বৃহস্পতিবার, ২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

চান্দিনায় সুদ দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় ইলেকট্রিক মিস্ত্রীকে অপহরণের অভিযোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ৭, ২০২৪
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টার:
কুমিল্লার চান্দিনার বাড়েরা ইউনিয়নে সুদখোরদের সুদ দিতে অস্বীকার করায় প্রথমে মারধর ও পরে অপহরনের শিকার হয়েছেন ইলেকট্রিক মিস্ত্রি মো: আব্দুল্লাহ আল মামুন (৪০)।এমনই অভিযোগ করেছেন তার পরিবার। এমনকি মামুনের পিতা কৃষক মো: ফজর আলীও প্রাননাশের ভয়ে আত্মগোপনে আছেন।

২ মে দুপুর থেকে ইলেকট্রিক মিস্ত্রি মো: আব্দুল্লাহ আল মামুনকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। এর আগে একই দিন সকালে কুমিল্লা আদালতের বিজ্ঞ আইনজীবীর চেম্বারে এসে মামুনকে হুমকি দিয়ে যায় চান্দিনার বাড়েরা ইউনিয়নের আব্দুল মতিনসহ আরো কয়েকজন।

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, নিখোঁজ আব্দুল্লাহ আল মামুনের ভাই কামরুল হাসান সুদ ব্যবসায়ি আব্দুল কাদেরের কাছ থেকে ১ বছরের মধ্যে ফেরত দেয়ার শর্তে বিগত ২০২১ সালের ১৪ ডিসেম্বর ১ লাখ টাকা হাওলাত নেন। এই টাকা যথাসময়ে ফেরতও দেন। কিন্তু সুদের টাকা দেননি। চলতি বছরের ২৬ মার্চ সকালে বাড়েরা বাজারে মামুন ও তার ভাই কামরুল হাসানকে পথরোধ করে সুদ ব্যবসায়ি আব্দুল কাদের ও তার লোকজন। এ সময় মামুন ও কামরুলের কাছে সুদের টাকা দাবি করে। তারা সুদ দিবে না বললে আব্দুল কাদেরকে তাদের মারধর, বিভিন্ন মিথ্যে মামলায় ফাসাঁনো ও বাড়ি মাদক রেখে গ্রেফতার করানোর হুমকি প্রদান করে।এ ঘটনায় ২৫ এপ্রিল মামুন বাদি হয়ে কুমিল্লার নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। মামলার আসামিরা হলেন চান্দিনার বাড়েরা ইউনিয়নের শরিফুল ইসলাম (৫০), ওসমান গনি (৪০), আব্দুল কাদের (৩৮), আলী আহাম্মদ (৬৫), আবুল বাশার ওরফে বাচ্চু মিয়া(৪৫), মোবারক হোসেন (৫০), মহসিন মিয়া (৪৫), জাহাঙ্গীর মিয়া (৪৫), শাহজাহান মিয়া (৪০) ও সক্কু মিয়া (৪০)। এ মামলা দায়েরের পর ২৯ এপ্রিল দুপুরে আব্দুল কাদের ১৫/১৬ জন নিয়ে মামুনের বাসায় এসে মামুন ও তার ভাই কামরুল বাঁশ আর লাঠি দিয়ে বেধড়ক পিটিয়ে আহত করে। এ সময় তারা মামুনের গলা চিপে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা করে। পরে স্থানীয় লোকজন এসে দুই ভাইকে হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দেন। এ ঘটনায় চান্দিনা থানা পুলিশের কাছে মামলা করতে গেলে থানা পুলিশ মামলা নেননি। এ ঘটনায় ৩০ এপ্রিল কুমিল্লার বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ৭ নং আমলী আদালতে আব্দুল কাদের ও আব্দুল মতিনসহ আরো ১৬ বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন মামুন। এই মামলা দায়েরের পর ২ মে সকালে কুমিল্লা আদালতের বিজ্ঞ আইনজীবির চেম্বারে এসে মামুনকে হুমকি দিয়ে যায় চান্দিনার বাড়েরা ইউনিয়নের আব্দুল মতিনসহ আরো কয়েকজন। পরে দুপুর থেকে মামুনকে আর পাওয়া যায়নি। ওই রাত থেকে মামুনের পিতা প্রাণের ভয়ে আত্মগোপনে আছেন।

মামুনের পরিবার জানান, সুদখোররা মামুনকে অপহরণ করেছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, মামলার আসামিরা স্থানীয় এমপি ডা. প্রাণ গোপালের লোক পরিচয় দিয়ে অপকর্ম করছে। মানুষকে ভয়-ভীতি দেখিয়ে কাজ করছে। যদিও এমপি প্রাণ গোপাল এবিষয়টি অবহিত নয় ।

চান্দিনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহাম্মেদ সনজুর মোর্শেদ জানান, আমার কাছে কেউ কোন অভিযোগ নিয়ে আসেনি।

আর পড়তে পারেন