শুক্রবার, ২১শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

মনোহরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন: কেন্দ্র দখল ও সংঘর্ষের আশংকা, ভোটাররা আতংকে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ৭, ২০২৪
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:

৮ মে অনুষ্ঠিত হচ্ছে কুমিল্লার লাকসাম, মনোহরগঞ্জ ও মেঘনা উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। অপরদিকে একই দিনে নাঙ্গলকোট উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও নির্বাচন কমিশন এ উপজেলার ভোটগ্রহণ স্থগিত করেছেন। ফলে এ উপজেলায় আজ ভোট হচ্ছে না।

মনোহরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন জমে উঠেছে। উৎকন্ঠা, আশংকা বিরাজ করছে উপজেলাজুড়ে। কেন্দ্র দখলের আশংকাও রয়েছে প্রবল।

৮ মে মনোহরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।এ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ জাকির হোসেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মোঃ আবদুল মান্নান চৌধুরী, বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মোসাঃ আফরোজা কুসুম।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান ( স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলামের ভাতিঝা) মোঃ আমিরুল ইসলাম, মোঃ মনিরুজ্জামান। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে শিরিন আক্তার ও বিলকিছ আক্তার নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন।

চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীরা সবাই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত।বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ জাকির হোসেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর আস্থাভাজন। কিন্তু অপর প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মোঃ আবদুল মান্নান চৌধুরীও মাঠে সক্রিয় রয়েছেন। তাকে সমর্থন করে যাচ্ছেন এল জি আর ডি মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম এর উন্নয়ন সমন্বয়ক মোঃ কামাল হোসেন ।
স্থানীয় সরকার মন্ত্রী কারো পক্ষে না থাকলেও উন্নয়ন সমন্বয়ক মোঃ কামাল হোসেন যেহেতু চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ আবদুল মান্নান চৌধুরীর জন্য কাজ করছেন সেহেতু পক্ষপাতিত্বের বিষয়টি রয়েই যায়। এছাড়া এ প্রার্থীর পক্ষে মনোহরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম চৌধুরী ও জেলা পরিষদের সদস্য, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ আমিরুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মাস্টার সোলাইমান ,উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবুল কালাম আজাদ , উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল বাশার,উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আবদুল আজিজ , উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক দেওয়ান জসীমউদ্দীন, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুজ্জামান শামীম, সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেন বিপ্লব রয়েছেন বলে জানা গেছে। তারা এক সাথে প্রচারণা চালাচ্ছেন। আবার চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ আবদুল মান্নান চৌধুরীকে উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রার্থীও ঘোষণা করছেন।
ফলে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড এ উপজেলায় থাকছে না বলে স্খানীয় একাধিক সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান। অনেকে আশংকা করছেন ভোটের আগে কোন প্রকার সংঘর্ষ না হলেও ভোটের দিন কেন্দ্র দখলের প্রবল আশংকা রয়েছে। ফলে ভোটাররাও আতংকিত হয়ে আছেন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, এ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অন্তত ৭০টি ভোট কেন্দ্র অধিক ঝুঁকিপূর্ণ। এগুলো ভোটের দিন দখল হওয়ার আশংকা রয়েছে। এর মধ্যে লক্ষণপুর ইউনিয়ন, বিপুলাসার ইউনিয়ন, হাসনাবাদ ইউনিয়ন, সরসপুর ইউনিয়ন, খিলা ইউনিয়ন, ঝলম দক্ষিণ ইউনিয়ন, মৈশাতুয়া ইউনিয়নগুলো প্রবল ঝুঁকিপূর্ন।
স্থানীয় সূত্র আরো জানায়, এসব ইউনিয়নে ভোটকেন্দ্রে যেতে ভোটারদের বাঁধা প্রদান করা হবে , কেন্দ্র দখল, দলীয় প্রভাব, হুমকি-ধমকি প্রদান করা হবে। আনারস প্রতিকের প্রার্থী মোঃ জাকির হোসেনের পক্ষে প্রচারণা করায় সম্প্রতি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রবিউলকে বিপুলাসার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইকবালের নেতৃত্বে বাড়ি থেকে তুলে নেয়া হয়। তারা তাকে শারিরীক ও মানসিক নির্যাতন করে আনারসের পক্ষে কাজ করা থেকে বিরত থাকতে বলেন। তারা রবিউলকে বলেন, টেবিলের উপর দেখিয়ে ভোট হবে। আনারসের পক্ষে কাজ না করার শর্তে তাকে ছাড়া হয়েছে। রবিউল জানায়, আনারসের পক্ষে কাজ করলে আমার দোকান আগুনে পোড়ানো হবে এবং ৮ তারিখের পর আমাকে খুন করা হবে। আমি চরম আতংকে আছি। তারা বলেছে, কোন কেন্দ্রে ভোট হবে না। আনারসের পক্ষে কেউ কাজ করতে পারবে না।

এদিকে ভোট হওয়ার আগেই উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জাকির হোসেনের নেমপ্লেট খুলে ফেলা হয়েছে উপজেলা চেয়ারম্যানের কক্ষের সামনে থেকে। গত এক সপ্তাহ পূর্বে উপজেলা নির্বাহী অফিসার উজালা রানী চাকমার নির্দেশে অফিস সহকারি শাহজাহান মিয়া এ নেমপ্লেট সরিয়ে ফেলেন বলে অভিযোগ পাওয়া যায়।
অফিস সহকারি শাহজাহান জানান, আমি একজন সাধারণ কর্মচারি। আমার এতবড় সাহস নেই নিজের ইচ্ছেই নেমেপ্লট খোলার। আমি ইউএনও স্যারের নির্দেশে এক সপ্তাহ পূর্বে উপজেলা চেয়ারম্যান স্যারের নেমপ্লেট খুলেছি।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার উজালা রানী চাকমা জানান, আমি কাউকে নির্দেশ দেইনি নেমপ্লেট খোলার জন্য । স্টাফ নেমপ্লেট খুলেছে। নির্বাচন চলাকালিন সময়ে জনপ্রতিনিধিরা অফিস, গাড়ি, সরকারি বাড়ি ব্যবহার করতে পারে না। কেউ যাতে এসে চেয়ারম্যানের কক্ষে প্রবেশ করতে না পারে সেজন্য হয়তো নেমপ্লেট খুলেছে। তবে আমি খোলার জন্য নির্দেশ দেইনি।

উল্লেখ্য যে, ভোট শেষ হওয়ার পর জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হওয়ার আগে পুরাতন জনপ্রতিনিধির নেমপ্লেট মূলত খুলে ফেলা হয় না। তবে মনোহরগন্জের এ ঘটনায় উপজেলাজুড়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। এতে সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ নষ্ট হতে পারে কিংবা নির্বাচন এক পেশে হওয়ার ইংগিত বহন করছে বলে স্থানীয়রা মনে করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ভোটার জানান, মনোহরগঞ্জ উপজেলায় নির্বাচনে আতংক বিরাজ করছে। বেশিরভাগ ভোটকেন্দ্র দখল হওয়ার আশংকা রয়েছে। ভোটকেন্দ্রে না যাওয়ার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে।

ভোটের সার্বিক পরিস্থিতি সর্ম্পকে চেয়ারম্যান প্রার্থী মোহাম্মদ জাকির হোসেন বলেন, আমাদের মন্ত্রী মহোদয় বলেছেন- সুষ্ঠু নির্বাচন হবে। তিনি কারো পক্ষে না। দলের প্রার্থী কেউ না। আমিও দলের প্রার্থী না। কিন্তু মন্ত্রী মহোদয়ের অগোচরে উনার নাম ভাংগিয়ে একটা গ্রুপ নির্বাচনের পরিবেশ ঘোলাটে করছে। তারা মান্নান সাহেবকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ঘোষণা করছে। আমার নেতাকর্মীদের ধরে নিয়ে মারধর করছে। কেন্দ্রে যেতে নিষেধ করছে। সকল কেন্দ্র দখল করবে বলে জানাচ্ছে। এভাবে কি সুষ্ঠু নির্বাচন হবে ? সম্ভব না। এখানে সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ নেই।

আর পড়তে পারেন