শনিবার, ২রা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কুসিক কাউন্সিলর প্রার্থীদের মধ্যে ৫৫ জনের শিক্ষা সনদ নেই,মামলায় অভিযুক্ত ৪০ জন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৩, ২০১৭
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের ২৭ ওয়ার্ডে বৈধ ১৮১ সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থীর মধ্যে অনেকেই বিভিন্ন মামলার আসামি। শিক্ষাগত যোগ্যতায় অনেকেই মাধ্যমিক গন্ডি পার হতে পারেনি। ৫৫ জন প্রার্থীর শিক্ষা সনদ নেই। ৪০ জন কাউন্সিলর প্রার্থী বিভিন্ন মামলায় অভিযুক্ত। তাদের মধ্যে ১০ জন বহন করছেন ৩ থেকে ৩১টি করে মামলা। বাকি ৩০ জনের বিরুদ্ধে ১ থেকে ৩টি করে মামলা রয়েছে। বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে একসময় মামলা থাকলেও এখন নেই।

কাউন্সিলর প্রার্থীদের মধ্যে পুলিশের তালিকাভুক্ত আসামিও রয়েছেন বেশ কয়েকজন। তাদের বিরুদ্ধে রয়েছে সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজী, পুলিশের উপর হামলা, জননিরাপত্তা বিঘœকারী আইন, বিশেষ ক্ষমতা আইন, আগ্নেয়াস্ত্র ও বিস্ফোরক, এমনকি নারী নির্যাতনসহ বিভিন্ন অপরাধের অভিযোগে মামলা। প্রার্থীদের হলফনামায় দেয়া তথ্য অনুযায়ী এ হিসেব পাওয়া গেছে। হলফনামার বাইরে স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রার্থীদের কেউ কেউ মাদক ব্যবসা, অস্ত্র ব্যবসা, চোরাকারবারি ও ছিনতাই চক্রের গড ফাদারও বটে।

মামলা ঃ
হলফনামার তথ্য অনুযায়ী জানা গেছে, নগরীর ১ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী কাজী মো. গোলাম কিবরিয়ার বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার, বিস্ফোরক, অস্ত্র, সন্ত্রাসী কর্মকান্ডসহ বিভিন্ন অভিযোগ ২২টি মামলা হয়। তার মধ্যে ৩টিতে তিনি খালাস হন। এখনো তার বিরুদ্ধে ১৯টি মামলা চলমান রয়েছে। তিনি নগরীর বিষ্ণুপুর মুন্সেফ কোয়ারর্টার এলাকার কাজী আবুল বাশারের ছেলে। অপর কাউন্সিলর প্রার্থী জিয়া উদ্দিন আহম্মেদ চৌধুরীর বিরুদ্ধে মামলা ছিল ১টি। ওই মামলায় তিনি খালাস হন। তিনি বিষ্ণুপুর মুন্সেফ কোয়ার্টারের রফিকুল ইসলামের ছেলে।

২ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিল প্রার্থী মো. বিল্লাল বিরুদ্ধে রয়েছে সর্বাধিক ৩১ টি মামলা। আসানগরীর ছোটরা এলাকার জংলিবিবি মসজিদ রোডের বাসিন্দা বসু মিয়ার ছেলে তিনি। মামলাগুলো দ্রুত বিচার, বিস্ফোরক, সন্ত্রাসী কর্মকান্ড সংশ্লিষ্ট। কুমিল্লা কোতয়ালী থানা পুলিশের তালিকায়ও তার নাম রয়েছে। কাউন্সিলর প্রার্থী মাসুদুর রহমান মাসুদের বিরুদ্ধে মামলা হয় একটি। তা নিষ্পত্তি হয়। তিনি ছোটরা পশ্চিমপাড়ার মৃত আবদুল আজীজের ছেলে।

৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী ও সাবেক কাউন্সিলর সরকার মাহমুদ জাভেদ ১৪টি মামলায় জড়িয়েছিলেন। এখন তার বিরুদ্ধে কোন মামলা নেই। দ্রুত বিচারসহ নানা অভিযোগে এ মামলাগুলো ছিল তার বিরুদ্ধে। তিনি নগরীর রেসকোর্স এলাকার সরকার আবদুর রউফের ছেলে। কাউন্সিলর প্রার্থী আশরাফুজ্জামান পিয়ালের বিরুদ্ধে একটি মামলা বিচারাধীন রয়েছে। তিনি রেসকোর্স এলাকার আবদুস ছাত্তারের ছেলে। কাউন্সিলর প্রার্থী এনামুল হক ভূইয়ার বিরুদ্ধে একটি মামলা ছিল। ওই মামলায় তিনি খালাস হন। তিনি কালিয়াজুরী এলাকার মনাজাত উদ্দিনের ছেলে।

৪ নং ওয়ার্ডে কাউন্সির প্রার্থী মো. মোসলেম উদ্দিনের বিরুদ্ধে ১টি মামলা হয়। তিনি কাপ্তানবাজার এলাকার মৃত রেয়াছত আলীর ছেলে।
৫ নং ওয়ার্ডে কাউন্সির প্রার্থী এ কে সামাদ সাগরের বিরুদ্ধে একটি মামলা হয়। ওই মামলা থেকে তিনি খালাস পান। তিনি গাংচর এলাকার সিরাজুল ইসলামের ছেলে।
৭ নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী আতিকুর রহমান পিন্টুর বিরুদ্ধে মামলা হয় ৪টি। এর মধ্যে ২টিতে তাকে খালাস দেয়া হয়েছে। চলমান রয়েছে ২টি। তিনি অশোকতলা এলাকার মৃত ফিরোজ খানের ছেলে। কাউন্সিল প্রার্থী কাজী বেলাল আহমেদর খানের বিরুদ্ধে মামলা রয়েছে ২টি। তিনি গোবিন্দপুর এলাকার কাজী সৈয়দ আহমেদ খানের ছেলে। কাউন্সিলর প্রার্থী মোজাম্মেল আলমের বিরুদ্ধে মামলা ছিল ৪টি। সব কটিতেই তিনি খালাস হন। তিনি গোবিন্দপুর এলাকার সুলতান আহমেদ খানের ছেলে।
৮ নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী মোহাম্মদ এমরান হোসেনের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক, বিশেষ ক্ষমতা আইন, নারী নির্যাতনসহ ১৫টি বিভিন্ন মামলায় রয়েছে। তিনি ওই ওয়ার্ডের ২য় কান্দিরপাড় পলাশ বাড়ির মৃত মো. হোসেনের ছেলে। কাউন্সিল প্রার্থী নুরুন নবীর বিরুদ্ধে মামলা হয় ৩টি। সবকটিতেই খালাস হন। তিনি রামমাল রোড ২য় কান্দিরপাড়ের সুলতান আহমেদের ছেলে। কাউন্সিলর প্রার্থী বিধান চন্দের বিরুদ্ধে ১টি মালা চলমান রয়েছে। তিনি নগরীর ২য় কান্দিরপাড়ের অমিত চন্দ দাসের ছেলে।
১১ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী হাবিবুর আল আমিন সাদীর বিরুদ্ধে মামলা ছিল ২টি। দুইটি মামলা থেকেই তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়। তিনি নগরীর মুন্সেফ বাড়ীর এলাকার এবিএম সালেহীনের ছেলে।
১২ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী কাজী জিয়াউল হকের বিরুদ্ধে মামলা হয় ১টি। তাতে তিনি খালাস হন। তিনি বজ্রপুরের কাজী নূরুল হকের ছেলে।
১৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিল প্রার্থী মো. শাখাওয়াত হোসেনের বিরুদ্ধে মামলা হয় ২টি। এর মধ্যে ১টি চলমান ও ১টি থেকে তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়। তিনি দক্ষিণ চর্থার আমীর আলী খানের ছেলে।
১৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী এম হুমায়ুন কবীরের বিরুদ্ধে মামলা হয় ১টি। তিনি ২য় মুরাদপুরের আবদুস সালামের ছেলে।
১৬ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মো জাহাঙ্গীর হোসেন বাবুলের বিরুদ্ধে মামলা হয় ১টি। তিনি সংরাইশ এলাকার জামাল হোসেনের ছেলে।
১৭ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মো. সোহেলের বিরুদ্ধে মামলা হয় ৫টি। বিভিন্ন ধারায় ওই সব মামলায় তাকে অব্যাহতি ও খালাস দেয়া হয়। তিনি পাথুরিয়াপাড়া এলাকার মৃত শাহজাহানের ছেলেন। কাউন্সিলর প্রার্থী দেলোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে ৭টি মামলা রয়েছে। তিনি নগরীর ২য় মুরাদপুর এলাকার মৃত নূর মিয়ার ছেলে।
১৮ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আফসান মিয়ার বিরুদ্ধে মামলা হয় একটি। তিনি নগরীর নূরপুর এলাকার মৃত আবদুর রশিদের ছেলে।
১৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী মোঃ জাকির হোসেনের বিরুদ্ধে ৮টি মামলা রয়েছে। সবকটি মামলাই চলমান আছে। বিশেষ ক্ষমতা আইন, সন্ত্রাস, বিস্ফোরকসহ নানা অভিযোগে এ মামলাগুলো দায়ের করা হয়েছে। তিনি নগরীর নেউড়া উত্তর পাড়ার সৈয়দপুরের আবদুল মান্নানের ছেলে।
২০ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আক্তার হোসেনের বিরুদ্ধে ২টি মামলা হয়। তিনি মধ্যম আশ্রাপুর এলাকার মো. আলীর ছেলে। দুইটি মামলায়ই তাকে খালাস দেয়া হয়।
২২ নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী আবদুল কাদের মজুমদার বুলুর বিরুদ্ধে ১টি মামলা হয়। তা থেকে তিনি খালাসও হন। তিনি শ্রীভল্লবপুরের মৃত. ছালামত উল্লাহ মজুমদারের ছেলে। একই ওয়ার্ডের কাউন্সিল প্রার্থী হাবিবুর রহমানের বিরুদ্ধে ১টি মামলা হয়। তিনি খালাস পেয়েছেন। তিনি দৈয়ারা গ্রামের মফিজুল ইরসামের ছেলে।
২৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মাহবুব আলমের বিরুদ্ধে মামলা হয় ৩ টি। বিশেষ ক্ষমতা আইন, সন্ত্রাসী কর্মকান্ডসহ বিভিন্ন অভিযোগে মামলাগুলো দায়ের করা হয়। তিনি বাতাবাড়িয়ার মৃত মো. ছাদেক আহাম্মদের ছেলে।
২৪ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মো. আবদুল কাদের জিলানীর বিরুদ্ধে মামলাা হয় ১টি। তিনি সালমানপুরের আবদুল জলিলের ছেলে। কাউন্সিলর প্রার্থী এম ডি আরীফ বকশীর বিরুদ্ধে মামলা হয় ১টি। তিনি রামপুরের মোহাম্মদ আলী বখশীর ছেলে।
২৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী জিল্লুর রহমান চৌধুরীর বিরুদ্ধে মামলা হয় ১টি । তিনি চৌয়ারার মো. মোখলেছর রহমানের ছেলে। কাউন্সিলর প্রার্থী খলিলুর রহমান সুমনের বিরুদ্ধেও মামলা হয় ১টি। তিনি চৌয়ারার সেকান্দর আলীর ছেলে।
২৬ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আবদুস ছাত্তারের বিরুদ্ধে মামলা রয়েছে ৫টি। সন্ত্রাস, দ্রুত বিচার আইনসহ বিভিন্ন অভিযোগে এ মামলাগুলো হয় তার বিরুদ্ধে। তিনি গোয়ালমথন এলাকার মন্তু মিয়ার ছেলে। কাউন্সিলর প্রার্থী কফিল উদ্দিন মজুমদারে বিরুদ্ধে মামলা হয় ১টি। তিনি গোয়াল মথন এলাকার রফিকুল ইসলামের ছেলে। কাউন্সিলর প্রার্থী গোলাম সারোয়ার কাউসারের বিরুদ্ধে মামলা হয় ১টি। তিনি ভল্লবপুরে আবদুর রউফের ছেলে।
২৭ নং ওয়ার্ডের কাউন্সির প্রার্থী মো. আবুল হাসানের বিরুদ্ধে মামলা হয় ৩টি। তিনি রায়পুর এলাকার আনু মিয়ার ছেলে।
শিক্ষা সনদ নেই যাদেরঃ
২৭টি সাধারণ ওয়ার্ড ও ৯টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে মোট ২২৩ জন কাউন্সিলর প্রার্থীর মধ্যে ৫৫ জনের কোন প্রকার শিক্ষা সনদ নেই। তাদের মধ্যে সাধারণ ২৭টি ওয়ার্ডে ১৮১ জন প্রার্থীর মধ্যে ৪১ জন এবং সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডের ৯টিতে ৪২ জন প্রার্থীর মধ্যে ১২ জনের কোন প্রকার শিক্ষা সনদ নেই। হলফনামা সূত্রে জানা গেছে,
১ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন অষ্টম শ্রেনি পাশ। ২ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আবদুল মুন্নাফ অষ্টম শ্রেণি পাশ, নাহিদা আক্তার স্বশিক্ষিত এবং মাসুদুর রহমান মাসুদ অষ্টম শ্রেণি পাশ।
মো. বিল্লাল মিয়া স্বশিক্ষিত। মোশাররফ হোসেন অষ্টম শ্রেনি পাশ।
৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী এনামুল হক ভূইয়া ও মো.মীর হোসেন স্বশিক্ষিত, মো. শাহ জাহান ও
মো. স্বপন আলী অষ্টম শ্রেনি পাশ।
৪ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী নাছির উদ্দিন স্বশিক্ষিত। মো. মোসলেম মিয়া অষ্টম শ্রেণি।
৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী কোহিনুর আকতার কাকলী ও সৈয়দ আবীর হোসেন স্বশিক্ষিত।
৭ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মো. শাহ আলম খান স্বশিক্ষিত।
১২ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী সফিউল আজম রতন স্বাক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন।
১৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মো. কাউছার মাহমুদ অষ্টম শ্রেণি পাশ।
১৪ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী তাজুল ইসলাম খান স্বশিক্ষিত।
১৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী মিজানুল হক অষ্টম শ্রেণি পাশ।
১৬ নং ওয়ার্ডের গোলাম রাব্বানী ফটিক ও মো. আমীর হোসেন স্বাক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন। কাউন্সিলর প্রার্থী মো. জাহাঙ্গীর আলম স্বশিক্ষিত।
১৭ নং ওয়ার্ডের দেলোয়ার হোসেন স্বাক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন ও মো. সোহেল স্বাক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন।
১৮ নং ওয়ার্ডের আফসান মিয়া অক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন। একই ওয়ার্ডের রাজু আহমেদ স্বশিক্ষিত।
২১ নং ওয়ার্ডের আক্তার হোসেন অষ্টম শ্রেণি পাশ। গোলাম জিলানী নিজেকে স্বশিক্ষিত হিসেবে উল্লেখ করেছেন। মো. মহসীন আহম্মেদ স্বাক্ষরজ্ঞান সম্পন্ন। মো. মিন্টু অষ্টম শ্রেণি পাশ।
২২ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী বিজয় রতন দেবনাথ অষ্টম শ্রেণি পাশ। মো. হানিফ মিয়া স্বশিক্ষিত।
মোঃ হাবিবুর রহমান অষ্টম শ্রেনি পাশ।
২৩ নং ওয়ার্ডের আলমগীর হোসেন অষ্টম শ্রেণি পাশ ও মো. জয়নাল হোসেন স্বাক্ষরজ্ঞান।
২৪ নং ওয়ার্ডের কউন্সিলর প্রার্থী ইদিস মিয়া অষ্টম শ্রেণি পাশ। তিনি সালমানপুরের মৃত লাল মিয়ার ছেলে। মো. ফজল খান, মো. জাহাঙ্গীর হোসেন ও আবদুস ছাত্তার অষ্টম শ্রেনি পাশ। মো. কফিল উদ্দিন মজুমদার স্বশিক্ষত।
২৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো শহিদুল ইসলাম অষ্টম শ্রেণি।
সংরক্ষিত নারী আসনের ১নং ওয়ার্ডের ঝরনা আক্তার ও নাসিমা জামান অষ্টম শ্রেণি।
২ নং ওয়ার্ডের শাহীন আক্তার ৭ম শ্রেণি, শামসুন্নাহার অষ্টম শ্রেণি, হাসিনা আক্তার অষ্টম শ্রেণি।
৩ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী নিলুফা আক্তার স্বশিক্ষিত।
৪ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিল প্রার্থী জোৎস্না আক্তার স্বশিক্ষিত।
৫ নং ওয়ার্ডের নূরজাহার আলম পুতুল ও পারভীন আক্তার অষ্টম শ্রেনি।
৬ নং ওয়ার্ডের হাসনা বেগম অষ্টম শ্রেণি পাশ।
৭ নং ওয়ার্ডের মোসাম্মদ পারভীন আক্তার স্বাক্ষরজ্ঞান।
৮ নং ওয়ার্ডের খোদেজা বেগম ও ফারহানা পারভীন অষ্টম শ্রেণি পাশ।
৯ নং ওয়ার্ডের জোলেখা বেগম অষ্টম শ্রেণি ও রুবী আক্তার অষ্টম শ্রেণি।

আর পড়তে পারেন