বুধবার, ২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

‘বছরে বিদেশে পাচার গড়ে ৬৪ হাজার কোটি টাকা’

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ৪, ২০২০
news-image

ডেস্ক রিপোর্টঃ
বাংলাদেশ থেকে প্রতিবছর গড়ে ৭৫৩ কোটি ৩৭ লাখ ডলার বিদেশে পাচার হয়। যা দেশীয় মুদ্রায় ৬৪ হাজার কোটি টাকা। আর শুধু মাত্র ২০১৫ সালে পাচার হয়েছে এক হাজার ১৫১ কোটি ডলার। যা দেশীয় মুদ্রায় ৯৮ হাজার কোটি টাকা। ২০১৬ ও ২০১৭ সালের কোনো তথ্য জাতিসংঘকে দেয়নি বাংলাদেশ। মঙ্গলবার প্রকাশিত যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংস্থা গ্লোবাল ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টিগ্রিটির (জিএফআই) এক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দুই প্রক্রিয়ায় এই অর্থ পাচার হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে বিদেশ থেকে পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে মূল্য বেশি দেখানো (ওভার ইনভয়েসিং) এবং রপ্তানিতে মূল্য কম দেখানো (আন্ডার ইনভয়েসিং)।

এ বিষয়ে জিএফআই’র সিনিয়র ইকোনমিস্ট রিক রাউডেন জানান, ২০১৭ সাল পর্যন্ত বিশ্বের অন্যান্য দেশ তথ্য দিলেও বাংলাদেশ ২০১৬ ও ২০১৭ সালের কোনো তথ্য দেয়নি।
অনেক দিন ধরেই বাংলাদেশ জাতিসংঘে তথ্য দিয়ে আসছে। কিন্তু ২০১৬ এবং ২০১৭ সালের কোনো তথ্য দেয়নি দেশটি। জিএফআই প্রতি বছর এ সংক্রান্ত রিপোর্ট প্রকাশ করে থাকে। কিন্তু বাংলাদেশের ব্যাপারে হালনাগাদ তথ্য না থাকায় ২০১৫ সালের তথ্যের ভিত্তিতে প্রতিবেদন প্রকাশ করে সংস্থাটি। তবে তারা ২০১৭ সালের তথ্যের ভিত্তিতে অন্যান্য দেশের রিপোর্ট প্রকাশ করে।

প্রতিবেদনটিতে ১৩৫টি উদীয়মান ও উন্নয়নশীল দেশের গত ১০ বছরের (২০০৮-২০১৭) আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে মূল্য ঘোষণার গরমিল দেখিয়ে কীভাবে দেশ থেকে অর্থ পাচার হয়, সেই চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। পাশাপাশি ৩৫টি উন্নত দেশের সঙ্গে তুলনামূলক চিত্রও দেয়া হয়েছে। একটি দেশ অন্য দেশের সঙ্গে আমদানি-রপ্তানি করার সময় প্রকৃত মূল্য না দেখিয়ে কমবেশি দেখানো হয়। মূল্য ঘোষণার বাড়তি অংশের অর্থ বিদেশে পাচার করে দেয়া হয়। এমন তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে জিএফআই প্রতিবেদনটি তৈরি করেছে।

বাংলাদেশের ক্ষেত্রে ২০১৪, ২০১৬ ও ২০১৭ সালের তথ্য-উপাত্ত দেয়া হয়নি ওই প্রতিবেদনে। বাংলাদেশের বাকি সাত বছরের তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে অর্থ পাচারের হিসাব দেয়া হয়েছে। প্রতিবছরের গড় অর্থ পাচারের হিসাবে ওই ১৩৫টি উন্নয়নশীল দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ৩৩ তম। এ দেশে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রমে মূল্য ঘোষণার গরমিল দেখিয়ে টাকা পাচার হয় বলে অভিযোগ আছে। ইদানীং এমন কিছু ঘটনাও উদ্ঘাটন করা হয়েছে। প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাংলাদেশের সঙ্গে অন্য সব দেশের যত আমদানি-রপ্তানি হয়, তাতে গড়ে ১৭ দশমিক ৯৫ শতাংশ বা প্রায় ১৮ শতাংশের মূল্য ঘোষণায় গরমিল থাকে।

জিএফআই’র প্রতিবেদন বলছে, ২০০৮ সালের পরে বাংলাদেশে এভাবে মূল্য ঘোষণায় গরমিল দেখিয়ে অর্থ পাচারের পরিমাণ বেড়েছে। ২০১৫ সালে সর্বোচ্চ ১ হাজার ১৫১ কোটি ৩০ লাখ ডলার বিদেশে চলে গেছে। ২০০৮ সালে এর পরিমাণ ছিল ৫২৮ কোটি ডলার। এ ছাড়া ২০০৯ সালে ৪৯০ কোটি ডলার, ২০১০ সালে ৭০৯ কোটি ডলার, ২০১১ সালে ৮০০ কোটি ডলার, ২০১২ সালে ৭১২ কোটি ডলার ও ২০১৩ সালে ৮৮২ কোটি ডলার বিদেশে গেছে।

জিএফআই এবারের প্রতিবেদনে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রমে মূল্য ঘোষণার গরমিলের মাধ্যমে অর্থ পরিশোধকে সরাসরি অর্থ পাচার বলেনি। এভাবে মূল্য ঘোষণার গরমিল কী পরিমাণ, তা নির্ধারণ করেছে জিএফআই। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, ২০১৬ সালে ইকুয়েডর ২ কোটি ডলারের কলা যুক্তরাষ্ট্রে রপ্তানি করেছে বলে তাদের তথ্য-উপাত্তে দেখানো হয়েছে। কিন্তু ইকুয়েডর থেকে ওই বছর দেড় কোটি ডলারের কলা আমদানি করেছে বলে যুক্তরাষ্ট্র দেখিয়েছে। এর মাধ্যমে মূল্য ঘোষণার গরমিল হলো ৫০ লাখ ডলার। জিএফআই বলছে, ৩৫টি উন্নত দেশের সঙ্গে বাণিজ্যের ক্ষেত্রে এ দেশের ব্যবসায়ীরা তুলনামূলক কম মিথ্যা ঘোষণা দেন। এই হার ওই সব দেশের সঙ্গে মোট বাণিজ্যের ১৪ শতাংশের কিছুটা বেশি।

বাংলাদেশ সম্পর্কে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বছরে গড়ে ৩২৯ ডলার ওই সব উন্নত দেশে চলে গেছে। এর মধ্যে ২০১৫ সালে এর পরিমাণ ছিল প্রায় ৪৫৮ কোটি ডলার। ২০০৮ সালে এভাবে উন্নত দেশে গেছে ২৫৫ কোটি ডলার।

জিএফআই’র তথ্যমতে, গত সাত বছরে বাংলাদেশ থেকে পাঁচ হাজার ২৭০ কোটি ডলার পাচার হয়েছে। স্থানীয় মুদ্রায় যা সাড়ে চার লাখ কোটি টাকা। যা দেশের চলতি বছরের (২০১৯-২০২০) জাতীয় বাজেটের প্রায় সমান। প্রতি বছর গড়ে পাচার হয়েছে প্রায় ৬৪ হাজার কোটি টাকা। টাকা পাচারে বিশ্বের শীর্ষ ৩০ দেশের তালিকায় রয়েছে বাংলাদেশের নাম। এছাড়া দক্ষিণ এশিয়ার এ সংক্রান্ত তালিকায় ভারতের পরেই বাংলাদেশের অবস্থান। সংস্থাটির মতে, বাংলাদেশের মোট বাণিজ্যের প্রায় ১৯ শতাংশই কোনো না কোনোভাবে পাচার হচ্ছে।

আর পড়তে পারেন