মঙ্গলবার, ৫ই মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

মৌমাছির বাস মুখের দাড়িতে! (ভিডিও)

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ৩, ২০১৬

মোহাম্মদ হাগ্রাস কয়েক ডজন মৌমাছি তার মুখমন্ডলে নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এমন বিস্ময়কর কাজটি করছে মিশরের রাজধানী কায়রোর বাসিন্দা হাগ্রাস নামের এ যুবক।
হাগ্রাস এই মৌচাকের নাম দিয়েছেন ‘মৌমাছির দাড়ি’। খালিগায়ের হাগ্রাসের থুতনির নিচে দাড়ির মতো মৌমাছির চাক ঝুলে আছে।
৩১ বছর বয়সি এই প্রকৌশলী প্রায় এক বছর ধরে প্রতিযোগিতামূলক মৌমাছি পালনের কাজ শুরু করেন। এর আগে মৌমাছি পালনসংক্রান্ত এক প্রদর্শনীতে কানাডীয় এক মডেলের মৌমাছির বিকিনি পরা দেখেছিলেন হাগ্রাস। সেটা দেখেই উৎসাহী হয়েছেন বলে জানান তিনি। একই সঙ্গে মৌমাছির প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে মিশরীয়দের মাঝে সচেতনতা বাড়াতে এই পদ্ধতি অবলম্বন করেন।
তিনি জানান, মৌমাছি যে হিংস্র বা আক্রমণাত্মক নয় সেটা দেখানোও তার উদ্দেশ্য। তিনি মৌমাছি পালনসংক্রান্ত মিশরীয় কৃষি উৎসবে তিনি অংশ নেবেন। তবে এর আগেই তিনি তার খামারে এর প্রদর্শনী করেন।
হাগ্রাস জানান, তার খামার মনোফিয়া রাজ্যের রাজধানী নাইল ডেলটার শেবিন এল কমে। মৌমাছি সহায়ক প্রাণী। এ ছাড়া তারা এমন কিছু পদার্থ উৎপাদন করে যা মানুষ ও কৃষির জন্য উপকারী।
তিনি জানান, মৌমাছিগুলোকে আকৃষ্ট করতে হাগ্রাস তার থুতনিতে রানি মৌমাছির হরমোন ব্যবহার করেন। তিনি একটি বাক্সের মধ্যে রানি মৌমাছি আটকে রাখেন। মৌমাছির মৃত্যুর পর সেখান থেকে তার হরমোন সংগ্রহ করেন। এরপর সেগুলো ব্যবহার করে অন্যান্য মৌমাছিকে আকৃষ্ট করেন। এরপর মৌমাছিরা তার থুতনির নিচে দাড়ির আকৃতির চাক তৈরি করে।
হাগ্রাস জানান, তিনি এর মাধ্যমে বিশ্ব রেকর্ড গড়তে চান। বর্তমান রেকর্ডধারী চীনের নাগরিক, যিনি তার শরীরে মিলিয়নেরও বেশি মৌমাছি ধারণ করেছিলেন। সবগুলো মৌমাছির মোট ওজন ছিল ১১০ কেজি।
মৌমাছি প্রেমী এই যুবক বলেন, মৌমাছি শুধু মধু ও পরাগায়নের জন্য নয়। এটি এক ধরনের ওষুধ হিসেবেও কাজ করে। অনেক লোক আসেন আমার খামারে তাদের বিভিন্ন রোগ সারানোর জন্য।
সূত্র : দি ডেইলি স্টার

https://youtu.be/azmyReUYzGs

আর পড়তে পারেন