সোমবার, ২২শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লায় সিএনজি চালক ও শ্রমিক নেতৃবৃন্দকে হয়রানীর প্রতিবাদে মানববন্ধন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২০
news-image

স্টাফ রিপোর্টারঃ
শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্য, চালক, কেরানী ও নেতৃবৃন্দকে প্রশাসনিক বিভিন্ন আইনশৃংখলা বাহিনী কর্তৃক হয়রানীর প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে কুমিল্লা জেলা সিএনজি অটোরিক্সা শ্রমিক ইউনিয়ন রেজি: ১৫৬৯ এর ড্রাইভার শ্রমিকরা।

রবিবার (২৩ ফেব্রুয়ারী) সকালে কুমিল্লা নগরীর টমছমব্রিজ এলাকায় প্রায় ২ শতাধিক সিএনজি চালক শ্রমিকরা গাড়ি চলাচল বন্ধ করে দিয়ে এই মানববন্ধন করেন।

মানববন্ধনে অংশ নিয়ে শ্রমিক নেতা গোলাম মোস্তফা বলেন, ১৫৬৯ শ্রমিকগণ কাউকে চাঁদা দেয়না। আমরা নিজেদের সংগঠন পরিচালনা জন্য তিন সংগঠনকে ৩০ টাকা দিয়ে থাকি। ইহা আমাদের কল্যাণে ও সাংগঠনিক কাজে খরচ করা হয়। আমরা ১৫৬৯ শ্রমিক ইউনিয়নের সি.এন.জি শ্রমিকগণ আমরা সভার রেজুলিউশনের মাধ্যমে সংগঠন পরিচালনা করার আমরা সি.এন.জি শ্রমিকরা স্ব-ইচ্ছায় তিন সংগঠনের জন্য ১০ টাকা করে দৈনিক সারাদিনে ১ বার ৩০ টাকা দিয়ে থাকি। এ টাকা দিয়ে নেতারা আমাদেরকে মৃত ফান্ড, পেনশন, চিকিৎসা সহ বিভিন্ন আর্থিক সহযোগিতা করে থাকে। যানজট নিরসন করার জন্য লাইনম্যান নিয়োগ করেন। তাহাদের মাধ্যমে আমরা সু-শৃঙ্খলভাবে গাড়ি চালাই। ৩০ টাকার বাইরে যে সকল অতিরিক্ত টাকা বিভিন্ন নামে উত্তোলন করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিকভাবে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য আমরা শ্রমিকরাও প্রশাসনের কাজে অনুরোধ করছি। এবং আমাদের সংগঠন সু-শৃঙ্খলভাবে পরিচালনার ক্ষেত্রে প্রশাসন সহ সকল মহলের সহযোগীতা কামনা করছি।

শ্রমিকনেতা আলী হোসেন বলেন, আমরা সি.এন.জি ১৫৬৯ এর শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্য ও শ্রমিক, কেরানী ও নেতৃবৃন্দকে হয়রানীর প্রতিবাদ করছি। আমরা সি,এনজি,ড্রাইভার,অনেক পরিশ্রম করে উপার্জন করে আমাদের বরণ পোষন করে থাকি। আমাদের সি.এন. জি চালকরা ১৯৯২ সালে বেবী-টেক্সীর আমল থেকে, ১৫৬৯ সংগঠনটি শ্রমিকদের মাধ্যমে আমরা গঠন করি, নেতা-আমাদের মাধ্যমে নির্বাচিত করে আমাদের সাংগঠনিক কাজ ও আমাদের সেবা দেওয়ার জন্য আমরা নেতা নির্বাচিত করি। যেমন: আমরা কোন এক্সিডেন্ট করলে, তাৎক্ষনিক ভাবে আমাদেরকে উদ্ধার করে চিকিংসা সহ নানা ধরনের সহযোগীতা করে থাকে, যাতে করে কুমিল্লা ছোট শহর ঘোরে ফিরে সি.এন.জি চালানোর মত ব্যাবস্থা নাই,তাই আমরা নির্ধারিত ষ্ট্যান্ডে গাড়ির সিরিয়াল মেইনটিং করার জন্য কেরানী নিয়োগ দেই। কেরানী না থাকিলে আমরা ড্রাইভারগন সিরিয়াল নিয়ে মারামারি সহ কার আগে কে জাবে এ নিয়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়। কেরানী থাকলে আমাদেরকে সু-শৃঙ্খলভাবে পরিচালনা করতে পারে।

শ্রমিকনেতা সোলায়মান বলেন, ১৫৬৯ সি.এন.জি শ্রমিক ইউনিয়ন ১৯৯২ সাল থেকে শ্রমিক নিয়ে এই সংগঠন পরিচালনা হয়ে আসছে। কখনো সংগঠন পরিচালনা করার ক্ষেত্রে এই সংগঠন কোন দিন কোন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়নি। আমরা সি.এন.জি শ্রমিকগণ যদি কেউ আমাদের কাছে চাঁদা চায়। তাহলে আমরা অভিযোগ করে, প্রশাসনিকভাবে তাহার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার অভিযোগ করব। কিন্তু আমরা অভিযোগ না করা সত্ত্বেও আমাদের কর্মরত কেরানী ও লাইনম্যানদেরকে চাঁদাবাজি হিসাবে চিহ্নিত করা হচ্ছে। সঠিক কাগজপত্র দেখে আমাদের অভিযোগের বৃত্তিতে সংগঠনের কেরানী ও লাইনম্যানদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য প্রশাসনের কাছে অনুরোধ করছি।

এসময় শ্রমিকরা বলেন, সংগঠনের পক্ষ থেকে আমরা শ্রমিক নেতা নির্বাচিত করি। সংগঠন সদস্যদের জিবি আদায়ের জন্য ও গাড়ী সিরিয়াল দেয়ার জন্য আমরা কেরানীর মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করি। কিন্ত প্রশাসন আমাদের বৈধ স্ট্যান্ড ও শ্রম মন্ত্রনালয়ের অনুমোদন থাকার পরও তারা আমাদের নেতৃবৃন্দদের হয়নারী করছে। মিথ্যাভাবে মামলা ও হামলার শিকার হচ্ছি। মহাসড়কে সিএনজি চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর আমরা নগরীর বিভিন্ন এলাকায় গাড়ী চালিয়ে জিবিকা নির্বাহ করছি। এতেও আমাদের উপর হামলা মামলা দেয়া হচ্ছে। আমাদের উপর এমন অত্যাচারের আমরা ইতিমধ্যে জেলা প্রশাসন বরাবর স্বারকলিপি দিয়েছি। আমাদের উপর এমন অত্যাচার হয়রানী বন্ধ না করা হলে আগামী দিনে আমরা কর্মবিরতী ও সড়ক অবরোধসহ কঠোর কর্মসূচী দিতে বাধ্য হব।

আর পড়তে পারেন