শনিবার, ২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ক্ষতিকর ঔষধে মোটাতাজাকৃত পশুতে সয়লাব কুমিল্লার কোরবানি হাট

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ২৭, ২০১৭
news-image

স্টাফ রিপোর্টারঃ
আগামী ২ সেপ্টেম্বর পবিত্র ঈদ উল আযহা অর্থাৎ কোরবানির ঈদ। সে উপলক্ষে জেলাজুড়ে বসেছে কোরবানির পশুর হাট। দেশি গরুর পাশাপাশি, ভারতীয় গরু উঠেছে এসব বাজারগুলোতে। এছাড়া বিভিন্ন খামারে ক্ষতিকারক ঔষধ দ্বারা মোটাতাজাকৃত পশু উঠানো হয়েছে বাজারগুলোতে,যেগুলোর মাংস মানবদেহের জন ক্ষতিকর।
কোরবানির ঈদ সামনে রেখে ভালো দামের আশায় একশ্রেণীর অসাধু পশু পালনকারী গরু মোটাতাজাকরণে ব্যবহার করেছেন বিভিন্ন ধরনের ক্ষতিকর ওষুধ। অধিক মুনাফার লোভে তারা গরুতে ঢুকিয়ে দিয়েছেন বিষ। এসব গরুর মাংস খেলে কিডনি, হৃৎপিন্ড, পাকস্থলীতে জটিল রোগ হতে পারে। কার্যক্ষমতা নষ্ট হয়ে যেতে পারে মানবদেহের নানা গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গের।
বিভিন্ন সূত্রমতে, রোগাক্রান্ত কিংবা কম ওজনের গরু, ছাগল ও মহিষের দ্রুত ওজন বাড়াতে ‘পাম’ বড়ি অন্য খাবারের সাথে খাওয়ানো হয়েছে পশুকে। এছাড়া স্টেরয়েড, প্রি-ডেক্সানল, ডেক্সামেথাসন, বেটামেথাসন, পেরিঅ্যাকটিন, প্যারাডেক্সা ও ওরাডেক্সান বড়ি গরুকে খাওয়ানো হয়। এতে অল্প দিনে ফুলে-ফেঁপে উঠেছে কোরবানির হাটে তোলা পশুগুলো।
কুমিল্লা জেলাজুড়ে রয়েছে অসংখ্য গরু খামার। যেগুলোর বেশিরভাগগুলোতেই এ পদ্ধতিতে মোটাতাজা করা হয়েছে।
জানা যায়, প্রতি বছর কিছু খামার ব্যবসায়ি ঈদুল ফিতরের পর তুলনামূলক কম দামে প্রাপ্তবয়স্ক রোগা-চিকন গরু কেনেন। তারপর গরুকে স্টেরয়েড ও ডেক্সামেথাসন গ্রুপের ওষুধ খাওয়ান। আর এতেই সর্বোচ্চ দেড় মাসের মধ্যে গরু হয়ে ওঠে মোটাতাজা ও আকর্ষণীয়। দুই মাস আগে যে গরু ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকায় কেনেন, কোরবানির ঈদের বাজারে সেসব গরু ৭০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকায় বিক্রি করা যায়।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক খামারি জানান, গো খাদ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় এখন সারা বছর গরু পালন করে তেমন লাভ হয় না। এ কারণে অনেক খামারি কোরবানি ঈদের দিকে চেয়ে থাকেন। ঈদ সামনে ঘনিয়ে এলেই শুরু হয় গরু মোটাতাজাকরণের প্রতিযোগিতা। এজন্য বিভিন্ন ইনজেকশন প্রয়োগ, ওষুধ ও ইউরিয়া সার খাওয়ানো হয় গরুকে। আর এতেই অল্প সময়ের মধ্যে ফুলে-ফেঁপে ওঠে গরু।
সূত্রমতে, বাজারে পাম বড়ির নামে হলুদ ও সাদা রঙের এক ধরনের খোলা বড়ি কিনতে পাওয়া যায়। পশু ব্যবসায়ী ও পশু পালনকারীরা এগুলো গরুকে খাওয়াচ্ছেন। এর মধ্যে ভারতীয় পারকোটিন, থাইল্যান্ডের মাইকোটিন ও ডেক্সাউইন এবং দেশি ডেক্সামেথান জাতীয় স্টেরয়েড, ডেকাসন ও ডি-কর্ট পাম বড়ির তালিকায় রয়েছে। ব্যবসায়ীরা জানান, ১০টির এক পাতা দেশি বড়ির দাম ১০ থেকে ১৫ টাকা। বিদেশি খোলা বড়ির দাম সস্তা হওয়ায় সেগুলো বেশিরভাগ খাওয়ানো হয়। প্রতি বছর কোরবানির আগে এসব ওষুধের চাহিদা বাড়ে।
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পাম বড়ি খাওয়ানোয় এক মাসের মধ্যে পশুর শরীর মোটা দেখাবে ঠিকই, কিন্তু বাস্তবে ওই পরিমাণ মাংস বা ওজন বাড়বে না। এসব বড়ি খাওয়ানোয় পশুর মাংস স্বাদহীন হয় এবং রঙ পরিবর্তন হয়। এসব গরুর মাংস খাওয়ার ফলে কিডনি, লিভার, হৃৎপিন্ডসহ মানব শরীরের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গের কার্যক্ষমতা নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে জানান চিকিৎসা বিশেষজ্ঞরা। এছাড়া এতে বিদ্যমান উচ্চ রক্তচাপ ও ডায়াবেটিস রোগীদের রক্তে সুগারের মাত্রা বেড়ে যায়। এছাড়া স্টেরয়েড জাতীয় ওষুধ মানব শরীরে বেশি মাত্রায় জমা হলে মানুষের বিপাকক্রিয়ায়ও প্রভাব পড়ে এবং মানুষও মোটাতাজা হতে থাকে বলে জানান চিকিৎসকরা।
সচেতন মানুষরা মনে করেন, ওষুধ খাইয়ে মোটাতাজা করা গরুর মাংস খেলে মানুষের মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকি রয়েছে। আশঙ্কা রয়েছে কয়েক ধরনের দুরারোগ্য ও কঠিন রোগে আক্রান্ত হওয়ারও। তাই অন্তত কোরবানির পশুহাটে ওষুধ খাইয়ে মোটাতাজা করা পশু চিহ্নিত করে হাট থেকে সেসব নিষিদ্ধ করা প্রয়োজন।

আর পড়তে পারেন