শুক্রবার, ১লা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ভাষা; আশা-হতাশা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০২২
news-image

মোঃ শাহাদাত হুসাইন:

ফাগুনের আগুন প্রকৃতিতে নেমেছে। শীতের বিদায় ঘন্টা বেজেছে বৈকি! জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে মাতৃভূমি বাংলাদেশের অপার সৌন্দর্য আর অনন্য বৈশিষ্ট্য ষড়ঋতু তাদের স্বকীয়তা হারিয়েছে সেই কবেই। শীতে গরম, গরমে শীত। চারদিকে সচেতনতা বাড়ছে। তবুও অবচেতন মনে আমরা হররোজ আমাদের প্রাণ-প্রকৃতির বুকে ছুরি চালাই। করছি আমাদের পরিবেশকে দূষিত। ফাগুন এলেই অনেকটা স্মৃতিকাতর হয়ে পড়ি।

বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্র ভাষার মর্যাদা দেয়ার জন্য জীবন দিলো একদল তরুণ। তাঁদের রক্তের স্রোত গড়িয়ে রঞ্জিত করেছে ৫২ পরবর্তী প্রতিটি অধিকার আদায়ের আন্দোলন। ততদিনে বাঙালি বুঝে গেছে নিজের পাওনা বুঝে নেয়ার কায়দা। সালাম রফিকরা বাহান্ন পরবর্তী প্রতিটি আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেছেন। প্লে কার্ড হাতে জীবন দেয়ার জন্য বারবার নেমে এসেছেন রাজপথে। সাহস জুগিয়েছেন সাথীদের। সৈরাচারের রক্ত চক্ষুকে ভয় না করে বুলন্ঠিত করেছিলেন আওয়াজ ‘রাষ্ট্র ভাষা বাংলা চাই, আমার ভাষা তোমার ভাষা, বাংলা ভাষা বাংলা ভাষা’। এখনো কান পাতলে বাতাসে সে শব্দের দ্যোতনা বেজে উঠে। জন-জীবনে দুর্ভোগ নেমে এলে, কোথাও অধিকার খর্ব হলে, মায়ের ভাষা, মুখের ভাষা বলতে গেলে সৈরাচার মুখ চেপে ধরলে, মানুষ স্বপ্ন দেখে আবার সালাম, রফিক, শফিকরা প্লেকার্ড হাতে দাঁড়াবে দূর্বলদের পাশে, বুলন্দ করবে আওয়াজ।

‘জাতীয় জীবনে ভাষা আন্দোলনের প্রভাব বর্ণনাতীত ‘ এটা পুরোদস্তুর বই থেকে চয়ন করা বাপদাদাদের কিংবা সহজ করে বলতে গেলে রাজনীতিবিদ, টকশোবাজ, শাহবাজ, আলফাজ, বুদ্ধিজীবি, পরজীবি স্তরের বাণী। যা এখন সর্বজনবিদিত, গৃহীত। বিশেষ করে নতুন প্রজন্মের কাছে ৫২ মানে চার-পাঁচটা নাম, রক্ত, স্বীকৃতি। কিন্তু আসলেই কি তাই ছিলো? গুলির মুখে প্রাণ দেয়াটা খুব করে কি সহজ ছিলো? প্রকৃত ইতিহাস জানায়নি, জানি না কিংবা জানে না এ প্রজন্ম। বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে প্রথম বর্ষে ভাষা আন্দোলনে নারীদের ভুমিকা আলোচনা হওয়ায় অবাকই হলাম। আরেহ্! সালাম, রফিক,বরকত, শফিক,জব্বারদের ভীড়ে নারীরা কোথা থেকে এলো? জানলাম অজানা অধ্যায়। ভাবি যাদের পাঠদানের অংশ হতে পারেনি তাদের চেতনার রং কেমন?

ভাষা শহিদদের আমরা কতটা জানি? তাদের প্রতি ভালোবাসাটা কী শুধু দিবস বৃত্তে আবদ্ধ! সমতট অঞ্চলের ছেলে শহিদ আব্দুস সালাম বুকের তাজা খুন ঢেলে আমাদের মনে জায়গা করে নিয়েছে। কিন্তু সেই জায়গাটা শুধু একটি নামের জায়গা। ফেনীর দাগণভূঞা লক্ষণপুর হয়েছে সালাম নগর এ আবার কম কিসে! কিন্তু তার এক ভাই এখনো বেঁচে আছেন জীবনের সাথে লড়তে লড়তে। সরকারি নাম মাত্র ভাতা পেলেও ; জীবন মুখ তুলে একবার চায় তো তিনবার ফেরায়। বাড়ির পাশের সিলোনিয়া নদী তাদের পরিবারের উত্থান পতনের জীবন্ত সাক্ষী। জেলা প্রশাসন ৭০ লক্ষ টাকা খরচ করে স্মৃতি রক্ষার্থে বাড়ি সংলগ্ন একটি জাদুঘর ও পাঠাগার নির্মাণ করলেও, তাদের জীবন পাঠাগারের মতো কোনো পাঠক নেই সেখানে। আসে, হ্যাঁ, ২১ এলে পাঠকের উপচে পড়া ভীড় নামে চেতনার দামে।

৫ সেপ্টেম্বর ২০১১ সালে শহিদ জব্বারের সহধর্মিণী হৃদরোগ জনিত কারণে প্রায় বিনা চিকিৎসায় মারা যান। ১৯৭৩ সালে ১৬৫/১/এ বঙ্গবন্ধুর দেয়া বাড়িটিতে শহিদ জব্বারের ছেলে মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম বাদল থাকেন। জীবনের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে আমাদের চেতনা ব্যবসার খদ্দের হয়ে আছেন তিনি। নিজের জায়গায় ঘর করতে চাইলেও রাজউক ফ্লাইওভারের অজুহাতে পাচ্ছে না অনুমোদন। সরকারি ভাতায় জীবন পাতায় যুক্ত হয় নতুন দিন প্রতিদিন।

নিজের বিয়ের শাড়ি গহনা খরিদ করতে গিয়ে হিসেব চুকে নেন জীবনের। বিয়ে না ভাষা! এ হিসেব দ্রুত মেলাতে পারা মানিকগঞ্জের ছেলে শহিদ রফিকের পরিবার কেমন আছে? দিবস বৃত্তে তাদের ভালোবাসা ঝুড়ি কি উদ্বৃত্ত দেখায়?

মৌলভী শামসুদ্দিন সাহেবের জ্যেষ্ঠ ছেলে শহিদ বরকত। মুরশিদাবাদে জন্ম হলেও পড়তে আসেন এ দেশে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্র বিজ্ঞানে পড়াশোনা করে উজ্জ্বল ভবিষ্যতের হাতছানিকে দূরে ঠেলে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করলেন, বর্ণমালার পতাকাকে করলেন চির-উন্নত শির। মরণোত্তর সম্মাননা তিনি পেয়েছেন কিন্তু মরণোত্তর জীবন পেয়েছেন? তাঁর পরিবার কেমন আছে? কেমন তাদের মনের রঙ?

শহিদ শফিউর রেখে গেছে তিন বছরের এক মেয়ে আর অনাগত এক পুত্র সন্তান। স্বার্থের পৃথিবীতে এতটা উদার হওয়া কী ঠিক? হয়তো ঠিক, নয়তো আমরা পেতাম না স্বাধীনতার এই লাল সূর্য। শফিউরের স্ত্রী আকলিমা বেগম সরকারি পেনশনের টাকা পেতেন । স্বাধীনতা পরবর্তী সময়েও পেনশনের টাকা পাচ্ছিলেন শফিউরের স্ত্রী। পেনশনের বইয়ের পৃষ্ঠা শেষ হয়ে যাওয়ায় ছেলে শফিকুর রহমান নতুন বই তুলতে গেলে অজ্ঞাত কারণে নতুন বই আর দেয়া হয়নি। বরং মায়ের বই আনতে গেলে শহীদ সন্তানের সাথে দুর্ব্যবহার করা হয় বলে অভিযোগ আছে।

লক্ষ্মণপুর হলো সালামনগর, পাঁচুয়া হলো জব্বারনগর, পাড়িল গ্রাম রূপান্তরিত হলো রফিক নগরে। কিন্তু ভাষা শহিদদের পরিবারে বহে না সেই নগরায়নের হাওয়া। ২০২০ সালে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের ভাষা শহিদদরে প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন ব্যানারে ছবি দেয়া হয়েছে বীরশ্রেষ্ঠদের। জাতি নতুন করে জানলো আমাদের চেতনার রঙ কেমন। কবি শামসুর রহমানের ভাষায় –
‘এ রঙের বিপরীতে আছে অন্য রঙ
যে রঙ লাগে না ভালো চোখে ,
যে রঙ সন্ত্রাস আনে প্রাত্যহিকতায় আমাদের মনে
সকাল সন্ধ্যায়। ‘

৮ ফাল্গুন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ শহিদ দিবস ছিলো। শহিদদের স্মরণে শহিদ মিনারগুলো সেজে উঠেছে নতুন করে। সারা বছরে অবহেলা আর অনাদরে পড়ে থাকা শহিদ মিনারে যেন নতুন প্রাণ সঞ্চার হলো। কিন্তু তাঁর স্থায়িত্ব কতটুকু? পুষ্পস্তবক অর্পণের পর একবছরের জন্য বিদায়? নাকি অন্য কোনো দিবস? ফুলে ফুলে সাজানো শহিদ মিনার কি নিরবে কাঁদে? সে কান্না কে শুনে? আমাদের দেয়া ফুলগুলো তার জন্য বোঝা না তো?

লেখক:

মোঃ শাহাদাত হুসাইন
শিক্ষার্থী,
ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগ
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়
স্যার এফ.রহমান হল, চবি ।

আর পড়তে পারেন