বুধবার, ২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

মাকে বাঁচাতে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ছাত্রের আকুতি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৮
news-image

মাসুদ হোসেন :
দুই ছেলে ও দুই মেয়ের জননী মর্জিনা খাতুন (৫২)। স্বামী আবদুর রহিম পেশায় একজন ভ্যান চালক। দুই মেয়ের বিয়ে দেওয়ার পর স্বামীর আয়ে চলছিল দুই ছেলে মানিক হোসেন রিপন ও মামুন হোসেনের লেখাপড়াসহ সংসারের যাবতীয় খরচ। টানাপড়েনের সংসারে তারপরও সুখের কমতি ছিলো না এতটুকুঅভাবের সংসারে পড়াশোনা চালিয়ে যেতে থাকে তাদের দুই ছেলে। হঠাৎ সেই সুখের সংসারে হানা দিলো মর্জিনা খাতুনের জরায়ু ক্যান্সার। সহায় সম্বল বিক্রি করে চিকিৎসা করাতে গিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়ে পরিবারটি। বন্ধ হয়ে যায় অনার্স পড়ুয়া ছোট ছেলে মামুনের লেখাপড়া (বর্তমানে গার্মেন্টস কর্মী)।

এদিকে শত কষ্টের মাঝেও ভ্যান চালিয়ে ও টিউশনি করে পড়াশোনা চালিয়ে যান পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে মাস্টার্স পড়ুয়া (শেষ বর্ষ) এবং ওই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক ত্রাণ ও দুর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক মানিক হোসেন রিপন। যখনই কোন রোগীর জ্বরুরী ভিত্তিতে রক্তের প্রয়োজন হয়েছে সেখানেই এগিয়ে গেছেন মানিক। জীবন বাঁচিয়েছেন বহু মানুষের। আজ সেই ছেলেই মাকে বাঁচাতে ছুটছেন মানুষের দ্বারে দ্বারে। চিকিৎসক বলেছেন সুস্থ হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে মর্জিনা খাতুনের। এরজন্য কমপক্ষে প্রয়োজন ৫ থেকে ৬ লাখ টাকা। তবে চিকিৎসার এ ব্যয় বহন করা সম্ভব হচ্ছে না অসহায় পরিবারটির পক্ষে।

পাবনার চাটমোহর উপজেলার ছাইকোলা ইউনিয়নের কাটেঙ্গা উত্তরপাড়া গ্রামের এই দরিদ্র পরিবারে এখন কাল মেঘের ছায়া। এর আগে মানিক হোসেন সহপাঠী ও জনপ্রতিনিধিদের কাছ থেকে আর্থিক সহযোগিতা নিয়ে প্রথমে পাবনা সদর হাসপাতাল, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং পরে ঢাকার আনোয়ারা ক্লিনিকে চিকিৎসা করান। চিকিৎসা ও চারটি কেমোথেরাপি দিতে এখন পর্যন্ত লক্ষাধিক টাকা ব্যয় করেছেন। আরও কয়েকবার দিতে হবে ব্যয় বহুল কেমোথেরাপি। এরপর করাতে হবে অস্ত্রোপচার। বর্তমানে মর্জিনা খাতুন রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের প্রভাষক ও ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ ডা: অসীম কুমারের তত্ত্বাবধায়নের চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

মানিক হোসেন রিপন বলেন, ‘অসহায় এই ছেলের কাছে মায়ের চিকিৎসার খরচ জোগানো দুরুহ বিষয়। জানি না কত দিনে মায়ের উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে পারবো। তবে আমি আমার মাকে বাঁচাতে চাই। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীও একজন মা। আমি জানি আমার এই আকুতি তাঁর কাছে পৌঁছালে তিনি আমার মায়ের জন্য একটা ব্যবস্থা করবেন’।

মানিকের পরিবারকে সাহায্য পাঠাতে : বিকাশ- ০১৭৪৪৩১০০৬৯

আর পড়তে পারেন