা টিউশন করে চলতেছি তারা পার্ট টাইম কাজ বা আউটসোর্সিং এর সুযোগ পেতাম। এতে আমরা বিভিন্ন কিছু শিখার পাশাপাশি দক্ষতা উন্নয়ন করতে পারতাম। এসব দক্ষতা ভবিষ্যৎ জীবনে আমাদের অনেক সহায়তা করবে।

আর পড়তে পারেন