বৃহস্পতিবার, ২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর জিএম এর বিদায় অনুষ্ঠানের জন্য ব্যাপক চাঁদাবাজির অভিযোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ৫, ২০১৭
news-image

মো. শরীফুল ইসলাম, চান্দিনা ঃ
কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার মো. নজরুল ইসলাম খান এর বিদায় অনুষ্ঠানের জন্য ব্যাপক চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে। আগামী ১৪ জুন তার শেষ কর্ম দিবস। চাকরির মেয়াদ থাকতেই বিদায় সংবর্ধনার আয়োজন করছে তার অনুসারী সমিতির কতিপয় কর্মকর্তা-কর্মচারী। আগামী ৯ জুন সমিতির চান্দিনাস্থ প্রধান কার্যালয়ে ওই বিদায় অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। বিদায় অনুষ্ঠানের জন্য সমিতির চুক্তিভিত্তিক নিয়োগপ্রাপ্ত নি¤œশ্রেণির কর্মচারী মিটার রিডারদের কাছ থেকে নূন্যতম ৩ শত টাকা এবং এজিএমদের কাছ থেকে ১ হাজার ৫ শত টাকা পর্যন্ত আদায় করা হয়েছে। এভাবে সমিতির ছয় শতাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারীর কাছ থেকে চাঁদা আদায় করা হয়েছে। এছাড়া তার বিদায় উপলক্ষে সারা দেশের ৭৮টি সমিতি থেকে ২ হাজার টাকা করে চাঁদা উঠিয়েছেন আয়োজকরা।
এদিকে সম্প্রতি সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার মো. নজরুল ইসলাম খান এর বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ এনে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড ও দুর্নীতি দমন কমিশন এ পৃথক অভিযোগ করেছেন সমিতির একজন কর্মচারী। অভিযোগের পর সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার মো. নজরুল ইসলাম খান কোন প্রকার ঝামেলা এড়াতে চাকরিতে থাকা অবস্থায়ই তার নিজের অবসর জনিত ফাইল প্রস্তুত করতে অধীনস্ত কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছেন।
বিদায় অনুষ্ঠান উপলক্ষে সমিতির ৩টি জোনাল অফিস, ১টি সাব জোনাল অফিস, ৩টি এরিয়া অফিস ও সবগুলো অভিযোগকেন্দ্রে কর্মরত সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করছেন আয়োজকরা। নি¤œ শ্রেণির কর্মচারীরাও চাঁদা দেওয়া থেকে রক্ষা পাচ্ছে না। সমিতির বরুড়া, কোম্পানীগঞ্জ, দেবিদ্বার এবং প্রধান কার্যালয় চান্দিনা’র একাধিক কর্মকর্তা, লাইনম্যান, মিটার রিডার এর সাথে কথা বলে এসব তথ্য ও অভিযোগ এর সত্যতা পাওয়া যায়।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে লাইনম্যান ও মিটার রিডাররা জানান, তাদের কাছ থেকে অনিচ্ছাসত্ত্বেও উর্ধ্বতন কর্মকর্তা বিদায় সংবর্ধনার নাম করে চাঁদা আদায় করেছেন। ম্যাসেঞ্জারদের কাছ থেকে ২ শত, মিটার রিডারদের কাছ থেকে ৩ শত, লাইনম্যানদের কাছ থেকে ৫ শত টাকা, মিটার টেস্টার, বিলিং সহকারী, ক্যাশিয়ার এর কাছ থেকে ৫ শত, বিলিং সুপার ভাইজারদের কাছ থেকে ১ হাজার, এজিএমদের কাছ থেকে ১ হাজার ৫ শত টাকা করে চাঁদা আদায় করেছে আয়োজকরা।
জানা যায়, সমিতির অধীনে প্রায় ৬ শতাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারী রয়েছে। ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করেন, চান্দিনা কার্যালয়ে জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার শরীফুল ইসলাম ভূইয়া, বিলিং সুপার ভাইজার নজরুল ইসলাম, কোম্পানীগঞ্জ জোনাল অফিসে এজিএম লক্ষণ চন্দ্র পাল, বাঙ্গরা সাব জোনাল অফিসে এজিএম মাহফুজুর রহমান, বরুড়ায় বিলিং সুপার ভাইজার অমরি রাণী সাহাসহ প্রতিটি অফিসের ৩ থেকে ৫ জন কর্মকর্তা চাঁদা উঠিয়েছেন। সেই টাকা প্রধান কার্যালয়ে আয়োজকদের কাছে পৌছে দেওয়া হয়েছে বলে অনুসন্ধানে জানা গেছে।
এ ব্যাপারে জানতে চান্দিনা কার্যালয়ে জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার শরীফুল ইসলাম ভূইয়ার মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে অন্য একজন ফোন রিসিভ করে জানান, তিনি অসুস্থ।
এ ব্যাপারে বাঙ্গরা সাব জোনাল অফিসের এজিএম মাহফুজুর রহমান এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন- ‘এ বিষয়ে আপনি চান্দিনা কার্যালয়ে যোগাযোগ করেন। আমি কিছুই জানি না।’ একপর্যায়ে তিনি বলেন- ‘আমাদের অবস্থা কন্যা দায়গ্রস্থ পিতার মত’।
চাঁদা উঠানোর বিষয়ে জানতে চাইলে কোম্পানীগঞ্জ জোনাল অফিসের এজিএম (কম) লক্ষণ চন্দ্র পাল জানান, ‘এটা ইন্টারনাল বিষয়। এটা কি বলবো আপনাকে।’
তড়িঘড়ি করে ফাইল প্রস্তুতের বিষয়ে জানতে চাইলে কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর এজিএম (অর্থ) মো. জয়নাল আবেদীন জানান, ‘চাকরি শেষ হলে নিয়মানুযায়ী অবসর জনিত ফাইল বিআরইবিতে পাঠাতে হয়। সেটাই করা হচ্ছে। তবে তড়িঘড়ি করে নয়। স্যারের চাকরি শেষ হবে ১৪ জুন। এরপরই ফাইল বিআরইবিতে পাঠানো হবে।’
চাঁদা উঠানোর বিষয়ে জানতে চাইলে সমিতির ডিজিএম মো. ছাদেক জামান বলেন- ‘চাকরি শেষ হলে সবাইকেই বিদায় অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সংবর্ধনা দেয়া হয়। এর জন্য কোন প্রাতিষ্ঠানিক বরাদ্দ থাকে না। ফেয়ার ওয়েল এর টাকাটা মানুষের সাহায্য সহযোগীতায় আসে। যে ব্যক্তি চাঁদাবাজির অভিযোগ করেছে সে ভাল লোক না। আসলে অনুষ্ঠানের ডেকোরেশন, চেয়ার-টেবিল ও ইফতারের জন্য অনেক খরচ হবে। এজন্যই টাকা তোলা হচ্ছে। তবে কাউকে বাধ্য করে নয়। অনেকেইতো টাকা দেয়নি। যার মনে চায় সে দিবে, না হলে দিবে না। আমিও দিয়েছি।’
এব্যাপারে কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার মো. নজরুল ইসলাম খান বলেন- ‘আমি এ বিষয়ে কিছুই জানি না। আমার কোন চাওয়া-পাওয়া নেই। আমি বিদায় অনুষ্ঠানের পক্ষে না।’

আর পড়তে পারেন