শুক্রবার, ১লা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

নাঙ্গলকোটে ডোবায় ব্যবসায়ীর লাশ, মৃত্যু নিয়ে রহস্য

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ৫, ২০১৮
news-image

 

সেলিম সজীব, নাঙ্গলকোটঃ

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে বাড়ির পাশের ডোবা থেকে মো. ইদ্রিছ মিয়া (৫৫) নামের এক মাছ ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তার মৃত্যুর রহস্য নিয়ে এলাকায় ধূম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে।

গ্রামবাসীর ধারণা তাকে হত্যার পর লাশ ডোবায় ফেলে দেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার আদ্রা উত্তর ইউনিয়নের মেরকট গ্রামের ডোবা থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। নিহত ইদ্রিছ মিয়া ওই গ্রামের মৃত রুহুল আমিনের ছেলে। তিনি বিপত্নীক ও ৮ সন্তানের জনক ছিলেন। স্থানীরা জানান, মাছ ব্যবসায়ী ইদ্রিছ মিয়া বুধবার দুপুরে ব্যবসার কাজে বাইরে যান।

এরপর বৃহস্পতিবার ( ৩ মে) সকালে বাড়ির পাশের ডোবা থেকে স্থানীয়রা তার মরদেহ উদ্ধার করেন। গ্রামের মৃত সুজ্জত আলীর ছেলে ও নিহত ইদ্রিসের ভগ্নিপতি মোবারক উল্লাহ বলেন, সকালে ইদ্রিসের লাশ বাড়ির পাশের ডোবায় পড়ে থাকতে দেখে আমাকে খবর দেয়া হলে আমিসহ বাড়ির লোকজন তার মরদেহ উদ্ধার করি এবং দাফনের ব্যবস্থা করি।

ইদ্রিস আলী স্বাভাবিকভাবে মৃত্যুবরণ করেছেন বলে তিনি দাবি করেন। এসময় নিহতের ছবি তুলতে গেলে এবং নিহতের ছেলে মেয়েদের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে তিনি সহ বেশ কয়েকজন মিলে সাংবাদিকদের বাধা দেন। একপর্যায়ে সাংবাদিকদের হুমকি দেয়া হয়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন গ্রামবাসী জানান, বুধবার সকালে নিহত ইদ্রিসের সঙ্গে পাশের বাড়ির আবদুল মান্নান মনুর ছেলে জসিম উদ্দিনের ঝগড়া হয়। পরে রাতে বাড়ি ফেরার সময় জসিম উদ্দিনসহ কয়েকজন মিলে তাকে বেদম মারধর করে। একপর্যায়ে তার মৃত্যু হলে লাশ ডোবায় ফেলে যায়।

তারা আরো জানান, সকালে লাশ উদ্ধারের পর বিষয়টি জানাজানি হলে নিহত ইদ্রিসের ভগ্নিপতি মোবারক উল্লাহর ঘরে তার উপস্থিতিতে সাবেক মেম্বার আব্দুল বাতেন ও কয়েকজন প্রতিবেশি মিলে স্থানীয়ভাবে ৩ লাখ টাকার বিনিময়ে আবদুল মান্নান মনুর সঙ্গে আপোশ করা হয়। এসময় মনু মিয়া নগদ ১ লাখ টাকা মোবারক উল্লাহর নিকট বুঝিয়ে দেয়। বাকি ২ লাখ টাকা ১ মাসের মধ্যে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। এ বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত জসীম উদ্দিন ও তার পিতা আবদুল মান্নানকে তাদের বাড়িতে গিয়ে পাওয়া যায়নি।

জসীম উদ্দিনের ব্যবহৃত মুঠোফোন নাম্বারটিও বন্ধ পাওয়া যায়। স্থানীয় কয়েকজন জানান, ঘটনাটি আপোষ রফার পর থেকে জসীম উদ্দিনকে গ্রামে দেখা যায়নি। এ ঘটনায় নাঙ্গলকোট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আইয়ুব বলেন, এখনও থানায় কোনও অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আর পড়তে পারেন