বুধবার, ১৭ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

চান্দিনা থানায় সাবেক চেয়ারম্যানকে ধরে নিয়ে বেধড়ক মারধর; ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত না থেকেও আসামী

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২৪
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লার চান্দিনায় পুলিশের উপর হামলার ঘটনার সাথে জড়িত না থেকেও আসামী হয়েছেন বরকইট ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. আবুল হাসেম! ওই মামলায় তাকে গ্রেফতার করার পর থানায় নিয়ে মারধর করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারী) দুপুরে চান্দিনা বাস স্টেশন সংলগ্ন একটি দোকান থেকে তাকে আটক করে চান্দিনা থানার উপ-পরিদর্শক (এস.আই) নোমান হোসেন। তিনি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা না হয়েও নিজের উপর হামলার ঘটনার তীব্র ক্ষোভে ইউপি চেয়ারম্যানকে নিজেই আটক করেন। পরে তাকে থানায় এনে মারধর করার অভিযোগ করেন ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসেম এর স্ত্রী মাকসুদা আক্তার।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সৈকত দাশ গুপ্ত জানান, এস.আই নোমান হোসেন আসামী হাসেমকে আটক করার পর আমি ঘটনাস্থলে যাই।

সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসেম এর স্ত্রী স্কুল শিক্ষিকা মাকসুদা আক্তার জানান- আমাদের বাড়ি শ্রীমন্তপুর হলেও চান্দিনা সদরের খাঁন বাড়ি এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করি। গত ১০ ফেব্রুয়ারী শনিবার রাত ১০টার দিকে বরকইট ইউনিয়নের শ্রীমন্তপুরে আসামী ধরতে গিয়ে পুলিশের সাথে যে ঘটনা ঘটে ওই ঘটনার সময় আমার স্বামী চান্দিনা পশ্চিম বাজারের হাজী আলী ম্যানশনে সাবেক পৌর মেয়র মফিজুল ইসলাম এর ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে আরও কয়েকজনের সাথে ব্যবসায়ীক আলোচনায় ব্যস্ত ছিলেন। পরদিন জানতে পারি আমার স্বামীর নেতৃত্বে নাকি পুলিশের উপর হামলা হয়েছে। এমন মিথ্যা অভিযোগ এনে ১১ ফেব্রুয়ারী (রবিবার) চান্দিনা থানার উপ-পরিদর্শক (এস.আই) সুজন দত্ত বাদী হয়ে ওই এজাহারে আমার স্বামীকে ২নং আসামী করে মামলা দায়ের করেন।

তিনি আরও জানান- আমার স্বামী কি চোর না ডাকাত? আমার স্বামীকে মিথ্যা ঘটনায় গ্রেফতার করে থানার দ্বিতীয় তলায় এস.আইদের কক্ষে নিয়ে বেধরক পিটিয়েছে এস.আই নোমান হোসেন। আমার স্বামীকে পাটানোর শব্দ এবং চিৎকার শুনেছি আমরা নিজ কানে। এসময় থানায় আগাত অনেক লোকজনও শুনেছে। আমার স্বামী ছাড়াও আরও কয়েকজনকে আসামী করা হয় যারা ঘটনার সময় ছিলেন না।

চেয়ারম্যানের স্ত্রীর এমন অভিযোগের পর চান্দিনায় কর্মরত সংবাদ কর্মীরা থানায় এস.আই নোমান হোসেন এর টেবিলে থাকা এ্যালমুনিয়ামের একটি পাইপও দেখতে পায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন কালীন সময়ে ছায়কোট এলাকায় সিএনজি অটোরিক্সায় অগ্নিকান্ডের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় নির্বাচনের বেশ কিছুদিন পর শ্রীমন্তপুর গ্রামের সুন্দর আলীর ছেলে মৎস্য ব্যবসায়ী এনামূল হককে আটক করে জেল হাজতে পাঠায় চান্দিনা থানার উপ-পরিদর্শক নোমান হোসেন। ৮ ফেব্রুয়ারী বৃহস্পতিবার কুমিল্লা আদালত থেকে জামিন লাভের পর শুক্রবার ৯ ফেব্রুয়ারী মুক্তি পায় এনামূল। একই দিনে পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ড তুলাতলী গ্রামের সোহেল নামের এক সিএনজি চালক চান্দিনা বেলাশহর এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়। পরদিনে শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারী) বিকেলে সড়ক দুর্ঘটনার আহত ব্যক্তিতে শ্রীমন্তপুর চিনার পোল এলাকায় মারামারির ঘটনায় ভিকটিম দেখিয়ে থানায় একটি সাজানো মামলা দায়ের করা হয়। ওই মামলায় সদ্য জামিনপ্রাপ্ত এনামূলকে প্রধান আসামী করা হয়। চান্দিনা থানার উপ-পরিদর্শক নোমান হোসেন একটি চক্রের প্ররোচনায় কোন প্রকার তদন্ত ছাড়াই শনিবার রাতে তাকে গ্রেফতার করতে এনামূল এর বাড়িতে যায়। এসময় এস.আই নোমান এর সোর্স মামুন নামের এক ব্যক্তি এনামূলকে মারধর করে। এসময় এনামূল এর পরিবারের সদস্য ও গ্রামবাসী পুলিশের উপর চড়াও হয়। এ সময় বিক্ষুব্ধ জনতার হাতে আহত হয় এস.আই নোমান ও সোর্স মামুন আহত জন। এ ঘটনায় পুলিশ ২১ জনের নাম উল্লেখসহ ৪০জন অজ্ঞাত ব্যক্তিকে আসামী করা হয়। এসময় পুলিশ এনামূল এর স্ত্রীকে সেলিনা বেগমকে আটক করে থানায় নিয়ে এসে পরদিন পুলিশের উপর হামলার ঘটনার মামলা দায়ের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজাতে পাঠায়।

স্থানীয় বাসিন্দারা তীব্র ক্ষোভ ঝেড়ে বলেন- যে মামলায় এনামূলকে দ্বিতীয়বার পুলিশ আটক করতে এসেছে ওই ধরণের কোন ঘটনাই এলাকায় ঘটেনি। পুলিশ একটি ব্যক্তি ও চক্রের সাথে আঁতাত করে একের পর এক ঘটনা ও মিথ্যা মামলা দায়ের করে চলেছে।

সাবেক পৌর মেয়র মো. মফিজুল ইসলাম ও উপজেলা যুবলীগ সাবেক সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম জানান, পুলিশের উপর হামলার ঘটনার সময় সাবেক চেয়ারম্যান আবুল হাসেমসহ আমরা বাজারে প্রায় দুই ঘন্টা বৈঠক করেছি। এ মামলায় আবুল হাসেমকে আসামী করা অত্যন্ত দুঃখ জনক।

চান্দিনা থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) আহাম্মদ সনজুর মোরশেদ জানান, ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাসেমকে আটক বা থানায় নিয়ে মারধর করার ঘটনা যা-ই হোক আমি সে সময় থানায় ছিলাম না। বিস্তারিত জেনে বলতে পারবো। সড়ক দুর্ঘটনায় আহত ব্যক্তিকে মারামারির ঘটনায় আহত দেখিয়ে মামলা দায়ের করার বিষয় সম্পর্কে তিনি বলেন, যদি মামলা মিথ্যা হয় তাহলে আমরা ফাইনাল রিপোর্ট দিব।

উল্লেখ্য যে, চান্দিনা থানার উপ-পরিদর্শক নোমান হোসেন ও গিয়াস উদ্দিনের বিরুদ্ধে আ’লীগের এক অংশের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার, হয়রানি অব্যাহত রাখার নানা অভিযোগ রয়েছে। চান্দিনা থেকে কুমিল্লা শহরেও ডেকে এনে গ্রেফতার করার অভিযোগ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে।

চেয়ারম্যান আবুল হাসেমকে থানায় নিয়ে মারধর এবং আ’লীগ নেতাকর্মীদের নানা সময় হয়রানি করা সম্পর্কে জানতে চাইলে চান্দিনা থানার উপ-পরিদর্শক (এস.আই) নোমান হোসেন জানান, তাকে আটক করার সময় তদন্তকারি কর্মকর্তাও আমার সাথে ছিল। আমরা কাউকে হয়রানি করিনি। আমাদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ মিথ্যা।

 

আর পড়তে পারেন