শুক্রবার, ২১শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লায় মন্ডপের ঘটনায় গ্রেফতার ৫২ জনের রাজনৈতিক পরিচয় মিলেছে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ২৮, ২০২১
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

কুমিল্লায় পবিত্র কুরআন অবমাননার মামলায় গ্রেফতার ৫২ জনের রাজনৈতিক পরিচয় মিলেছে। পুলিশ ও অন্যান্য সংস্থার তদন্তে এসব আসামির রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতা নিশ্চিত করা হয়।

তদন্ত সংস্থার একাধিক সূত্র জানায়, মণ্ডপে পবিত্র কুরআন রেখে বিশৃঙ্খলা ও সহিংসতা করা ছিল পূর্বপরিকল্পিত। ঘটনার সঙ্গে জড়িতরা অনেক আগে থেকেই এ নিয়ে পরিকল্পনা করে আসছিল। তবে এ ঘটনার মাস্টারমাইন্ডকে খুঁজছে সিআইডি। এরই মাঝে রিমান্ডে থাকা আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদে বেশকিছু নাম বেড়িয়ে এসেছে। তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তদন্তে মাঠে কাজ করছে বিভিন্ন সংস্থার সদস্যরা।

এদিকে বিশৃঙ্খলায় জড়িত সন্দেহে বিএনপি ও জামায়াত শিবিরের ৫২ জনসহ এ পর্যন্ত ৭২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর মধ্যে অভিযুক্ত ইকবাল রিমান্ডে নতুন নতুন তথ্য দিচ্ছে। এতে ঘটনার মূল রহস্য উদ্ঘাটন ও নেপথ্যে থাকাদের শনাক্ত সহজ হবে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তারা।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, কুরআন অবমাননা মামলায় রিমান্ডে থাকা ইকবাল, ইকরাম, ফয়েজ ও হুমায়ুন তদন্ত সংস্থার কাছে যেসব তথ্য দিচ্ছে তা গভীরভাবে যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। আলোচিত এ ঘটনায় রাজনৈতিক সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদেরও নাম উঠে আসছে।

ধর্ম অবমাননা, আইসিটি আইন লঙ্ঘন ও সহিংসতার অভিযোগে এ পর্যন্ত ১১টি মামলা হয়েছে। এরমধ্যে তদন্তভার পেয়ে কুরআন অবমাননা ও আইসিটি আইনের দুটি মামলায় গ্রেফতার ইকবালসহ পাঁচজনের দেওয়া তথ্য ব্যাপকভাবে অনুসন্ধানে নেমেছে সিআইডি। আইসিটি মামলায় ফেসবুকে লাইভ করার বিষয়টি স্বীকার করে ফয়েজও আরও নতুন কিছু তথ্য দিয়েছেন। তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকায় আরও পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এ ছাড়া মাজারের দুই খাদেম ফয়সাল ও হুমায়ুনের রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতা আছে কি না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তবে প্রধান অভিযুক্ত ইকবালকে পরিবারের পক্ষ থেকে নেশাগ্রস্ত ও ভবঘুরে বলা হলেও তার আচরণে তা মনে হচ্ছে না বলে জানান তদন্ত কর্মকর্তারা। পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে সে স্বাভাবিক আচরণ করছে।

এদিকে নগরীর কাপড়িয়াপট্টি চান্দমনি রক্ষাকালী মন্দিরে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলায় গ্রেফতার ১৬ জনকে কারা ফটকে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার বিকালে কুমিল্লার ১নং আমলি আদালতের (কোতোয়ালি) সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নুসরাত জাহান উর্মি এ নির্দেশ দেন। বুধবার বিকালে কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি আনোয়ারুল আজিম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এ বিষয়ে সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার খান মোহাম্মদ রেজওয়ান বলেন, অত্যন্ত গুরুত্বসহকারে আলোচিত দুটি মামলার তদন্ত শুরু করেছি। কিভাবে ঘটনার পরিকল্পনা করা হয়েছে এবং কারা এর নেপথ্যে রয়েছে সে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ইকবালের পেছনে জড়িতদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনতে কাজ করছে সিআইডি। তিনি বলেন, রিমান্ডে থাকা আসামিরা যেসব তথ্য দিচ্ছে তদন্তের স্বার্থে তা বলা যাচ্ছে না।

কুরআন অবমাননা, পূজামণ্ডপ ও মন্দিরে হামলার ঘটনায় কুমিল্লার কোতোয়ালি, সদর দক্ষিণ, দাউদকান্দি ও দেবিদ্বার থানায় পৃথক ১১টি মামলা হয়েছে। এগুলোতে এজাহারনামীয় ৯২ জনসহ ১১০২ জনকে আসামি করা হয়েছে। এরমধ্যে গ্রেফতার হয়েছেন ৭২ জন। গ্রেফতারদের মধ্যে বিএনপির ৩৬ জন এবং জামায়াত ও শিবিরের ১৬ জন নেতাকর্মী রয়েছেন বলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সূত্রে জানা গেছে।

আর পড়তে পারেন