বৃহস্পতিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

মেয়র প্রার্থী সাক্কুর ২৭ দফা ইশতেহার ঘোষণা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ২৪, ২০১৭
news-image

 

তাওহিদ হোসেন মিঠুঃ

কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ২৭ দফা নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছেন বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী সাবেক মেয়র মনিরুল হক সাক্কু। ইশতেহারের বেশি ভাগ দফা জুড়ে ছিল অতীত উন্নয়ন কাজের ধারাবাহিকতা রক্ষার প্রতিশ্রুতি। এছাড়া আওয়ামীলীগ প্রার্থী আঞ্জুম সুলতনা সীমার ইশতেহারের প্রথম তিন দফার মত সাক্কুর ইশতেহারের প্রথম তিন দফায়ও উঠে এসেছে নগরীকে জলাবদ্ধতা ও যানজট মুক্ত করন এবং হোল্ডিং ট্যাক্স না বাড়ানোর প্রতিশ্রুতি।

শুক্রবার (২৪ মার্চ) বিকাল সাড়ে ৩টায় নগরীর ধর্মসাগর দীঘির দক্ষিণ পাড়ে অবস্থিত নির্বাচনী কার্যালয়ে সাংবাদিকদের উপস্থিতে তিনি নির্বাচনী ইশতেহার পাঠ করেন।

মেয়র প্রার্থী সাক্কু নির্বাচনী ইশতেহারে উল্লেখ করেন, নতুন এক সিটি কর্পোরেশনের মেয়র হিসাবে ৫ বছর দায়িত্ব পালন শেষে বুকে সাহস নিয়ে অন্ততঃ একথা বলতে পারি- আমার দ্বারা কারো অকল্যাণ হয়নি। সিটি কর্পোরেশনকে আমি রাজনৈতিক দলের প্রতিষ্ঠানে পরিণত করিনি। আমার কোন আতœীয়- বন্ধু আমার পদ-পদবীর সুবাদে গণবিরোধী কোন কাজ করার সুযোগ পায়নি। আমার পরিবারের কেউ সন্ত্রাসে লিপ্ত হয়ে জনগণের ত্রাসে পরিণত হয়নি।
গত ৫ বছরে এই নতুন সিটি কর্পোরেশনের ৪৩১ কোটি ২৭ লক্ষ টাকার উন্নয়ন কাজ করা হয়েছে। আমার অন্যতম প্রধান পদক্ষেপ ছিল কুমিল্লা শহরকে জলাবদ্ধতা ও যানজটের অভিশাপ থেকে মুক্ত করার লক্ষ্যে পরিকল্পিত ও স্থায়ী ব্যবস্থা নেয়া। আগামীতে আরো ২টি ফ্লাইওভার নির্মানের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। আগামিতেও কোন নাগরিকের হোল্ডিং ট্যাক্স বৃদ্ধি করা হবে না। ২২ নং ওয়ার্ড হাজী আক্রামউদ্দিন স্কুল এন্ড কলেজ এবং ২৭নং ওয়ার্ডের চৌয়ারা উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের নির্মাণ কাজের কার্যাদেশ দেয়া হয়েছে। মহানগর সদর দক্ষিন এলাকায় উপমহাদেশের প্রথম মুসলিম নারী নওয়াব ও সমাজ সেবিকা নওয়াব ফয়জুন্নেসা চৌধুরাণীর নামে একটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করার উদ্যোগ নেয়া হবে।
লালমাই ও ময়নামতি পাহাড়ের আদিবাসী নৃতাত্বিক জনগোষ্ঠী ত্রিপুরাদের জন্য মাতৃভাষা কেন্দ্র স্থাপন করা হবে।
উপমহাদেশের কিংবদন্তী সংগীতজ্ঞ শচীন দেব বর্মনের নামে কুমিল্লা নগরে একটি সংগীত কলেজ স্থাপন করা হবে।
কুমিল্লা মহানগরের পূর্বাঞ্চলে কুমিল্লা প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় অথবা কুমিল্লা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হবে। নগরের দক্ষিণাঞ্চলে মেয়েদের জন্য ২টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা হবে। এখানে ১ম শ্রেণী থেকেই লেখাপড়ার সুযোগ থাকবে। নগরীর পশ্চিম অংশে ছেলেদের জন্য ১টি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করা হবে।
নগরের শিল্প, সাহিত্য, ও সংস্কৃতি কর্মীদের জন্য “নগর সংস্কৃতি চর্চা কেন্দ্র” স্থাপন করা হবে। নগরের ২৭টি ওয়ার্ডে সেইসব ওয়ার্ডের মুক্তিযোদ্ধা, শিক্ষাবিদ, সংস্কৃতিকর্মী, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, আইনজীবি, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী, উন্নয়ণকর্মী, নারী নেত্রী এবং রাজনীতিবিদদের মধ্যে কীর্তিমানদের নামে একটি করে পাঠাগার স্থাপন করা হবে।
পুরাতন গোমতী নদীতে ডাকার হাতীর ঝিলের আদলে একটি বিনোদন কেন্দ্র গড়ার লক্ষ্যে লরপধ র অর্থায়নে প্রায় ২০০ কোটি টাকার প্রকল্প গ্রহন করা হয়েছে, যা শীঘ্রই বাস্তবায়িত হবে। মা ও শিশুদের চিকিৎসার জন্য নগরীতে ৮টি নগর স্বাস্থ্যকেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে উপযুক্ত ডাক্তার, নার্স,চিকিৎসা সামগ্রী, যন্ত্রপাতি ও এ্যাম্বুলেন্স সমৃদ্ধ স্বাস্থ্য কেন্দ্র স্থাপন করা হবে। কর্মজীবি নারীদের জন্য ইপিজেড এলাকাসহ নগরীর বিভিন্ন অঞ্চলে স্বাস্থ্যসম্মত হোস্টেল স্থাপন করা হবে। রিসাইকিলিংয়ের মাধ্যমে বর্জ্যকে সম্পদে পরিণত করার জন্য ইতিমধ্যেই নবীরসপড় ও ঝঊখ এর সাথে চুক্তি চূড়ান্ত করা হয়েছে। অতিশীঘ্রই এই কাজ শুরু হলে বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় যুগান্তকারী পরিবর্তন আসবে। মহানগরীর দক্ষিণাঞ্চলে উন্নয়নের জন্য ইতিমধ্যে ১০০ কোটি টাকা ব্যয় করা হয়েছে । এই অঞ্চলের অবশিষ্ট সব রাস্তা ও ড্রেন পাকা করার মাধ্যমে যাতায়াত ব্যবস্থা উন্নয়নের লক্ষ্যে ঔওঈঅ, গএঝচ এবং ইচচ সহযোগিতায় ৩০০ কোটি টাকার মহা পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। শীঘ্রই তা বাস্তবায়ন শুরু হবে ইনশাল্লাহ্ ।
নিউ মার্কেটের ৫ম তলায় একটি আই. টি. সেন্টার গড়ে তোলার জন্য বাংলাদেশ কম্পিউটার এসোসিয়েশনের সাথে চুক্তি করা হয়েছে। আগামী ৬ মাসের মধ্যে নগরের জনগন বিশেষ করে যুব সমাজ এর ফল ভোগ করতে পারবেন।
নগরের পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের আবাসন নিশ্চিত করার জন্য উচচ র প্রকল্প এর অর্থায়নে প্রায় ১৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ৫ম তলা আধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্বলিত ভবন নির্মানের প্রকল্প গ্রহন করা হয়েছে।
নিউ মার্কেট আধুনিকরণের নকশা চূড়ান্ত করা হয়েছে । রাজগঞ্জ, রানীর বাজার ও চকবাজারের আধুনিকরণের নকশা চূড়ান্ত করা হয়েছে । মুক্তিযোদ্ধাদের হোল্ডিং ট্যাক্স এবং পানির বিল হ্রাস করা হয়েছে । ভবিষ্যতে মওকুফ করার ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ইশতেহার ঘোষণার সময় উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও সাবেক চীফ হুইপ জয়নাল আবেদিন ফারুক, বিএনপির উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য মনিরুল হক চৌধুরী, প্রচার স¤পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, সাংগঠনিক স¤পাদক ফজলুল হক মিলন ও এমরান সালেহ প্রিন্স, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হাজী আমিনুর রশীদ ইয়াছিন প্রমুখ।

আর পড়তে পারেন