শুক্রবার, ১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

জেনে নিন বৃহত্তর কুমিল্লার চার মন্ত্রীর অতীত ও সাবেক কর্মস্থল বিষয়ে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ৬, ২০১৯
news-image

 

ডেক্স রিপোর্টঃ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নতুন সরকারের মন্ত্রীদের তালিকায় বৃহত্তর কুমিল্লার ৪ জন মন্ত্রী রয়েছে। এখন আলোচনা করা যাক তাদের অতীত, সাবেক কর্মস্থল বিষয়ে।

আহম মুস্তফা কামাল (অর্থ):

মোস্তফা কামাল (জন্ম: ১৫ জুন, ১৯৪৭) তিনি বাংলাদেশের প্রখ্যাত রাজনীতিবিদ ক্রিকেট সংগঠক। তিনি বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে কুমিল্লা১০ সংসদীয় আসন থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নির্বাচিত সংসদ সদস্য। পূর্বে তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনা মন্ত্রী হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন। এছাড়াও মোস্তফা কামাল ২০১৪১৫ মেয়াদে আইসিসি সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। তিনি এখন অর্থমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন

পেশায় চার্টার্ড একাউন্ট্যান্ট মোস্তফা কামাল পর্যন্ত তিনবার এমপি হিসেবে জাতীয় সংসদে প্রতিনিধিত্ব করেছেন। ২০১৪ সালে তৃতীয় মেয়াদে বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের সদস্যরূপে কুমিল্লা১০ সংসদীয় আসন থেকে নির্বাচিত হন তিনি। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কুমিল্লা জেলা (দক্ষিণ)-এর আহ্বায়কের দায়িত্বে রয়েছেন। এছাড়াও, তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অর্থ পরিকল্পনা সচিব পদে আসীন

গত ত্রিশ বছর ধরে ক্রিকেটের সাথে সম্পৃক্ত থেকে এর উন্নয়নে বিভিন্ন দায়িত্বে অংশ নিয়েছেন। ১৯৯০এর দশকে লোটাস কামাল পেস বোলিং ক্রিকেট একাডেমী প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৯১ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশের প্রথিতযশা ক্রিকেট ক্লাব আবাহনী লিমিটেডের সাবেক পরিচালক মোস্তফা কামাল ১৯৯১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত ক্লাবগুলোর ক্রিকেট কমিটির সভাপতি ছিলেন। বাংলাদেশের টেস্ট ক্রিকেটে অংশগ্রহণের পূর্বকালীন সময়ে ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লীগে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলোয়াড় অন্তর্ভুক্তিতে নেতৃত্ব দেন তিনি। ২০১২১৩ মৌসুমে ঘরোয়া প্রথমশ্রেণীর ক্রিকেটে সকল খেলোয়াড়কে বিসিবি কেন্দ্রীয় চুক্তির আওতায় নিয়ে আসেন

আইসিসি সভাপতি: আইসিসি সহসভাপতির দায়িত্ব পালনের পূর্বে তিনি সেপ্টেম্বর, ২০০৯ থেকে অক্টোবর, ২০১৩ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। দায়িত্ব পালনকালে ২০১২২০১৪ মেয়াদে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের সহসভাপতি হিসেবে মনোনীত হন। আইসিসি অডিট কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ২০১০ থেকে ২০১২ মেয়াদকালে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল (এসিসি)’ সভাপতি ছিলেন তিনি। ২৬ মে, ২০১৪ তারিখে আইসিসি ১১শ সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। বিদায়ী সভাপতি নিউজিল্যান্ডের অ্যালান আইজ্যাকের স্থলাভিষিক্ত হন মোস্তফা কামাল

ডা: দীপু মনি (শিক্ষা): দীপু মনি (জন্ম: ডিসেম্বর, ১৯৬৫) একজন বাংলাদেশী নারী রাজনীতিবিদ, বাংলাদেশ সরকারের বর্তমান শিক্ষামন্ত্রী এবং সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী। ২০০৮ সালে আওয়ামীলীগের জয়লাভের পর বাংলাদেশের প্রথম মহিলা পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে তিনি নিয়োগ পান। তিনি দশম সংসদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ছিলেন। ২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের ২০তম কাউন্সিলে তিনি পুনরায় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত হন। একাদশ সংসদে মনি শিক্ষামন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ পান

দীপু মনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগএর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য এবং ভাষা আন্দোলনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র লীগের প্রথম কাউন্সিলনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক এম. ওয়াদুদের কন্যা। তিনি হলিক্রস কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস এবং বাংলাদেশ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় হতে এলএলবি পড়েন। এমবিবিএস ডিগ্রি লাভের পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন্স হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব পাবলিক হেলথ থেকে এমপিএইচ ডিগ্রি অর্জন করেন। এছাড়া তিনি লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন বিষয়ে মাস্টার্স ডিগ্রি হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমঝোতা দ্বন্দ্ব নিরসন এর ওপর একটি কোর্স সম্পন্ন করেন। বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের একজন আইনজীবী

চাঁদপুর আসনের নির্বাচিত সংসদ তিনবারের সংসদ সদস্য ডা. দীপু মনির নেতৃত্বে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়প্রতিবেশী দেশসমূহের সাথে বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ গ্রহণ করে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকাকালীণ সময়ে তিনি কমনওয়েলথ মিনিস্ট্রেরিয়াল অ্যাকশন গ্রুপএর প্রথম নারী এবং দক্ষিণ এশীয় চেয়ারপার্সন নির্বাচিত হন। এছাড়া তাঁর নেতৃত্বে বাংলাদেশ সমুদ্র জয় করে। এতে করে বাংলাদেশ সরকার প্রতিবেশী দেশ মিয়ানমার এবং ভারতের সাথে প্রায় চার দশকের সমুদ্র সীমা সংক্রান্ত অমীমাংসিত বিষয়টি আন্তর্জাতিক আইনের আওতায় চূড়ান্ত ভাবে নিষ্পত্তির উদ্যোগ গ্রহণ করে

ব্যক্তিগত জীবন: বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের এ্যাডভোকেট তৌফীক নাওয়াজ দীপু মনি স্বামী। তিনি আন্তর্জাতিক একটি ফার্মের প্রধান। তিনি উপমহাদেশের দুহাজার বছরের ঐতিহ্য মন্ডিত ধ্রুপদী সঙ্গীতের উৎস হিসেবে পরিচিতআলাপএর একজন শিল্পী। তাঁদের রয়েছে দুসন্তান। পুত্র তওকীর রাশাদ নাওয়াজ কন্যা তানি দীপাভলী নাওয়াজ

আনিসুল হক (আইন, বিচার সংসদ):

আনিসুল হক ব্রাহ্মণবাড়িয়া সংসদ সদস্য। ১৯৫৬ সালের ৩০ মার্চ তারিখে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা সিরাজুল হক একজন মুক্তিযোদ্ধা, আওয়ামী মুসলিম লীগের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য, বিখ্যাত আইনজীবী সাবেক সংসদ সদস্য এবং মাতা জাহানারা হক ছিলেন গৃহিনী। আনিসুল হক ঢাকার সেন্ট যোসেফ স্কুল থেকে লেভেল এবং ব্রিটিশ কাউন্সিলের অধীনে লেভেল সম্পন্ন করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজী সাহিত্যে অর্নাস এবং মাস্টার্স সম্পন্ন করেন। পরবর্তীতে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএলবি এবং লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে কিংস কলেজ থেকে এলএলএম ডিগ্রি অর্জন করেন

আনিসুল হক ১৯৮৫ সালে ঢাকা জেলা কোর্ট এবং ১৯৮৭ সালে হাইকোর্টের সুপ্রিম কোর্ট ডিভিশনে এবং ২০০১ সালে আপীল বিভাগের আইনজীবী হিসেবে কাজ শুরু করেন। আনিসুল হকের বাবা সিরাজুল হক বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলা এবং জেল হত্যা মামলার প্রধান আইনজীবী ছিলেন। ২০০২ সালে সিরাজুল হকের মৃত্যুর পর ছেলে আনিসুল হক এসব মামলা পরিচালনার দায়িত্ব পান এবং এসব মামলার রায় হওয়া পর্যন্ত তিনি মামলাগুলো পরিচালনা করেন

জানুয়ারি ২০১৪ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া (কসবাআখাউড়া) আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে জানুয়ারি শপথ গ্রহণ এবং ১২ জানুয়ারি আইন বিচার সংসদ বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পান যা অধ্যাবধি পালন করে আসছেন। ব্যক্তিগত জীবনে আনিসুল হক ১৯৮৭ সালের ডিসেম্বরে নূর আমাতুল্লাহ রিনাকে বিয়ে করেন। ১৯৯১ সালের জানুয়ারি নূর আমাতুল্লাহ রিনা পরলোকগমন করেন

মোঃ তাজুল ইসলামঃ

মো: তাজুল ইসলাম  (স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন সমবায়মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে রয়েছেন। তিনি কুমিল্লা আসনের সংসদ সদস্যতিনি টানান তিনবার সাংসদ নির্বাচিত হয়েছিলেন।

আর পড়তে পারেন