মঙ্গলবার, ২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

মিচেল স্টার্কের মোটা অঙ্কের বেতন নিয়ে যা বললেন কলকাতার সিইও

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ২৩, ২০২৪
news-image

ডেস্ক রিপোর্ট:

হাত ঘুরালেই প্রতিটি বৈধ বলের জন্য পাবেন সাড়ে সাত লাখ রূপি। সেটাও কলকাতা নাইট রাইডার্স ফাইনাল পর্যন্ত খেললে। মিচেল স্টার্কের রেকর্ড গড়া নিলামের পরেই হয়ে গিয়েছিল এমন গণনা। বিপরীতে স্টার্ক দলকে খুব বেশি কিছু ফিরিয়ে দিতে পেরেছেন এমন বলা চলে না। বরং কিছুটা হতাশ সকলে তার পারফরম্যান্স নিয়ে।

এখনও পর্যন্ত সাতটি ম্যাচ খেলেছেন আইপিএলে। ২৫ ওভার বল করে ২৮৭ রান হজম করেছেন। নিয়েছেন মাত্র ৬টি উইকেট। প্রতি উইকেটের জন্য খরচ করেছেন প্রায় ৪৮ রান। ওভারপ্রতি দিয়েছেন ১১.৪৮ রান। আইপিএলে তাই ক্রমাগত সমালোচনার মুখে পড়েছেন মিচেল স্টার্ক। নিলামে ২৪ কোটি ৭৫ লাখ রুপির দাম নিয়েও চলছে সমালোচনা।

তবে কেকেআর টিম ম্যানেজমেন্ট তার ওপরেই আস্থা রাখছেন। চন্দ্রকান্ত পণ্ডিত আর গৌতম গম্ভীরের দলে নিয়মিত জায়াগা পাচ্ছেন। অধিনায়ক শ্রেয়াশ আইয়ারও ভরসা রেখেছেন তার ওপর। এমনকি ফ্র্যাঞ্চাইজ কর্তৃপক্ষও তার পাশেই রয়েছেন।

সোমবার এক অনুষ্ঠানে স্টার্কের পাশে দাঁড়িয়েছেন কেকেআরের সিইও বেঙ্কি মাইসোর। কলকাতা টিমের এই উচ্চপদস্থ কর্তার বক্তব্য, টাকা দিয়ে স্টার্কের প্রতিভা বিচার করা যায় না।

বেঙ্কির মন্তব্য স্টার্কের পেছনে খরচ করা অর্থ নিয়ে মাথা ঘামাচ্ছে না কেকেআর, ‘স্টার্ক মহাতারকা। দারুণ ক্রিকেটার। আমরা ওর পিছনে বিনিয়োগ করা টাকার অঙ্ক কখনও দেখি না। নিলামে অনেক কিছুই হতে পারে, যা ক্রিকেটারদের নিয়ন্ত্রণে থাকে না। কারও নিয়ন্ত্রণেই থাকে না। আমাদের মনে হয়েছে স্টার্কের মতো বোলার দলে এলে অনেক লাভ হবে। সেটা হয়েছেও। দলে ওর উপস্থিতি অন্য বৈচিত্র‍্য এনে দিয়েছে। সাপোর্ট স্টাফেরা ওর মতো দক্ষতার কোনও বোলার চাইছিলেন। আমরা সেটা এনে দিয়েছি।”

রবিবার স্টার্কের শেষ ওভারে তিন ছয় মেরেছেন করণ শর্মা। তিন ওভারে তিনি ৫৫ রান দিয়েছেন। বেঙ্গালুরুর বিপক্ষে ম্যাচটা হাত ফসকে যাচ্ছিল কলকাতার। এসবের পরেও অবশ্য স্টার্কের পাশেই আছেন বেঙ্কি, ‘খেলায় উত্থান-পতন থাকবেই। অনেক বোলারকেই ছয় হজম করতে হয়। আবার অনেক সময় তারাই দলকে ম্যাচ জেতায়। স্টার্ক দলে আসায় আমরা খুবই খুশি।’

বেঙ্কি প্রশংসা করেছেন গৌতম গম্ভীরেরও, ‘দলের ধারাবাহিকতা আগের থেকে বেড়েছে। এ বার অনেক ভারসাম্য রয়েছে দলে। গম্ভীরের জন্যই যে দল বদলে গিয়েছে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। ওর এবং চন্দু (কোচ চন্দ্রকান্ত পণ্ডিত)-র জন্য দলের জয়ের ক্ষুধা অনেক বেড়ে গিয়েছে।’

আর পড়তে পারেন