শুক্রবার, ১লা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ভয়ানক গাঁজার আখড়া কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ১, ২০১৮
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ
শহীদদের স্মৃতির প্রতি সম্মান জানিয়ে স্থাপীত হয়েছে শহীদ মিনার। সেই স্মৃতিস্তম্ভের ঠিক সম্মুখে মূল বেদীর মাঝখানে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে অনেকগুলো কাগজ-পত্রিকা। এসবের আশেপাশেই যথেচ্ছ পড়ে আছে সিগারেট-গাঁজার খোলা তামাক, বিড়ি-সিগারেটের খোসা, চানাচুরের প্যাকেট, পানির খালি বোতল ইত্যাদি। যে কেউ দেখলেই বুঝবে, রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার কলঙ্কিত ও অপবিত্র হয়েছে শিক্ষার্থী নামক কিছু বিপথগামী নেশাখোরদের বিকৃতিমনা অভ্যাসে। এ যেন রীতিমত কোনো এক ভয়ানক গাঁজার আখড়া!

বলছিলাম কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের কথা। বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ভাষ্যমতে, শুধু দু-একদিন নয়, প্রায়শই শহীদ মিনারের এমন চিত্র চোখে পড়ে তাদের। এসব দেখে শিক্ষার্থীদের কেউ কেউ দায়িত্ব মনে করে এগুলো নিজহাতে পরিষ্কার করেন। কেউ বা এড়িয়ে চলে আসেন না দেখার ভান করে।

সচেতন শিক্ষার্থীরা একাধিকবার এসব বিষয়ে অভিযোগ করলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে দৃশ্যমান কোনো ব্যবস্থা নিতে দেখা যায়নি বলে অভিযোগ তাদের। প্রশাসনিক আইনগতভাবে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় একটি ধূমপানমুক্ত ক্যাম্পাস।

এমনকি প্রতিবছর ভর্তির সময় বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ধূমপান করবেন না বলে অঙ্গীকারনামা দিয়ে শিক্ষার্থীরা ভর্তি হলেও বিশ্ববিদ্যালয় অভ্যন্তরের শহীদ মিনারে গাঁজার আসর কিভাবে চলে? উদ্বেগ প্রকাশ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস (এআইএস) বিভাগের শিক্ষার্থী মো. রুহুল আমিন বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গাঁজার আসর চলে এর চাইতে লজ্জাজনক ব্যাপার আর কিছু হতে পারে না। রাতের বেলা শহীদ মিনারে পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা করে এসব অনাচার বন্ধ করা হোক।’ দাবি তার।

ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং বিভাগের শিক্ষার্থী সঞ্জয় দাস বলেন, ‘গাঁজা সেবন করাই যেখানে শাস্তিযোগ্য অপরাধ, সেখানে বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে কিভাবে গাঁজার আসর বসে? প্রশাসনের এদিকে নজর দিয়ে শহীদ মিনারে নিরাপত্তাকর্মী নিয়োগ দেয়া উচিত।’

শিক্ষার্থীরা আরও জানান, মূলত রাতের বেলা নিরাপত্তা কর্মীর অনুপস্থিতি ও কোনো ধরনের আলোর ব্যবস্থা না থাকাতেই এ ধরনের অনৈতিক কাজগুলো হচ্ছে শহীদ মিনারে।

জানতে চাইলে বিশ্বাবদ্যালয়ে নিরাপত্তা কর্মকর্তা মো: সাদেক হোসেন মজুমদার বলেন, ‘বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিয়ে শহীদ মিনারে লাইটিং ও সিকিউরিটি গার্ডের ব্যবস্থা করতে বিশ্ববিদ্যালয় রেজিস্ট্রারকে জানাবো।’

বিশ্ববিদ্যালয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা ড. দুলাল চন্দ্র নন্দী বলেন, ‘শহীদ মিনারের মতো মর্যাদাপূর্ণ জায়গায় এ ধরনের ঘৃণিত কাজ কাম্য নয়। আমি উর্ধ্বতন প্রশাসনের সাথে কথা বলে এ বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নিবো।’

এসব অনাচার ও অনৈতিক কাজে যারা জড়িত তাদের খুঁজে বের করতে চেষ্টা চলবে জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর ড. কাজী মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন বলেন, ‘শহীদ মিনার আমাদের সর্বোচ্চ সম্মানের জায়গা। এখানে এসব গর্হিত কাজ গুরুতর অপরাধ। যেহেতু এসবের সাথে অর্থের সম্পর্ক আছে তাই নেশা করতে অন্যান্য অপরাধও হতে পারে। তাই এসব রোধ করতে শহীদ মিনারে পর্যাপ্ত আলো ও নিরাপত্তা প্রহরী রাখা হবে।’

আর পড়তে পারেন