রবিবার, ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ

জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধিতে গুলশান বনানীর মানুষেরও ঝুঁকি আছেঃ কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ৭, ২০২২
news-image

মোঃ উজ্জ্বল হোসেন বিল্লাল:

কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, বাংলাদেশে আগে সরষে তৈল আমাদের প্রধান তৈল জ্বাতীয় ফসল ছিল। এক সময় এটাই মানুষ খেতো। তখন আমরা ফাম ওয়েল, সয়াবিনও চিনতাম না। বর্তমানে আমরা ৯০ ভাগ ভোজ্য তেল বিদেশের ওপর নির্ভরশীল। প্রতি বছর যেখানে আমরা দুই বিলিয়ন ডলারের বেশি ভোজ্য তেলে খরচ করি। আমরা কর্মসূচি নিয়েছি আগামী ৩ বছরের মধ্যে তৈল জাতীয় ফসলের নির্ভরশীলতা আমরা ৫০ শতাংশে নামিয়ে আনবো।

তিনি আরও বলেন, কুমিল্লাসহ সারা দেশে ফসল উৎপাদন বাড়ছে। আমরা আন্তর্জাতিক বাজারে শাকসবজি রপ্তানি করার ব্যবস্থা করছি। যা আমাদের অর্থনীতির চাকাকে আরো শক্তিশালী ও সম্মৃদ্ধশালী করবে।

রবিবার (৭ আগস্ট) কুমিল্লা শিল্পকলা একাডেমিতে বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের উদ্যোগে এবং কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহযোগিতায় সিলেট, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম এবং রাঙ্গামাটি অঞ্চলের বিদ্যমান শস্য বিন্যাসে তৈল ফসলের অর্ন্তভুক্তি এবং ধান ফসলের অধিক ফলনশীল জাতসমূহের উৎপাদন বৃদ্ধি শীর্ষক এক কর্মশালা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি নিয়ে মন্ত্রী বলেন, জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির কারণে কৃষিতে অবশ্যই এটার প্রভাব পড়বে। চাষীরা কষ্ট করে হলেও চাষ করবে। তারা এবার লাভ কম করে হলেও চাষ করবেন। কারণ খরচ বৃদ্ধি পাবে। তাই লাভ কম হলেও উৎপাদন কমবে না। এদেশের কৃষকরা এত ত্যাগী, তারা বউয়ের গলার হার, কানের দুল বিক্রি করেও চাষাবাদ করে। তারা গরু ছাগল বিক্রি করে সার কিনে ফসল উৎপাদন করে।

মন্ত্রী এসময় আরো বলেন, সারা দেশের মানুষেরই কষ্ট হচ্ছে। হয়তো মানুষ ভাবে গুলশান বনানীর মানুষের কি কষ্ট। বড় বড় শিল্পপতিদের কি কষ্ট। কিন্তু না। তাদের জন্যেও ঝুঁকি আছে। তেলের ব্যবহার তো সর্বত্র বিদ্যমান। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, যুদ্ধ বন্ধ হলে তেলের দাম কমিয়ে আনবেন। আমরা আবার তেলের দাম কমিয়ে নিয়ে আসবো। দেশকে তো আমরা ঝুঁকির মুখে দিতে পারিনা। যদি আরও ভূর্তকি দেই তাহলে সরকারের রিজার্ভ একধম কমে যাবে। তার চেয়ে বরং আমরা এখন থেকেই সতর্ক হই। যুদ্ধ তো আর সারা বছর চলবে না। যুদ্ব শেষ হলে আমরা ঘুরে দাঁড়াতে পারবো।

উক্ত কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ সায়েদুল ইসলাম, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন মেয়র আরফানুল হক রিফাত। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন চেয়ারম্যান এ এফ এম হায়াতুল্লাহ, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বেনজির আলম, বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট মহাপরিচালক ড. দেবাশীষ সরকার, বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট মহাপরিচালক ড. শাহজাহান কবীর, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের পরিচালক হাবিবুর রহমান চৌধুরী।

কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান, কুমিল্লা জেলার পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সিলেট, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম এবং রাঙ্গামাটি অঞ্চলের অতিরিক্ত পরিচালকগণ সহ বিভিন্ন জেলা থেকে আগত নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।

আর পড়তে পারেন