বুধবার, ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

দাপট দেখাচ্ছে রাজনীতি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ৩০, ২০১৭
news-image

 

সেলিম সজীবঃ

 ঈদুল ফিতুর উপলক্ষ্যে সারা দেশে মুক্তি পেয়েছে মোট তিনটি নতুন সিনেমা। এরমধ্যে শুধু বুলবুল বিশ্বাস পরিচালিত ‘রাজনীতি’ ছবিটি ছাড়া নবাব ও বস-২ ছবি দুটো যৌথ প্রযোজনার। এরমধ্যে বাংলায় তুমুল দাপটে ঈদের প্রথম দিন থেকেই রাজ করছে দেশের সুপারস্টার অভিনেতা শাকিব খানের ছবি ‘নবাব’। তিন দিনের হল রিপোর্টগুলোর মতে এখন পর্যন্ত আয়ের দিক থেকে ‘নবাব’-এর ধারে কাছে নেই বাকি দুই ছবি। তবে ঈদের প্রথম দুই দিন থেকে তৃতীয় দিনে এসে কম সিনেমা হল পেলেও ভালো ব্যবসার ইঙ্গিত দিচ্ছে শাকিব খানের দেশীয় ছবি ‘রাজনীতি’! শাকিবকে নিয়ে প্রচুর বিতর্ক আছে। এমনকি বছরে অসংখ্য সিনেমাতে তাকে দেখে দেখে এবং তার একগুয়েমি অভিনয়ে মানুষ বিরক্ত হলেও বাংলায় এখনো শাকিব খানের বিকল্প তৈরি হয়নি। ফলে অঘোষিতভাবেই নির্মাতা, প্রযোজক সবার পছন্দের তালিকায় সর্বাগ্রে শাকিব! কেনোনা, যেভাবেই হোক, এই বাংলাতে যারা এখনো নিয়মিত সিনেমায় যান, তাদের মধ্যে বেশীর ভাগই হলো শাকিব খানের ছবির দর্শক। তাই একজন প্রযোজক যখন তার টাকা সিনেমায় লগ্নি করেন, তাকে ভাবতে হয় সিনেমাটি দর্শক দেখবে কিনা! আর এই জায়গাতে শাকিব খানের বিকল্প তৈরি হয়নি, যার উপর লগ্নিকারী নির্দ্বিধায় ভরসা রাখতে পারেন। আর সে ভরসার মূল্য বরাবরই লগ্নিকারীকে শুধে আসলে বুঝিয়ে দেন তিনি। এই ঈদেও হচ্ছে না তার ব্যতিক্রম। ঈদুল ফিতুরে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে এগিয়ে আছে শাকিব খান অভিনীত যৌথ প্রযোজনার ছবি ‘নবাব’। যা দেখতে বাংলার সিনেমা হলে মানুষের ঢল নেমেছে। বাংলা চলচ্চিত্রের বিভিন্ন গ্রুপে বাংলার জীর্ণ শীর্ণ সিনেমা হলগুলোতেও যেভাবে ‘নবাব’ দেখতে যে মানুষের স্রোত লক্ষ্য করা গেছে, তা দর্শক খরার এই সময়ে একটা বড় চমকই বটে। ‘নবাব’-এর রেকর্ড সম্পর্কে জাজ জানাচ্ছে, দুই বাংলার ইতিহাসে এক সিনেমা হলের এক দিনের সর্বোচ্চ সেলের মালিক শাকিব খানের ‘নবাব’। কারণ এই ছবিটি শুধু ঈদের দিনে একটি প্রেক্ষাগৃহেই সেল করেছে চার লাখ পয়ষট্টি হাজার টাকা। যা এর আগে দুই বাংলার কোনো সিনেমা হলে ঘটেনি। তবে নবাব ও বস-২ ছবি দুটির মতো বেশী সিনেমা হল না পেলেও এখন পর্যন্ত ভালো ব্যবসার ইঙ্গিত দিচ্ছে শাকিব-অপু অভিনীত ‘রাজনীতি’ ছবিটি। ঈদের দিন ও পরের দিনে ছবিটি খুব একটা দর্শক না পেলেও ঈদের তৃতীয় দিনে এসে ছবিটি দেখতে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ভালোই দর্শকের আনাগোনা দেখা যাচ্ছে। নির্মাতাও আশা করছেন, শেষ পর্যন্ত মানুষ নবাব ও বস-২ ঘুরে এসে দেশের সিনেমার প্রতিই আস্থা রাখবেন!

আর পড়তে পারেন