বৃহস্পতিবার, ২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ধর্ষকের বিবেক ও সমাজ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ১২, ২০১৭
news-image

মোঃ সাইফুল ইসলাম:
আমার প্রতিদিনের সকালটা সংবাদপত্রের জন্য বরাদ্দ থাকতো আর এখনো আছে। সকালটা যেন সংবাদময় জীবন। আগেও ছিল।কিছুদিন আগেও সকালে বাসায়বসে সংবাদপত্রপড়তাম। কিন্তু এখন আর বাসায় তেমন পড়া হয় না। অফিসে গিয়েই পড়তে হয়। বাসায় এতো পত্রিকা এক সঙ্গে রাখা হয় না। তাই অফিসে গিয়েই পড়ি। বেশ কিছুদিন ধরে একটা জিনিস খেয়াল করলাম আর সেটা হলোসংবাদ পত্রের প্রথম পাতায় কয়েক দিন ধরেই ধর্ষণের সংবাদ। আর চোখগুলো তো মনে হয় আমার দুষ্ট হয়ে গেছে। শত সংবাদ থাকতেও কেন ধর্ষণের সংবাদের দিকে নজর যাবে? মানুষ বরাবরই সব কিছু ভিন্ন চোখে দেখে আমি তাদের চেয়ে ব্যতিক্রম নই। এই সংবাদ দেখে আমার মনে হলো , আমাদের পাশ্ববর্তী দেশ ভারতে যে জিনিসটা খুবই সচারচর ঘটতো সেই জিনিসটা অমাদের দেশে আসলো কীভাবে? এ নিয়ে আমার মনে খটকা লাগে। সেই জটটা এখনো খোলেনি। গত দু’দিন আগে একটা পত্রিকায় দেখলাম গত এক সপ্তাহে ৩৬টি ধর্ষণের মতো ঘটনা ঘটেছে সারা দেশে। কেন এতো ধর্ষণ? হঠাৎ করেই যার সংখ্যা বেড়ে গেল। নাকি আগেও ঘটতো? মিডিয়া এতটা প্রচার এবং সম্প্রসার করতো না? তাহলে আমরা বলতে পারি, মিডিয়া তার দায়িত্ব পালন করছে! আমাদেরকে সচেতন হওয়ার জন্য তা প্রচার করছে। মিডিয়ার মাধ্যমেই আমরা জানতে পারছি এবং তার প্রতিবাদ করছি। এবং সেই মিডিয়ার কারণেই আইন শূঙ্খলা বাহিনী নরপশু ধর্ষকদের আইনের আওতায় নিয়ে এসে বিচারের মুখোমুখি করছে। আমার আরেকটি প্রশ্ন বারবার উত্তর চায়? সেটা হলো ধর্ষক কী মানুষ, নাকি পশু? মানুষ হলে তো তিন বছরের শিশুকে ধর্ষণ করতে পারতো না। আসলে সে মানুষ রূপে পশু হয়ে যায়। বর্তমান সমাজে নরপশুদেখে আমার মনে হয় কোনো একটা ক্ষমতার বলে তারা এই জঘন্য কাজ করে থাকে। এখন তো ক্ষমতা দলের দিকেই সেই ইঙ্গিতটি যায়। বগুড়ায় কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ তারপর তার ও তার মায়ের মাথা ন্যাড়া করার ঘটনা ব্যাপক সাড়া ফেলে। তার আগে অবশ্যই বনানীর রেইন্ট্রি হোটেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রীর ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। যার মামলায় বাদী হয়ে ছিল ধর্ষণে শিকার হওয়া এক ছাত্রী। প্রায় বছর খানেক আগে কুমিল্লায় ক্যান্টেমেন্টের ভিতরের তনুকে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় আলোড়ন ফেলেছিলো সমগ্র দেশ। যার মাধ্যমে সামাজিক আন্দোলনের যাত্রাটা হয়েছিল। কিছু দিন আগে বাড্ডাতে একটি শিশুকে ধষর্ণের মতো ঘটনা ঘটেছে। এতো এতো ধষর্ণ কেন?আমাদের সমাজ থেকে মূল্যবোধ নামক বিষয়টা উঠে গিয়েছে। একে অপরকে সম্মান করে না। এটাও একটা কারণ হতে পারে। সামাজিক অবক্ষয় তো আছেই। বর্তমানে যেসব অপরাধ ঘটছে তার মূল কারন হিসেবে অনেকে বলছে সমাজিক অবক্ষয়ের কথা। তাছাড়া ধর্ষণের সঙ্গে সম্ভবত ক্ষমতার একটি নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে। তুফানের কথা বললে বলতে হয় ক্ষমতার ব্যবহার। বর্তমান সরকার আওয়ামীলীগের শাসনামলে যুবলীগ, ছাত্রলীগ, আরো বিভিন্ন শাখা লীগের অঙ্গ সংগঠনের বিভিন্ন সময়ের ধর্ষণের কথা চিন্তা করলে দেখা যায় যে, অতীতের সকল রেকর্ড অতিক্রম করে বর্তমানে তা প্রকট আকার ধারন করেছে। যা আমাদের সমাজকে ভাবনায় ফেলে দিয়েছে। শুধু আওয়ামীলীগ না বিএনপি যখন ক্ষমতায় তখন আবার যুবদল, ছাত্রদল, আরো আরো আরো যত প্রকার বিএনপি সমর্থিত দল বা দলের শাখা সংগঠন রয়েছে তাদের দলীয় পুরুষেরা দলে দলে ধর্ষণে বেশ সক্রিয় হয়ে ওঠে ছিল। ছাত্রদলের ছেলেরা কারো ছিনিয়ে নিয়েছিল ওড়না, কাউকে শারীরিকভাবে নাজেহাল করেছিল। আমি মনে করি, ধর্ষকের মাঝে কখনো রাজনৈতিক ব্যাক্তিত্ব থাকতে পারে না। তারা সমাজের উন্নয়নে আসতে পারে না। তারা সমাজের বোঝা। তাদেরকে সমাজ অনেক কিছু নেয় কিন্তু বিনিময়ে তারা সমাজকে নরকে পরিণত করেন। আমার আরেকটা প্রশ্ন অনেকদিন ধরেই তাড়া দিচ্ছে, ‘ধর্ষকদের কী মা নেই? আসলে অধিকাংশ ঘটনা বিশ্লেষনে দেখা যায়, ধর্ষকদের মাঝে বিবেক বলতে কিছু নেই। যদি বিবেক থাকতো তাহলে ছোট শিশুদের ধর্ষণ করতে পারতো না, মা কে ধর্ষণ করতে পারতো না, বোনকে ধর্ষণ করতে পারতো না । বর্তমান প্রেক্ষিতে ধর্ষকদের হাত থেকে দেশের মা বোনদেররক্ষা করার জন্য একটি দৃষ্টান্তমূলক বিচার দেখাবো আশা রাখি।অনন্ত যা ধর্ষকদেরমনে আতংকের সৃষ্টি করতে পারে।
লেখক: সাংবাদিক

 

আর পড়তে পারেন