শনিবার, ২০শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

 দেবিদ্বারে আলুর বাম্পার ফলনে কৃষকের চোখে মুখে হাসি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ৬, ২০২০
news-image

 

সাকিব আল হেলালঃ
দেশে রান্না করা প্রায় সব তরকারির সাথেই গোল আলুর সংযোগ রয়েছে। সেই সাথে আলুর চিপস, আলুর চপসহ নানা সুস্বাদু খাবারের সাথে গোল আলুর ব্যাপক চাহিদা।

কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলার ভৈষেরকোট এলাকায় বিস্তির্ণ বিল জুড়ে গোল আলুর বাম্পার ফলন হয়েছে এ মৌসুমে। স্থানীয় কৃষক হাজী গনি মিয়া জানান গত ৯০দিন আগে এসিআই ব্রান্ডের ডায়মন্ড জাতের আলু বীজ বপন করেছিলেন প্রায় ৬ কানি (১৮০শতক) ক্ষেতে । এখন আলু পরিপক্ব হওয়ায় তুলতে ব্যাস্ত তিনি সহ গ্রামের নারী শ্রমিকরা।

গ্রামের বিল জুড়ে শ্রমজীবী নারী পুরুষ সহ শিশু কিশোররা সকলে একসাথে আলু তুলছেন। বাম্পার ফলনে খুশি কৃষক চোখে মুখে আনন্দের ঝিলিক। আলু চাষী গনি মিয়া বলেন, ফলন ভালো হওয়ায় ৬কানি ক্ষেতে প্রায় ৬০০ মোনের অধিক আলু উৎপাদন হবে। ক্ষেত থেকে আলু তুলে ক্ষেতে কিংবা রাস্তার পাশেই স্তুপ করে রাখছেন তারা। রাস্তার পাশের স্তুপ থেকে দেখেশুনে দরদাম করে ব্যাপারীরা বিভিন্ন বাজারে বিক্রির জন্য কিনে নিচ্ছেন আলু। এখানে প্রতি মন আলু ৪৪০ থেকে ৪৫০টাকা দরে বিক্রি করছেন কৃষকরা। প্রতিকেজি ১১/১২ টাকা দরে ব্যাপারীরা কিনলেও খুচরা বাজারে ১৮/২০টাকায় বিক্রি হচ্ছে গোল আলু। দেশী তরকারির মাঝে সারাবছরই আলুর চাহিদা রয়েছে।

পুরো ফাল্গুন মাস জুড়ে চলবে আলু উত্তোলন। তবে এ সময় ভারী বৃষ্টি এলে ফসলের বিশাল ক্ষতি হওয়ার সম্ভবনার কথাও জানান কৃষকরা। বীজ কিংবা পরিচর্যায় ত্রুটির কারনে কিছু কিছু ক্ষেতের ফসলে ভাইরাসের আক্রমণ হওয়ায় উৎপাদন কম হয়েছে এবং আলুও নষ্ট হয়ে গেছে মাটির নিচে। প্রন্তিক চাষিরা ক্রমাগত লস ও নানা কারনে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছিলেন ক্রমেই। এবারের ফলন ভালো ও বাজার মূল্য ভালো থাকায় কৃষকরা কিছুটা লাভের মুখ দেখবেন বলেই আশা তাদের। কৃষক হাজী গনি মিয়া আরো বলেন, এবার চাষ, সার, কিটনাশক ও শ্রমিক মজুরি খরচের প্রায় দ্বিগুন লাভ হবে তার। আর তাই আগামীতে ১২কানি জমিতে গোল আলুর চাষ করবেন তিনি।

আর পড়তে পারেন