বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা ও নারায়নগঞ্জে জিহাদী বই ও বিস্ফোরকসহ জেএমবির ৮ সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ১১, ২০১৭
news-image

 
স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লা   ও নারায়নগঞ্জ জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে জিহাদী বই ও বিস্ফোরকসহ জেএমবির (সরোয়ার-তামিম গ্র“পের) ৮ জন সক্রিয় সদস্যকে আটক করেছে কুমিল্লা ও নারায়নগঞ্জ র‌্যাব-১১ সদস্যরা।

র‌্যাবের গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব-১১ এর একটি আভিযানিক দল অভিযান পরিচালনা করে ৬ এপ্রিল রাত ৭ টা হতে ৭ এপ্রিল ভোররাত সাড়ে ৩টা পর্যন্ত নারায়নগঞ্জ এর সিদ্ধিরগঞ্জ উপজেলার সাইনবোর্ড এবং কুমিল্লার গৌরিপুর এলাকা হতে জেএমবির ৮ জন সদস্যকে আটক করা হয়।

আটক হওয়া সদস্যরা হলেন, শরিয়তপুর জেলার জাজিরা উপজেলার মোঃ জামাল @ রাসেল জিহাদী (৩৫), ঢাকার কদমতলী থানার খন্দকার আবু নাঈম@ নাঈম জিহাদী (৪৯), ডেমরা থানার মোঃ নুরুল আবছার (২৭), মাদারীপুর জেলার শিবচর থানার মোঃ মহসিন (৫২), বাগেরহাট জেলার মোড়লগঞ্জ উপজেলার মোঃ জাবির হাওলাদার (২২)। কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার মোঃ আক্তারুজ্জামান @ মারুফ (৩২), মুরাদনগর উপজেলার হাফেজ মাওলানা ওমর ফারুক (৩২) ও তিতাস উপজেলার মোঃ কাশেম মুন্সি (৩১)।

কুমিল্লা র‌্যাব-১১, সিপিসি ২ এর কমান্ডার মেজর মোস্তফা কায়জার জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নারায়ণগঞ্জের সাইনবোর্ড এলাকায় নবনির্মিত পরিজাত মার্কেটের অভ্যন্তরে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গী সংগঠনের (সারোয়ার-তামিম গ্র“পের) কিছু সদস্য গোপন বৈঠকের জন্য একত্রিত হওয়ার সংবাদ প্রাপ্তির প্রেক্ষিতে মার্কেটে অভিযান পরিচালনা করে মোঃ জামাল ওরফে রাসেল জিহাদী, খন্দকার আবু নাঈম ওরফে নাঈম জিহাদী, মোঃ নুরুল আবছার, মোঃ মহসিন ও মোঃ জাবির হাওলাদারকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তাদের দেয়া তথ্যমতে পরিজাত মার্কেটে ব্যাপক তল্লাশী চালিয়ে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক জিহাদী বই এবং বোমা তৈরীর সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়েছে। পরে তাদের স্বীকারোক্তি মতে কুমিল্লার গৌরীপুর বাজার চৌরঙ্গী মার্কেটের একটি মোবাইল দোকান থেকে এই গ্র“পের মোঃ আক্তারুজ্জামান ওরফে মারুফ, হাফেজ মাওলানা ওমর ফারুক ও মোঃ কাশেম মুন্সিকে আটক করা হয়।

প্রাথমিক জিঞ্জাসাবাদে তারা স্বীকার করে যে, তারা নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামায়াতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশ (জেএমবি) এর (সরোয়ার-তামিম গ্র“পের) সক্রিয় সদস্য যারা বিগত প্রায় দেড় বছর যাবত একত্রিত রয়েছে। গ্র“পটির মূল সমন¡য়কারী জামাল ওরফে রাসেল জিহাদী। বিভিন্ন স্থানে নাশকতা করার উদ্দেশ্যে তারা বিস্ফোরক গুলো মজুদ করেছিল বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। এই সংঘবদ্ধ দলটি সংগঠনের জন্য সদস্যপদ বৃদ্ধি এবং সংগঠনের বিভিন্ন প্রয়োজন যেমন, সক্রিয় সদস্যদের জন্য বাড়ী ভাড়াসহ অন্যান্য প্রয়োজনের তাগিদে ভূয়া জাতীয় পরিচয়পত্র ও অন্যান্য নথিপত্র তৈরী করত। এছাড়াও তারা ফেসবুকে ভাইরাল আকারে বিভিন্ন উগ্রবাদী মতাদর্শ প্রচার করত।

স¤প্রতি তারা সদস্য পদ বৃদ্ধির জন্য প্রায় ২ মাস পূর্বে ‘নতুন দিগন্ত’ নামে একটি অনলাইন ই-কমার্স জাতীয় এমএলএম কো¤পানী চালু করে। ইতিপূর্বেও তারা কয়েকটি অনলাইন ভিত্তিক এমএলএম কো¤পানী চালু করেছিল। ঐ কো¤পানীগুলো জামাল, নাঈম ও আবছার পরিচালনা করত। আবছার ইতিপূর্বে তার অর্জিত ডেসটিনিতে কাজের অভিজ্ঞতা এক্ষেত্রে কাজে লাগায়। মূলত আইন-শৃংখলা বাহিনীর দৃষ্টি এড়াতে এরা ঘন ঘন কো¤পানীর নাম পরিবর্তন করে। এমএলএম কো¤পানীতে গ্রাহক সংখ্যা বৃদ্ধিতে তারা গ্রাহকদেরকে লোভনীয় প্রস্তাব দিয়ে থাকে। তাদের যে কোন গ্রাহক নিদির্ষ্ট পণ্য বা নিদির্ষ্ট দোকান হতে ঔষধ, মনোহরী, তৈষজপত্র, দৈনন্দিন বাজার, ইলেক্ট্রনিক্স পণ্য ইত্যাদি ক্রয়ে ৫% হতে ১০% ছাড় পেয়ে থাকে। এমএলএম কো¤পানীও পণ্যের উপরে ১০% কমিশন পেয়ে থাকে। প্রতিটি গ্রাহককে সদস্য হতে হলে ব্যক্তিগত বিবিধ তথ্য প্রদান করতে হয় যেমন নাম, ঠিকানা, ছবি, মোবাইল নম্বর জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি বা নম্বর ইত্যাদি ক্রমে ক্রমে এদের সঙ্গে হৃদ্যতা বৃদ্ধি করে এরা ফেসবুক আইডি নেয় বা নিজেরা সার্চ করে বের করে ফ্রেন্ড রিকোয়েষ্ট পাঠায়। পরবর্তীতে তারা বিভিন্ন উগ্রবাদী পোস্টগুলো প্রেরণ করতে থাকে।

জিজ্ঞাসাবাদে আরও জানা যায় যে, এমএলএম কো¤পানীর গ্রাহকদের তথ্য দ্বারা তাদের সংগঠনের বিভিন্ন স্থানে অবস্থানরত জঙ্গি সদস্যদের জন্য ভুয়া নথিপত্র তৈরীতে সাহায্য করত। ভুয়া নথিপত্রগুলো তৈরীতে মূলত আবু নাঈম মূল ভূমিকা পালন করে। সে তার জমি বিক্রির দালালি কাজের অভিজ্ঞতা কাজে লাগায়। ক¤িপউটার ক¤েপাজের কাজটি তাদের গ্র“পের ক¤িপউটার ও মোবাইল সার্ভিসিং এর দক্ষ মারুফ ও জাবিরের মাধ্যমে করে থাকে। তৈরীকৃত ভূয়া নথিপত্র গুলো জামাল ওরফে রাসেল জিহাদী তাদের গ্র“পের অপর সদস্য কাসেম এবং মোহসিনের ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান ব্যবহার করে বিভিন্ন স্থানে প্রেরণ করে থাকে।
ইতিপূর্বে তারা শনির আখড়ার একটি লাইব্রেরী ও কুমিল্লার কয়েকটি স্থানে মিলিত হয়েছে। ওই সকল স্থানে তাদের সংগঠনের কয়েকজন বড় ভাই আসতো এবং তাদের বিবিধ নির্দেশনা দিত। তারা নিজেদের মধ্যে থ্রিমা,ইমো, হোয়াটস এ্যাপ ইত্যাদির মাধ্যমে যোগাযোগ রক্ষা করে।

আর পড়তে পারেন