শুক্রবার, ১লা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

বরুড়ায় শাপলা বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ৯, ২০১৭
news-image

এম.ডি আজিজুর রহমান, বরুড়া:
কুমিল্লা বরুড়া উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে গ্রামে ঘুরে ঘুরে প্রতিদিন শাপলা ফুল বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করছেন উপজেলার চিতড্ডা ইউনিয়নের নোয়াদ্ধা গ্রামের বাসিন্দা আসমত আলীর ছেলে রেশমত আলী। সারাদিন কাঠফাটা রোদ কিংবা মুষলধারে বৃষ্টি যাই হোক না কেন জলাশয়ে যেতেই হবে তাকে। শাপলা তুলতেই হবে। তা নাহলে সংসার চলবে কি করে? বিলের শাপলাই তো তার সংসারে অন্ন জোগাতে সিংগভাগ ভূমিকা রাখছে।

“শাপলা নেবে, শাপলা, লাল সাদা তরতাজা শাপলা”, এমন করে গ্রাম গঞ্জের বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় শাপলা বিক্রেতার হাঁক শুনলেই গ্রামের ছোট বড় সকলেই ছুটে আসেন তরতাজা শাপলা নিতে। আমাদের জাতীয় ফুল শাপলা শুধু সৌন্দয্যের প্রতীক নয়, সবজি হিসেবেও বেশ জনপ্রিয়। এ সময়ে বরুড়া উপজেলার বিভিন্ন জলাশয়ে যেন শাপলার মেলা বসেছে। তেমনি উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে পাওয়া যাচ্ছে শাপলা ফুল। আর শাপলা বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করছে উপজেলার নোয়াদ্ধা গ্রামের রেশমত আলী ।

গতকাল বরুড়া পৌরসভা বাজারে কাঠফাটা রোদ্রে দেখা মিলল রেশমত আলী নামের এই শাপলা বিক্রেতার সাথে। শাপলা বিক্রির পাশাপাশি দীর্ঘ সময় আলাপচারিতায় তার সাথে কথা হয় তিনি বলেন, আমি বর্ষাকালিন সময় ছাড়া সারা বছরেই কৃষি কাজ করি থাকি। এছাড়া বর্ষার সময়ে এলে শাপলা বিক্রি শুরু করি।

প্রতিদিন সন্ধায় আমি কমপক্ষে ২০ থেকে ৩০ মুঠো শাপলা সংগ্রহ করতে পাড়ি। তা আবার সকালে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় হাতে নিয়ে ফেরি করে বিক্রি করি। প্রতিদিন ৪শ’৫০ টাকা থেকে ৬ শত টাকা পর্যন্ত বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করছি। কিন্তু বছরের এই ফুলের সিজন অল্প কয়েকমাস থাকে। তিনি আরও জানান বর্ষায় ডুবে যাওয়া ধান, পাট ক্ষেতে শাপলা বেশি জন্মায়। উপজেলার খাল-বিলগুলোতেও শাপলা ফুল জন্মে থাকে। আষাঢ় থেকে শুরু করে ভাদ্র মাস পর্যন্ত শাপলা পাওয়া যায়।

এ বিষয়ে বরুড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তারেক মাহমুদ জানান, শাপলা আসলে কোন কৃষি পণ্যের আওয়াতাভো’ক্ত নয়, এটি প্রাকৃতিক ভাবে কৃষি জমি ও পুকুর কিংবা ডোবাতে জন্মো নেয়। এই বিষয়ে আমাদের কোন পরামর্শ দেয়ার সুযোগ হয়ে উঠে না তবে আমরা চেষ্টা করি কৃষকদের সহায়তা করার। এছাড়াও আমরা কৃষকদের কে শাপলা বেশি দিন সংরক্ষন করার পরামর্শ দিয়ে থাকি।

আর পড়তে পারেন