বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

তিতাসে টেলিফোন অফিসের বেহাল দশা, গড়ে উঠেছে মাদকসেবীদের আস্তানা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ২৯, ২০২৩
news-image

 

মোঃ জুয়েল রানা, তিতাস:
কর্তৃপক্ষের অবহেলা, উদাসিনতা ও তত্বাবধানের অভাবে কুমিল্লার তিতাসের টেলিফোন অফিসটি বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে। বুঝার কোন উপায় নাই যে এটি একটি অফিস। মনে হয় যেন কোন একটি পরিত্যক্ত প্রতিষ্ঠান। নেই কোন সাইনবোর্ড ও নেমপ্লেট।

এলাকাবাসী আক্ষেপ করে জানান, ভবনের পাশে পরিত্যক্ত একটি টিনশীড পাকা ভবনে হরহামেশাই চলছে মাদকসেবিদের আড্ডা, সীমানা প্রাচীর নীচু হওয়ায় ওয়াল টপকে মাদকাসক্তর আসাযাওয়া করতে পারে সহজেই। তাছাড়া এই অফিসের গেটের তালা কখন খোলা হয় বা বন্ধ হয় তা সচরাচর চোখে পড়ে না। অযোগ্য হয়ে পড়েছে ব্যবহারের। ভুতুরে ও ময়লা আবর্জনায় পরিনত হয়ে আছে টেলিফোন অফিসের অবস্থা।

কোন এক সময় উপজেলার সরকারি-বেসরকারি অফিসে কিছু সংযোগ থাকলেও এখন বেশির ভাগ টেলিফোন গ্রাহকের সংযোগ এখন অচল। মুঠো ফোন চালুর পর থেকে টেলিফোনের ব্যবহার কমতে কমতে শূন্যের কোঠায় এসে দাঁড়িয়েছে। সরকারি-বেসরকারি অফিস ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সমূহে টেলিফোনের ব্যবহার নেই বললেই চলে।

অফিস সুত্রে জানা যায়, বর্তমানে উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন অফিস সহ উপজেলায় ৪২টি সংযোগ রয়েছে। যা কাঙ্খিত সেবা না পাওয়ায় প্রাথমিক ভাবে নেওয়া সংযোগ অনেকেই বিচ্ছিন্ন করেছে।

এ বিষয়ে কুমিল্লা এসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার মো. কামরুজ্জামান বলেন, আমি ১৬টি উপজেলার দায়িত্বে আছি। লোকবলের অভাবে আমরা কিছুই করতে পারছিনা। আমার তিতাস অফিসে আমাকে ছাড়া আছে মাত্র একজন অপারেটর। আমার অনুপস্থিতিতে সে অফিস ও মাঠে কাজ করে। আমরা সরকারের কর্মচারী মাত্র। কতৃপক্ষ যদি কাজ না করে আমাদের কিছুই করার থাকেনা। তার পরেও আমরা বিল্ডিংয়ের রঙের কাজ ও সাইনবোর্ড লাগানোর জন্য আবেদন করেছি কতৃপক্ষের কাছে। আমার জানা মতে তিতাস উপজেলায় আনুমানিক ৪২ টি টেলিফোন সংযোগ আছে যা অতি সামান্য। তবে কেউ যদি নতুন সংযোগ নিতে চায় তাহলে আমাদের অফিসে যোগাযোগ করলে আমরা অবশ্যই দেওয়ার ব্যবস্থা করবো।