শুক্রবার, ২০শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লায় ধ্বংসের পথে নজরুলের ৯টি স্মৃতিচিহৃ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ২৫, ২০১৭
news-image

 

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু ঃ

বিদ্রোহী, সাম্য ও মানবতার সারথী কবি কাজী নজল ইসলামের জীবন ও সাহিত্য কর্মের বিরাট অধ্যায় জুড়ে আছে উপমহাদেশের প্রাচীন নগরী কুমিল্লা। কুমিল্লার জনপদে নজরুলের স্মৃতিফলকসমূহ তারই ইঙ্গিত বহন করে। নজরুলের দাম্পত্য জীবনের বন্ধনও ঘটেছিল কুমিল্লাতে। দুই মহীয়সী নারীর পাণি গ্রহন করে কুমিল্লার সঙ্গে তার ঘটেছিল চিরায়ত নারীর সংযোগ।
কিন্তু কবি নজরুলের স্মৃতি বহনকারি কুমিল্লা নগরীর বিভিন্ন পথে স্থাপিত ১২ টি ফলকের মধ্যে ৯ টিরই করুণ দশা। এর মধ্যে কয়েকটা কবে যে তুলে ফেলা দেয়া হয়েছে তা কেউ খবর রাখেনি। জরাজীর্ণ অবস্থায় রয়েছে মুরাদনগরের দৌলতপুরে নজরুলের বাসর ঘরসহ দৌলতপুরের প্রবেশ দ্বারের স্মৃতিফলকগুলো।

হারিয়ে যাচ্ছে কুমিল্লার ৯টি স্মৃতিফলক ঃ
ধুমকেতুর মত উদ্ভাসিত কবি নজরুল ১৯২১ সালের ৩ এপ্রিল থেকে ১৯২৪ সালের জানুয়ারী পর্যন্ত পাচঁবারে ১১ মাস কাটিয়েছিলেন কুমিল্লায়। নজরুলের প্রেম,বিয়ে-বিচ্ছেদ ,গ্রেফতার, সমাবেশ এবং কাব্য ও সংস্কৃতি র্চ্চাসহ বহু ঘটনার নীরব সাক্ষী হয়ে আছে কুমিল্লার বিভিন্ন জনপদে স্থাপিত স্মৃতিফলকগুলো।

১৯২২ সালের ২৩ নভেম্বর নগরীর ঝাউতলা সড়কের শেষ প্রান্তে রাস্তার দক্ষিণ পাশ থেকে ‘আনন্দময়ীর আগমন’ কবিতার জন্য কবি গ্রেফতার হয়েছিলেন সেই স্থানে রয়েছে একটি স্মৃতিফলক। স্মৃতিফলকের পাশে গড়ে উঠেছে শীতক প্রকৌশলীর দোকান । সে দোকানের নষ্ট হওয়া ফ্রিজ ও এসির মেশিন, বালতিতে ঢেকে আছে নজরুলের সে স্মৃতিফলক।

কুমিল্লায় এসে প্রতিবারই তিনি উঠেন কান্দিরপাড়ে ইন্দ্র কুমার সেন গুপ্তের বাড়িতে অর্থাৎ প্রমীলাদের বাড়িতে। প্রমীলাদের বাড়ির পুকুরটি ভরাট হয়ে গড়ে উঠেছে বড় বড় অট্রালিকা। বাড়িটি বিক্রি হয়ে গেছে। সেই বাড়ির স্মৃতিফলকটি এখন আর নেই।

১৯২১ সালের ২১ নভেম্বর রাজগঞ্জ বাজারে নজরুল ব্রিটিশ বিরোধী মিছিলে অংশ নিয়েছিলেন, সেখানের স্মৃতিবিজড়িত ফলকটি এখন আর নেই। সেখানে এখন ময়লা-আবর্জনা ফেলার ডাস্টবিন রয়েছে।

প্রমীলাদের বাড়ির পাশেই ছিলো বিশিষ্ট কংগ্রেস নেতা বসন্ত কুমার মজুমদারের বাড়ি। কবির সাথে পরিচয় হয় বাগিচাগাঁওয়ের বিপ্লবী অতীন রায়ের সাথে। এ সড়ক সংলগ্ন বসন্ত স্মৃতি পাঠাগারে কবি আড্ডা দিতেন ও কবিতা লিখতেন। এখানে নজরুল ফলক ছিল।
এ স্মৃতিফলকটি ব্যবসায়ীরা সরিয়ে রাস্তার বিপরীত পাশে ফরিদা বিদ্যায়তনের সামনে বসিয়ে দিয়েছেন।

নগরীর বজ্রপুরে অবস্থিত বহু পুরাতন কুমিল্লা ইউসুফ হাই স্কুলের নিকটেই ছিল অবিনাশ ময়রার দোকান। এই দোকানের পাউরুটি ও রসগোল্লা ছিল কবির প্রিয়। এখন সেটি আর নেই। স্মৃতি রক্ষার্থে কোন ফলকও নেই।

কবি নজরুল কুমিল্লায় অবস্থান কালে বেশ কয়েকবার দারোগা বাড়ির মাজারের পার্শ্ববর্তী এই বাড়ির সঙ্গীত জলসায় অংশ নিয়েছেন। নজরুল স্মৃতি রক্ষা পরিষদ ১৯৮৩ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর এই বাড়ির সামনে একটি ফলক স্থাপন করে। ফলকে উল্লেখ করা হয়, ‘বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম ১৯২১, ১৯২২, ১৯২৩ এখানে গজল গানের মজলিসে যোগ দিয়েছেন। এখানে ওস্তাদ মোহাম্মদ হোসেন খসরুসহ অনেক গান গেয়েছেন। আগামীকাল নজরুলের জন্মবার্ষিকী উৎসব। অথচ নজরুলের স্মৃতি বিজড়িত এই স্থানের কোন খবর কেউ নিচ্ছে না।

নগরীর দ্বিতীয় মুরাদপুর মহারাজ কুমার নবদ্বীপ চন্দ্র দেব বর্মন বাহাদুরের রাজবাড়িতে ১৯২২ সালে অনেকদিন নজরুল কুমার শচীন্দ্র দেব বর্মনের সঙ্গে বসে সঙ্গীত চর্চা করতেন। সাবেক জেলা প্রশাসক মোঃ হাসানুজ্জামান কল্লোলের আন্তরিক প্রচেষ্টায় শচীন দার এই বাড়িটি সংস্কারসহ সাংস্কৃতিক কেন্দ্র প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেয়া হয়। তাছাড়া নানুয়ার দিঘীরপাড়ের সুলতান মাহমুদ মজুমদারের বাড়ি, নবাববাড়ির নজরুলের ম্মৃতিচিহ্ন ফলকগুলোও অযতেœ,অবহেলায় নিশ্চিহৃ হওয়ার পথে।

মুরাদনগরেও নজরুল স্মৃতিগুলোঃ
বিয়ের রাতেই নজরুল অজ্ঞাত কারণে দৌলতপুর ছেড়ে চলে গেলেও রেখে গেছেন অনেক স্মৃতি চিহ্ন। সেই সব স্মৃতিময় গাছ, ঘাট, বাসর ঘর, খাট প্রভৃতির সৌন্দর্য মলিন হতে বসেছে। বাসর ঘরের খাটে এখন মানুষ ঘুমায়,সেই বালিশ,কাথাঁ ব্যবহার হচ্ছে। বাসর ঘরটিও আগের অবস্থায় নেই,পুরোটা প্রায় ভঙ্গুর । যে আম গাছের নিচে বসে কবি বাঁশি বাজাতেন সেটি মরে গেছে। আলী আকবর খাঁন মেমোরিয়াল ভবনটিও ধ্বংশের শেষ প্রান্তে, এটি সংস্কার ও সংরক্ষণ অতি জরুরি।
এদিকে মুরাদনগরের দৌলতপুরে প্রবেশপথে নজরুল তোরণের রাস্তার দু’পাশে স্থাপিত নজরুলের কবিতা-গান সম্বলিত ৫/৬ টি ফলক ভেঙে পুলের সাথে ঝুলে আছে।

কুমিল্লা নজরুল পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অশোক বরুয়া জানান, গত ২ বছর আগে এসব ফলকগুলো সংস্কার করার জন্য সংস্কৃতি মন্ত্রনালয় , সংস্কৃতি সচিব বরাবর চিঠি দিয়েছিলাম। মাত্র তিনটি স্মৃতিফলক সংস্কার করা হয়েছে। বাকিগুলো অবহেলিত। নজরুলের এসব স্মৃতিফলকগুলো অচিরেই সংস্কার করা উচিত। এসব স্মৃতিফলক বিলীন হয়ে গেলে কুমিল্লার মানুষ এক সময় ভুলেই যাবেই নজরুলের পদচারণা ছিল এ জনপদে।

আর পড়তে পারেন