মঙ্গলবার, ৫ই মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

দেবিদ্বার নামকরণ নিয়ে নানামূখী কথা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৩, ২০১৭
news-image

 

মোঃ জামাল উদ্দিন দুলাল ||
কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বারের নামকরণ নিয়ে নানামূখী প্রবাদ, গল্প, কল্পকাহিনী রয়েছে। আজকের প্রেক্ষাপটে নামকরনের সঠিক অবস্থানে পৌঁছা খুবই কঠিন। তবে লোকমুখে ত্রীমূখী নামকরনের যুক্তি পাওয়া গেছে।
সপ্তদশ শতাব্দীর শেষভাগে অভিভক্ত দিনাজপুর জেলার ভাটুরিয়ার দেবীকোটের রাজ পরিবারের মধ্যে ভাতৃ কলহে পৈত্রিক রাজপরিবার ত্যাগ করে বানরাজা এ অঞ্চলে এসে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন। বানরাজা দেবীকোট থেকে আসায় এ অঞ্চলের মানুষের কাছে বানরাজা পরিচয়ের চেয়ে দেবীকোটের রাজা হিসেবে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেন। কালক্রমে দেবীকোটের নাম থেকে আজকের দেবীদ্বারের নামকরণ করা হয়েছে।
এক্ষেত্রে ভিন্ন অনেক সমালোচনা রয়েছে, কারো কারো মতে, অষ্টাদশ শতাব্দীর প্রথম ভাগে বৃটিশের ক্যাপ্টেন জন ডেভিড ভারতের চিতনা নামক স্থান থেকে নৌপথে গোমতী নদী দিয়ে ঢাকা যাওয়ার পথে দেবীদ্বারের ভিংলাবাড়ি নামক স্থানে বানরাজার সৈন্যদের সাথে ক্যাপ্টেন জন ডেভিডের সৈন্যদের যুদ্ধ সংঘটিত হয়। এক সময় ওই যুদ্ধের নাম জন ডেভিডের নাম জড়িয়ে “ডেভিড ওয়ার” (ডেভিডের যুদ্ধ) নামে পরিচিতি লাভ করে এবং ওই যুদ্ধের নামের প্রচলন থেকে আজকের দেবীদ্বার নামের নামকরণের উৎপত্তি বলেও অনেকে দাবী করছেন।
তৃতীয় মতাদর্শীদের অনেকের মতে, এ অঞ্চল এক সময় হিন্দু অধ্যুষিত ছিল। হিন্দু প্রধান এলাকা হিসেবে তাদের মূর্তী পূঁজার কেন্দ্রস্থল ছিল গোমতী নদীর পাড়। দেবীদ্বার গ্রামের টুনু দত্তের বাড়িতে একটি বড় পূঁজামন্ডপ ছিল। যাকে বলা হত ‘দেবীর ঘর’, এঘরে নির্মান হত দেব-দেবীর মূর্তী। তৈরী মূর্তীগুলো দেশের বাহিরে ত্রীপুরায়ও সরবরাহ করা হত। তখন দেবীদ্বারের জাফরগঞ্জ এবং কোম্পানীগঞ্জ’র ব্রীজ সংলগ্নে দুটি নৌবন্দর ছিল। হিন্দু সম্প্রদায় তাদের মূর্তী-পূঁজাগুলো করতেন গোমতী পাড়ে। কারন, মূর্তী বিষর্জনের নির্ভরযোগ্য স্থান হিসেবে বেছে নেয় গোমতী নদীকে। এক সাথে ৮০-১০০টি পূঁজা মন্ডব তৈরী হতো। পূঁজা শেষে এসব মূর্তীগুলো বিষর্জন দেয়া হতো গোমতী নদীতে। একসময় এ স্থানটিকে ‘দেবীর দুয়ারে’র খেতাবে ভূষিত হলো। সেই থেকে ‘দেবীর দুয়ার ’থেকে পরবর্তীতে দেবীদুয়ার – দেবীদ্ধার-দেবীদ্বার সর্বশেষ ১৯৮৪ ইং সনে দেবীদ্বারের ‘ ী’ পরিবর্তন করে ‘ ী‘ র স্থলে ‘ ি ’ যোগ করে আজকের দেবিদ¦ার বানানের প্রচলন শুরু করা হয়।
১৯৮৪ইং সনে দেবীদ্বার রেয়াজ উদ্দিন পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের অভিভাবক প্রতিনিধি নির্বাচনে তৎকালীপ্রধান শিক্ষক আলহাজ্ব এ.কে.এম.ফজলুল হোসেন সাম্প্রদায়ীক চেতনায় এবং হিন্দু বিদ্বেষী মনোভাবের কারনে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের দেবীর সংস্পর্শ থেকে দেবীদ্বারকে মুক্ত করতে দেবীদ্বারের ‘ ী ’র স্থলে ‘ ি ’ প্রচলন শুরু করেন। ওই নির্বাচনে প্রার্থীদের ডেকে এনে তাদের নির্বাচনী প্রচারনায় পোষ্টার, লিফলেট, ব্যানার, ভোটার স্লিপ সহ বিভিন্ন প্রচার কাজে দেবীদ্বারের স্থলে দেবিদ্বার লিখার নির্দেশ দেন। সেই প্রচার থেকে ১৯৮৫-১৯৮৬ ইং সনে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল বাশার ভূইয়ার মাধ্যমে উপজেলা পরিষদের সভায় রেজুলেশন করে ওই নামের পরিবর্তন করা হয়। পরবর্তীতে বিভিন্ন অফিস আদালত , বিপণী কেন্দ্রের সাইনবোর্ড, দাপ্তরিক কাগজ পত্র থেকে দেবীদ্বার নাম মুছে ফেলে ‘দেবিদ্বার’ করা হয়। বর্তমানে সেই আভিধানিক শুদ্ধ বানানটি সাংবাদিকের লেখালেখিতে প্রচলন শুরু হয়।
দেবিদ্বারের নামকরনের বিষয়ে খুজতে গিয়ে বিশিষ্ট লেখক তিতাস চৌধূরীর লিখা ১৯৮৩ইং সনে প্রকাশিত “কুমিল্লা জেলার লোক সাহিত্য” বইয়ে কুমিল্লার গ্রাম গঞ্জের নাম করনে প্রতিশ্রুতি দিয়ে দেবীদ্বারের নামকরনে উল্লেখ করেন,- “দেবিদ্বার গ্রামে জনৈকা ‘দেবীমূর্তী’ উদ্ধার প্রাপ্ত হয়েছিল এবং সেই ‘দেবী’ সকলের জন্য ‘দ্বার’ উন্মোক্ত করে দিয়েছিলেন। সেই ‘দেবীর’ উন্মোক্ত ‘দ্বার’ থেকে আজকের ‘দেবিদ্বার’ হয়েছে। দেবিদ্বারের নামকরন সম্পর্কে এরচেয়ে বেশী কিছু জানা যায়নি।
দেবিদ্বার থানা প্রতিষ্ঠা ঃ
একসময়ের ত্রিপুরা বর্তমানে কুমিল্লা। সেই ত্রিপুরা রাজ্যের রাজা ‘কমলাঙ্ক’র নমানুসারে ‘কমলাঙ্ক’, কমলাঙ্ক থেকে ‘কর্মুল্যা’, কর্মুল্যা থেকে ‘কুমিল্যা’, কুমিল্যা থেকে আজকের ‘কুমিল্লা’র নামকরন হয়েছে। আর এ কুমিল্লা জেলার সর্ববৃহৎ থানা/ উপজেলা ‘মুরাদনগর’কে বিভক্ত করে ৩২ ইউনিয়নের বড়শালঘর, ইউছুফপুর, রসুলপুর, সুবিল, ফতেহাবাদ, দেবীদ্বার, এলাহাবাদ, জাফরগঞ্জ, গুনাইঘর (উঃ), গুনাইঘর (দঃ), রাজামেহারসহ ১১টি ইউনিয়ন ও চান্দিনা থানার ধামতী (উঃ), ধামতী (দঃ) (সুলতানপুর), ভানী, বড়কামতা, মোহনপুরসহ ৫টি ইউনিয়ন নিয়ে দেবিদ্বার থানা’র সৃষ্টি হয়েছিল। কথিত আছে দেবীদ্বার থানা’র সৃষ্টি হয়েছিল ‘শালঘর’ ও ‘ধামতী’ ইউনিয়নের দাঙ্গাবাজ লোকদের দমনে। মুরাদনগরের ৩২টি ইউনিয়নের মধ্যে ১১টি এবং চান্দিনা থানার ৫টি ইউনিয়ন আলাদা করে ১৬টি ইউনিয়ন নিয়ে ১৯১৭ সালের ১৫ জুলাই দেবীদ্বার থানা প্রতিষ্ঠা হয়। ওই একই সালের ২১ সেপ্টেম্বর ১১২৩ নং স্মারকে গেজেট আর.এ. প্রকাশ হওয়ার পর ১৯১৮ সালের ১ জানুয়ারী থেকে আনুষ্ঠানিক ভাবে দেবীদ্বার থানার কার্যক্রম শুরু হয়। বর্তমানে ১৯৮৬সালে থানাকে উপজেলায় রুপান্তরিত করার পর ২০০২সাল থেকে ৫নং দেবিদ্বার ইউনিয়নকে পৌরসভায় উন্নিত করার পর উক্ত উপজেলার ১৬টি ইউনিয়নের মধ্যে বর্তমানে ১৫টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা করা হয়েছে।

মোঃ জামাল উদ্দিন দুলাল (সাংবাদিক)
পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ও লেখক
দি ক্যামব্রিয়ান স্কুল অ্যান্ড কলেজ
শান্তি রোড, দেবিদ্বার, কুমিল্লা

আর পড়তে পারেন