মঙ্গলবার, ২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা ‘মাতৃভান্ডার’ নামে মিষ্টির দোকান আছে ৭০টির বেশি !

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০১৯
news-image

 

অনলাইন ডেস্কঃ
বাঙালির মাতৃভক্তি নিয়ে তো সন্দেহের কোনো অবকাশ নেই। তবে আগের সব নজিরকেই যেন ছাড়িয়ে গেছে কুমিল্লা অঞ্চলের মানুষের ‘মাতৃভক্তি’। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লার কয়েক কিলোমিটার এলাকায় শুধু ‘মাতৃভান্ডার’ নামে মিষ্টির দোকান আছে ৭০টির বেশি।

কুমিল্লা শহরের আশপাশের এলাকা মিলিয়ে এ নামের মিষ্টির দোকানের সংখ্যা শতাধিক। পৃথিবীর কোথাও এত অল্প দূরত্বের জায়গায় একই নাম বা ব্র্যান্ডের এতসংখ্যক দোকান আছে বলে মনে হয় না।

এর কারণ কী? এ প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে জানা গেছে, পুরোটাই ব্যবসায়িক উদ্দেশ্য। এই ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যেই সাইনবোর্ডের এক কোণে ছোট হরফে ‘নিউ’ ‘প্রসিদ্ধ’ ‘আদি’ ইত্যাদি শব্দ জুড়ে দিয়ে বড় বড় হরফে ‘মাতৃভান্ডার’ লিখে দোকান খুলে বসেছেন ব্যবসায়ীরা। এই বাহারি দোকানগুলোর ভিড়ে আসল ‘মাতৃভান্ডার’টিই যেন হারিয়ে যেতে বসেছে। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের যাত্রীরা অনেকেই বিভ্রান্ত হয়ে এসব দোকান থেকে মহা–উত্সাহে ‘বিখ্যাত’ রসমালাই কিনে নিয়ে যান। কিন্তু মুখে দিয়ে প্রকৃত স্বাদ পান না।

এ প্রসঙ্গে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় জাদুঘরের সাবেক কিউরেটর শামসুল হোসাইন বলেন, ‘বিভিন্ন এলাকার কিছু বিখ্যাত খাবার আছে, যা ওই এলাকার ঐতিহ্যের অংশে পরিণত হয়েছে। যেমন পোড়াবাড়ির চমচম, নাটোরের কাঁচাগোল্লা, রাজশাহীর রসকদম, বগুড়ার দই বা মুক্তাগাছার মন্ডা। কিছু চতুর ব্যবসায়ীর কারণে যদি মানুষ এর প্রকৃত স্বাদ থেকে বঞ্চিত হয়, সেটা শাস্তিযোগ্য অপরাধ বলে মনে করি আমি। ’

আসল মাতৃভান্ডার

তবে কুমিল্লার বাসিন্দারা কিন্তু আসল ‘মাতৃভান্ডার’টিকে ঠিকই চেনেন। খুঁজতে খুঁজতে আমরাও গিয়ে একদিন হাজির হয়েছিলাম শহরের প্রাণকেন্দ্রে মনোহরপুরের সেই চাকচিক্যহীন দোকানটিতে। সারিবদ্ধ আরও অনেক দোকানের মধ্যে আলাদা করা যায় না। অথচ এই দোকানের সামনে ক্রেতার ভিড় লেগেই আছে। দোকানের ক্যাশ সামলাচ্ছিলেন যিনি, তাঁরও হিমশিম অবস্থা। সাংবাদিক পরিচয় দিয়েও তেমন গুরুত্ব পাওয়া গেল না তাঁর কাছ থেকে। নিজের নামটাও জানাতে চান না তিনি। তবু জিজ্ঞেস করেছিলাম, ‘আপনাদেরটাই তো আসল মাতৃভান্ডার, কিন্তু একই নামে এতগুলো যে দোকান গড়ে উঠেছে আপনারা এর বিরুদ্ধে প্রশাসনের কাছে কোনো নালিশ বা আপত্তি জানাচ্ছেন না কেন?’

‘কী দরকার? তাদের ব্যবসা তারা করুক, আমাদের তো কোনো ক্ষতি হচ্ছে না।’

এই কথার মধ্যে কোথায় যেন একটু ক্ষোভের আভাস পাওয়া গেল। তাই বললাম, ‘তবু এতগুলো মাতৃভান্ডার না হলে হয়তো আপনাদের বিক্রি আরও বেড়ে যেত…।’

এ কথার উত্তরে অবাক করা কথা বললেন ভদ্রলোক, ‘আমাদের বিক্রি আর বাড়ানোর দরকার নেই। এমনিতেই সামাল দিয়ে উঠতে পারছি না।’

ক্রেতা ও অন্যন্য লোকজনের সঙ্গে কথা বলেও ম্যানেজারের বক্তব্যের সত্যতা পাওয়া গেছে। মাতৃভান্ডারের রসমালাই তিন থেকে চার ঘণ্টার মধ্যে শেষ হয়ে যায়। রসগোল্লা বা অন্যান্য মিষ্টির বিক্রিও প্রায় একই রকম। প্রতি কেজি রসমালাই এত দিন বিক্রি হতো ২৪০ টাকায়, ফেব্রুয়ারির প্রথম দিন থেকে দাম বেড়েছে। এখন প্রতি কেজি ২৬০ টাকা। এ দোকানের নিয়ম হলো তাঁরা পাইকারি বিক্রি করেন না। এমনকি কোনো ক্রেতা চাইলে একসঙ্গে চার বা পাঁচ কেজির বেশি রসমালাই কিনতে পারবেন না।

একই ক্রেতার কাছে বেশি মিষ্টি বিক্রি না করার কারণ জানা গেল, কেউ যাতে এই মাতৃভান্ডারের মিষ্টি নিয়ে অন্য কোথাও বিক্রি বা সরবরাহ করতে না পারেন, তাই এ ব্যবস্থা। প্রতিদিন কী পরিমাণ মিষ্টি উত্পাদন বা বিক্রি হয়—এ কথা জানতে চাইলে বেশ রাগী চেহারায় তাকিয়ে ম্যানেজার বললেন, ‘এটা বলা যাবে না।’ বুঝলাম এটা ‘ট্রেড-সিক্রেট’।

এক মণ দুধ জ্বাল দিয়ে ঘন ক্ষীর তৈরি করে তাতে ছোট ছোট দানার শুকনো মিষ্টি দিয়ে ১৪ কেজি রসমালাই তৈরি করা যায়। দুধের পরিমাণ কমবেশি হলে আসল স্বাদটা আর থাকে না

এক মণ দুধ আর ঘন ক্ষীরের গল্প

একজন প্রবীণ কারিগরের কাছ থেকে রসমালাই তৈরির পদ্ধতি সম্পর্কে জানা গেল। এক মণ দুধ জ্বাল দিয়ে ঘন ক্ষীর তৈরি করে তাতে ছোট ছোট দানার শুকনো মিষ্টি দিয়ে ১৪ কেজি রসমালাই তৈরি করা যায়। দুধের পরিমাণ কমবেশি হলে আসল স্বাদটা আর থাকে না।

এ সম্পর্কে জানতে চেয়েছিলাম কুমিল্লার বিশিষ্ট লেখক ও গবেষক অধ্যাপক শান্তিরঞ্জন ভৌমিকের কাছে। তিনি হেসে বললেন, ‘এই পদ্ধতি তো সবাই জানে। তবু আসল মাতৃভান্ডারের রসমালাইয়ের স্বাদ কেন আলাদা, সেটাই তো রহস্য! এই স্বাদ বলে বোঝানোর মতো না। ঘন ক্ষীরের মধ্য থেকে তুলে ছোট মিষ্টিটি জিবে দিলে যেন আপনাতেই গলে যায় মুখের ভেতর। ক্ষীরটাও অসাধারণ! নকল মাতৃভান্ডারের ক্ষীরের স্বাদ কড়া, কিন্তু এই ক্ষীরটা হালকা মিষ্টি।’

প্রিয় পাঠক, সেই প্রকৃত স্বাদ পেতে হলে আপনাকে কুমিল্লা সিটি করপোরেশন এলাকার ১১ নম্বর ওয়ার্ডের মনোহরপুর যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া ছাড়া আর কোনো পথ বাতলাতে পারছি না।

আর পড়তে পারেন