বুধবার, ২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

বই মেলা প্রাসঙ্গিক কিছু কথা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২০
news-image

 

মো: আবদুল বাতেনঃ

ফেব্রুয়ারী মাসের কোন এক সন্ধ্যায় নিয়ন আলোয় রাজধানী ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে দেখা হয়েছিল কাজী নজরুল ইসলাম এর সাথে, দেখি কি সুন্দর কাজী সাহেব রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গায়ে হেলান দিয়ে সামনে দাঁড়ানো জসীম উদ্দিন,শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় সাথে গল্পে মেতেছে। তার সামান্য দূরে আল মাহমুদ,শামছুর রাহমান,হুমায়ন আহমদ নাম না জানা কত জন কে নিয়ে তুলেছে কোলাহল। যে দিকে তাকাই দেখি দেশি বিদেশি সব কবি সাহিত্যিক। যেন চলে এসেছি সাহিত্য ভূবনে। চারদিকে ম ম করছে কবিতারা, গল্পরা জোনাকির মত মিটি মিটি করে উড়ে বেড়ায়, ঘুরে বেড়ায় অলিগলি। মিষ্টি একটা সুখানুভুতির চাদর গায়ে জড়িয়ে যেন ভাসছি স্বপ্ন স্বর্গ রাজ্যে। বলছিলাম বই মেলার কথা। এ যেন মেলা নয়। মিলেছে যেন কবিদের বাজার। যে যেমন ইচ্ছে কিনে নিচ্ছে সাহিত্যের শত সাধনার একত্রিত গুচ্ছিত রসায়ন।

বাংলাদেশ কে বিশ্বের কাছে পরিচয় করে দিতে যেমন একটি নাম যথেষ্ট শেখ মুজিবর রহমান কিনবা সাকিব আল হাসান ঠিক তেমনি অমর একুশে গ্রন্থমেলাও বাংলাদেশের পরিচয়ের জন্য এক নতুন অধ্যায় হিসাবে ইতোমধ্যে রুপ লাভ করেছে। ১৯৫২ সালের ভাষা শহীদের স্মরণে প্রতি বছর সাহিত্য প্রেমীদের এই মিলন মেলা বাংলাদেশের শিল্প,সাহিত্য, সংস্কৃতিতে হয়ে উঠেছে এক ঐতিহ্যের নাম। বই মেলার মাধ্যমে একটি দেশের শিল্প,সাহিত্য, সংস্কৃতির সাথে পরিচয় হওয়া যায়। এটি জ্ঞানন্বেষী কোটি কোটি মানুষের জ্ঞান তীর্থ। বই মানুষের পরম প্রিয় বন্ধু। একজন লেখক তার সারা জীবনের সেরাটা দিয়ে একটি বই রচনা করে,সেই বই পড়ে আমরা হয়ে উঠতে পারি ঐ লেখকের ভিতরের আকাশ। তাই রবীন্দ্রনাথ বলেছেন- ” কে জানিত মানুষ অতীতকে বর্তমানে বন্দি করিবে? অতল স্পর্শে কাল সমুদ্রের ওপর কেবল এখানি বই দিয়া সাঁকো বাঁধিয়া দিবে”। জগৎ বিখ্যাত কবি ভিনসেন্ট স্টারেট বলেছেন- “যিবহ বি নুঁ ধ নড়ড়শ বি নুঁ ঢ়ষবধংঁৎব”। পারস্যের কবি ওমর খৈয়াম বইকে নিয়ে গেছে আরো উচ্চ মার্ঘে। তিনি বলেন- ” রুটি মদ ফুরিয়ে যাবে,প্রিয়ার কালো চোখ ঘোলাটে হয়ে যাবে কিন্তু একখানি বই অনন্ত যৌবনা যদি তেমন বই হয়।

বাংলাদেশের বই মেলার ইতিহাস বেশি পুরানো নয়। পাকিস্তান শাসন আমলে ১৯৬৫ সালে কথা সাহিত্যিক সরদার জয়েনউদ্দিন শিশুদের নিয়ে তাৎকালিন পাবলিক লাইব্রেরীতে বই মেলার আয়োজন করেন। পরে ১৯৭০ সালে নারায়নগঞ্জে আরেকটি বই মেলার আয়োজন করা হয়। আয়োজক কমিটি মেলাতে বই পড়াকে জনপ্রিয় করে তুলতে মেলার মাঠে একটি গরু বেঁধে রেখেছিল এবং ঐ গরুর গায়ে লিখা ছিল – ” আমি বই পড়ি না”। আবার ১৯৭২ সালে ৮ ফেব্রুয়ারী চিও রঞ্জন শীল সাহা বাংলা একাডেমী বর্ধমান হাউসের সামনে মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতে আশ্রয় নেওয়া শরনার্থী লেখকদের বই নিয়ে বই মেলার সূচনা করেন। ১৯৭২ সালেকে ইউনেসকো ৩য় বার আন্ত:জাতীক গ্রন্থমেলা হিসাবে ঘোষনা করে। সেই উপলক্ষ্যে ১৯৭২ সালের ডিসেম্বর মাসে আরেকটি বই মেলার আয়োজন করা হয়।১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান বাংলা জাতীয় সাহিত্য সম্মেলন উপলক্ষ্যে আয়োজিত বই মেলার উদ্ভোধন করে। মূলত বাংলা একাডেমীর মাঠের দেয়াল ঘেসে বিভিন্ন প্রকাশনী সে সময় জমায়েত হতো। সেই জমায়েত আজকের বইমেলা। ১৯৮৩ সালে বাংলা একাডেমী মহাপরিচালক কাজী মনজুর মওলা “অমর একুশে গ্রন্থমেলা” নাম করন ও আয়োজন করেন। তারপর এর পরিধি বাড়তে থাকে। ১৯৯৫ সালে সরকারি সহযোগীতায় বাংলা একাডেমী বর্ধমান হাউস বর্তমানে সোহরওয়ার্দী উদ্যানে বই মেলার মাঠ সম্পসারন করা হয়। ১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনের স্মৃতি কে অম্লান করে রাখতে ফেব্রুয়ারি মাস ব্যপি বই প্রেমীদের মিলন মোহনায় পরিনত হয় আমাদের প্রিয় বই মেলা।

মেলা চলাকালিন লেখক,কবি সাহিত্যিক, প্রকাশক,প্রকাশনী, বুদ্ধিজীবী,শিল্পী, সাংবাদিক, শিক্ষার্থী, শিক্ষক, বিদেশি নাগরিক,বিভিন্ন পেশাজীবী এই মেলাকে কেন্দ্র করে একত্রিত হয়। প্রতিদিন কোন না কোন অনুষ্ঠান তো থাকবেই। এ ছাড়া সেরা বই এর জন্য চিও রঞ্জন শীল স্মৃতি পুরস্কার, সেরা স্টল এর জন্য সরদার জয়েনউদ্দিন স্মৃতি পুরস্কার, বেশি বই ক্রেতার জন্য পলান সরকার স্মৃতি পুরস্কার দেওয়া হয় মেলাতে। গত কয়েক বছর সরকারি, বেসরকারি টিভি, রেডিও সরাসরি সম্পচার, পত্রিকা গুলো ধারাবাহিক প্রতিবেদন, শিশু দের জন্য শিশু কর্নার, নতুন বইয়ের মোড়ক উম্মেচন,অন লাইনে বই বিক্রয় বিপনন ইত্যাদি বই মেলাকে করেছে আরো দৃষ্টি নন্দন। বিগত কয়েক বছর ধরে দেখা যাচ্ছে, প্রতিটি জেলা উপজেলায় সরকারি বেসরকারি উদ্যোগে বই মেলা হয়ে থাকে। এ ধরনের বই মেলায় উঠে আসে নতুন নতুন লেখক। গত বছর ডিসেম্বর মাসে জাতীয় মসজিদ এর দক্ষিণ গেটে ইসলামী বই মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে যা বাংলা সাহিত্যে যোগ করেছে নতুন মাত্রা।

পৃথিবীর প্রায় সব দেশে বই মেলা হয়ে থাকে। ১৫০০ শতকে জার্মানি জোহানস গুটেনবার্গ প্রথম ছাপাখানা আবিস্কার করে। তার থেকেই বই তৈরি বাড়তে থাকে। ১৮০২ সালে সর্ব প্রথম নিউইয়ক শহরে পূর্নাঙ্গ বই মেলার আসর বসে। ১৯৪৯ সালে বিশ্বে বৃহত্তম বই মেলা হয় ফ্রাস্কফুটে। সেখান থেকে আধুনিক বই মেলার সূত্রপাত হয় দেশে দেশে। ফ্রস্কফুট এখনো বিশ্বে প্রধান বই মেলা হিসাবে বিবেচিত। এছাড়া আন্ত:জাতীক ভাবে লন্ডন বুক ফেয়ার প্রতি বছর মার্চ মাসে আয়োজন করা হয়। কলকাতা বই মেলা, নয়া দিল্লী বই মেলা, আরবদের প্রচীনতম বই মেলা কায়রো বই মেলা,হংকং বই মেলা, আমেরিকা বুক এক্রপো ( বিইম), আবুধাবি বইমেলা,গুয়াডালজারা বই মেলা পৃথিবী ব্যাপি পরিচিত সেরা বই মেলা। পৃথিবীকে জানতে এ ধরনের বই মেলার ব্যাপকতা বাড়ানো আবশ্যকীয়।


লেখক:
মো: আবদুল বাতেন
প্রভাষক
গৃদকালিন্দিয়া হাজেরা হাসমত বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ।
ফরিদগঞ্জ, চাঁদপুর।
মোবাইল: ০১৭১৪৪১৭১৭৪

আর পড়তে পারেন