বুধবার, ২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

চান্দিনায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হোম কোয়ারেন্টাইনে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ২, ২০২০
news-image

 

শরীফুল ইসলাম,চান্দিনা:

কুমিল্লার চান্দিনায় নতুন করে করোনা (কোভিড-১৯) পজেটিভ হয়েছেন উপজেলা পরিষদ এর একজন কর্মচারী পুরুষ (৫২) সহ আরও ২ জন। অপর ব্যক্তি মহারং গ্রামের বাসিন্দা পুরুষ (১০০)। শনিবার দুপুরে (২ মে) আইইডিসিআর থেকে ওই ২ জনের করোনা পরীক্ষার ফলাফলে পজেটিভ রিপোর্ট আসে। চান্দিনা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আহসানুল হক মিলু বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এই রিপোর্টের পর চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) স্নেহাশীষ দাশ ও তার গাড়ি চালককে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা।

এছাড়া উপজেলার মাইজখার ইউনিয়নের কাশারীখোলা গ্রামের একজন সনাতন ধর্মাবলম্বী পুরুষ (৬০) জ¦র, কাশি ও শ্বাসকষ্ট সহ করোনা উপসর্গ নিয়ে শুক্রবার (১ মে) দুপুরে মারা যান। স্থানীয়রা খবর পেয়ে লাশ অন্তোষ্টিক্রিয়ায় বাঁধা দেয়। পরে চান্দিনা থানার অফিসার ইন-চার্জ মো. আবুল ফয়সল সহ থানা পুলিশ ও উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। মৃত ব্যক্তির নমুনা সংগ্রহের পর তার অন্তোষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন হয়। পরে মৃত ব্যক্তির স্ত্রী ও ছেলের নমুনাও সংগ্রহ করা হয়।

এনিয়ে চান্দিনায় মোট ৯ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে মহারং গ্রামের বাসিন্দা পুরুষ (১০০) করোনা রিপোর্ট আসার এগে বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল) রাতেই মারা যান। শুক্রবার (১ মে) চান্দিনা উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগকে অবহিত না করেই পরিবারের লোকজন তার জানাজা শেষে মোকামবাড়ি কবরস্থানে তাকে দাফন করেন।

এদিকে শনিবার ওই মৃত ব্যক্তির করোনা পজেটিভ রিপোর্ট আসায় এলাকায় বিষয়টি জানাজানি হয়। এতে জানাজায় অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দেয়। মৃত ব্যক্তির মহারং মুন্সী বাড়িস্থিত বাস ভবন লকডাউন করে প্রশাসন।

অপরদিকে চান্দিনা উপজেলা পরিষদ এর একজন কর্মচারী করোনা পজেটিভ হওয়ায় গত কয়েকদিন ধরে প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তা, ত্রাণ বিতরণসহ বিভিন্ন কার্যক্রমে উপজেলায় যাতায়াতকারীরাও আতঙ্কগ্রস্থ হয়ে পড়েছেন।

এ ব্যাপারে চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) স্নেহাশীষ দাশ জানান, ওই কর্মচারী উপজেলা চত্বরের ডরমেটরিতে থাকেন। ফলে ৮ জন কর্মকর্তা-কর্মচারি ও তাদের পরিবারসহ ওই ডরমেটরিটি লকডাউন করা হয়। এদিকে উপজেলা পরিষদের কর্মচারী করোনা পজেটিভ হওয়ায় উপজেলা পরিষদে সর্বসাধারণের আগমণ ও প্রস্থান সীমিত করা হয়েছে।

উপজেলা প্রশাসনের এই শীর্ষ কর্মকর্তা জানান, ওই কর্মচারী আমার অফিসে সার্বক্ষণিক কাজ করতেন। তাই উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আমাকে এবং আমার গাড়ি চালককে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন। আমি ওই পরামর্শ অনুযায়ী উপজেলা চত্বরের ইউএনও বাসভবনে হোম কোয়ারেন্টাইনে আছি।

উল্লেখ্য, এর আগে গত শুক্রবার (১ মে) চান্দিনা উপজেলা সদরের ধানসিঁড়ি আবাসিক এলাকার মা-ছেলে সহ আরও ৩জন করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্ত হন। এদের একজন অবসরপ্রাপ্ত বিজিবি সদস্য। এছাড়া চান্দিনায় গত ১৪ এপ্রিল ১জন প্যাথলজি টেকনেশিয়ান, ১৫ এপ্রিল ১জন এমবিবিএস ডাক্তার, ১জন এক্স-রে টেকনেশিয়ান ও ১জন প্রবাসী করোনা আক্রান্ত হন।

আর পড়তে পারেন