শনিবার, ১৩ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

গ্রন্থ আলোচনা: যুদ্ধদিনের ভয়াবহতার জীবন্তচিত্র “অগ্নিপ্রভাত”

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ১৭, ২০২০
news-image

 

তারেক উল হাসান:
লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত এ স্বাধীনতা। কত নাম না জানা মানুষ যে এ স্বাধীনতার দাম চুকিয়েছেন তা বলাই বাহুল্য। তাইতো প্রখ্যাত গীতিকার ও সুরকার আব্দুল লতিফ লিখেছেন “দাম দিয়ে কিনেছি বাংলা, কারো দামে পাওয়া নয়”। বাংলার অলিতে গলিতে এমন হাজারো ত্যাগের প্রমাণ পাওয়া যায়। সাহিত্যিকরা সেসব অজানা সত্য বিভিন্ন সময় তুলে ধরেছেন তাদের লেখার মাধ্যমে।

বাংলাসাহিত্যে অসংখ্য লেখকই কালেকালে মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে সাহিত্য রচনা করেছেন, করছেন। মুক্তিযুদ্ধের মতো এত বিশাল একটি ঘটনার ছোট একটি অংশ দিয়েই উপন্যাসের মতো বড় পরিসরে কাজ করা যায়। কারণ এর আবেদন কখনোই কমবে না, বরং বাড়বেই।

প্রতিভাবান কথাসাহিত্যিক সাঈদ আজাদ তার প্রথম উপন্যাসেই তুলে এনেছেন মুক্তিযুদ্ধের একটি খণ্ডচিত্র, যা তাঁর উপন্যাস অগ্নিপ্রভাতকে এনে দিয়েছে “শব্দঘর-অন্যপ্রকাশ-এর তরুণ কথাশিল্পী অন্বেষণ কার্যক্রম ২০১৮” এর নির্বাচিত প্রথম সেরা উপন্যাসের মর্যাদা। প্রথম উপন্যাসেই বাজিমাত করার কারণতো অবশ্যই আছে, আর সেটা হলো লেখকের নির্মেদ লিখা এবং কাহিনীর ঝরঝরে বর্ণনা। আঞ্চলিক ভাষার ব্যবহারেও লেখক বেশ মুন্সিয়ানার পরিচয় দিয়েছেন।

অগ্নিপ্রভাত উপন্যাসটির ভূমিকা লিখেছেন প্রাবন্ধিক ও গবেষক বিশ্বজিৎ ঘোষ, এবং জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক হরিশংকর জলদাস। তাঁরা দুজনেই বেশ ভূয়সী প্রশংসা করেছেন অগ্নিপ্রভাতের।

ছাত্র হোস্টেলের গার্ডরুমে শুয়ে হাবিলের স্ত্রী মরিয়মকে স্বপ্ন দেখার মধ্য দিয়ে সুন্দর শুরু হয় কাহিনীর। ধীরেধীরে গল্পটি এগিয়ে যায় ২৫ শে মার্চের কালরাত্রির ভয়াবহতার দিকে। এখানে লক্ষণীয় যে সাঈদ আজাদ কালরাত্রির বর্ণনায় বেশ নৈপুণ্যতা দেখিয়েছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র হোস্টেলের নৃশংসতার যে চিত্র তিনি তুলে ধরেছেন তা আদতে বাস্তবতাই মনে হবে। সম্পূর্ণ উপন্যাসে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর নারকীয় অত্যাচার, হত্যার প্রতিটি খণ্ডচিত্রই পাঠককে নাড়া দিতে বাধ্য। বইটি পড়ার সময় আপনার হয়ত মনে হতেই পারে আপনি স্বয়ং সেখানে উপস্থিত বা লেখক সেখানে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে হয়ত আপনাকে পরিস্থিতির বর্ণনা করে চলছেন।

নারীদের উপর যে অকথ্য অত্যাচারের কথা আমরা পড়েছি, বা শুনেছি তার প্রত্যেকটাই ছিলো নৃশংসতায় পরিপূর্ণ। কিছুকিছু বইতে ধর্ষণের বর্ণনাও করা থাকে, বা নির্যাতনের পুঙ্খানুপুঙ্খ বর্ণনা। কিছুকিছু বর্ণনা এতটাই বিভৎস যে সামনে পড়তেও ভয় লাগে। এক্ষেত্রে সাঈদ আজাদ সুনিপুণ ভাবে বিভৎসতা এড়িয়ে গেছেন বলেই মনে হয়, যা পাঠককে কিছুটা হলেও মানুষিক শান্তি দিয়েছে। নারী নির্যাতনের কথায় তিনি ততটুকুই বলেছেন যতটুকুতে পাঠক বুঝতে পারছে এর ভয়াবহতা কতটা হতে পারে। প্রবান্ধিক ও গবেষক বিশ্বজিৎ ঘোষ লেখকের এই পরিমিতবোধের যথেষ্টই প্রশংসা করেছেন।

হাবিল, মরিয়ম ও তার মা ভাইয়ের থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় ২৫ মার্চ রাতেই। মরিয়ম তখন ছিলো অন্তঃসত্ত্বা। এই দূর্যোগে সে, তার শাশুড়ি ও দেবরের সাথে গ্রামে ফিরে যাওয়াই শ্রেয় মনে করেছে। কিন্তু যাত্রাপথে মিলিটারির হাতে নিহত হয় মরিয়মের শাশুড়ি ও তার দেবর নাবিলকে ধরে নিয়ে যায় পাকিস্তানি মিলিটারি।

সন্তানকে পৃথিবীর মুখ দেখাতে একাই যাত্রা শুরু করে মরিয়ম। চোখের সামনে শাশুড়ি মৃত্যুতে কিছুটা অপ্রকৃতস্থ মরিয়ম আশ্রয় পায় এক বৃদ্ধ বাবার। কিন্তু সেখানেও বেশীদিন থাকে না সে। গর্ভের সন্তানকে রক্ষা করতে এগিয়ে যায় সে, একাকী এগুতে থাকে গ্রামের দিকে।

স্বাধীন বাংলাদেশের জন্মযন্ত্রণাকে মরিয়মেী গর্ভযন্ত্রণার সাথে রূপকার্থে তুলনা করে কথাসাহিত্যিক ‘সাঈদ আজাদ’ এ উপন্যাসের পটভূমি নির্মাণ করেছেন। সন্তানকে পৃথিবীর বুকে ভূমিষ্ঠ করতে একজন মা-কে যেমন নিদারুণ কষ্ট সহ্য করতে হয়, ত্যাগ স্বীকার করতে হয় তেমনি নিজের মাটিকে পৃথিবীর বুকে স্বাধীন হিসেবে স্বীকৃতি এনে দিতে নিজের জীবন দিতেও কেউ কুণ্ঠাবোধ করে না।

সম্পূর্ণ উপন্যাসটিকে লেখক নয়টি ভাগে ভাগ করেছেন। এই নয়টি ভাগ দীর্ঘ নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধকেই নির্দেশ করে। প্রতিটি ভাগেই হত্যা, ধর্ষণ, লুণ্ঠন, অত্যাচার, নিপীড়নের দৃশ্য উঠে এসেছে। উল্লেখ্য, এ উপন্যাসে লেখক মুক্তিযুদ্ধ বা সরাসরি যুদ্ধের দৃশ্য বর্ণনা করেন নি। বরং যুদ্ধের ফলে সাধারণ মানুষের ত্যাগ, তাদের প্রতি হওয়া অত্যাচার অবিচারের দৃশ্যই তুলে ধরেছেন। এ প্রসঙ্গে প্রখ্যাত কথা সাহিত্যিক হরিশংকর জলদাস বলেন–

“অগ্নিপ্রভাতের বিষয়বস্তু ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ। মুক্তিযুদ্ধের রণাঙ্গন তেমন করে স্থান পায় নি উপন্যাসটিতে। উপন্যাসটির বিপুল অংশজুড়ে যুদ্ধলাঞ্ছিত আর্তনাদমগ্ন উন্মুল মানুষগুলোর দৈনন্দিন চিত্র। উপন্যাসটি পড়তে পড়তে আনার মনে হয়েছেথএ যেনো ঢাকা শহরের ২৫ মার্চের কালরাত্রির হত্যাচিত্রের যথার্থ এক দলিল।’’

উপন্যাসটির পরিসমাপ্তি ঘটে মরিয়মের সন্তান প্রসবের মাধ্যমে। দেশের বিজয়ের মুহুর্তটিকে লেখক হয়ত মরিয়মের বিজয়ের মাধ্যমেই প্রকাশ করেছেন। বাংলাদেশকে হয়ত তিনি মরিয়মের সদ্য ভূমিষ্ঠ সন্তানের সাথেই তুলনা করেছেন। উপন্যাসের শেষ অংশে তিনি লিখেছেন–

“সবাই অপেক্ষা করতে থাকে একটা নতুন শিশুর চিৎকার শোনার জন্য। সবাই অপেক্ষা করতে থাকে একটা নতুন সূর্যের। সবাই অপেক্ষা করতে থাকে, কখন সব কুয়াশা সরে গিয়ে আঁধার ভেদ করে সবুজ ধানক্ষেতের ওপার থেকে উঠবে লাল একটা সূর্য।’’

বই: অগ্নিপ্রভাত
লেখক: সাঈদ আজাদ
প্রকাশনী: অন্যপ্রকাশ
মুদ্রিত মূল্য: ৪৫০ টাকা
প্রকাশকাল: ২০১৯

 

লেখক: তারেক উল হাসান
এডমিন, কুমিল্লার বইপোকা

আর পড়তে পারেন