শনিবার, ১৩ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

রেকর্ডের পাতায় ২০ বিশ্বকাপ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১৬, ২০১৮
news-image

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু ঃ
কাউন্ট-ডাউন শুরু হয়েছে রাশিয়া বিশ্বকাপের। আগামী ১৪ জুন পর্দা উঠবে বিশ্ব ফুটবলের ২১তম আসরের। ৩২ দেশটি অংশগ্রহণ করছে এ বিশ্বকাপে। বিশ্বমহারণ দেখার আগে চোখ বুলিয়ে নেওয়া যাক বিগত ২০টি বিশ্বকাপের ঘটে যাওয়া কিছু রেকর্ড এর পাতায়।

সবচেয়ে বেশি পাঁচবার বিশ্বকাপ জিতেছে ব্রাজিল (১৯৫৮, ১৯৬২, ১৯৭০, ১৯৯৪ ও ২০০২ সালে)। ১৯৩০ সালে প্রথম বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন লাতিন দেশ উরুগুয়ে।
বিশ্বকাপের ইতিহাসে ১৬টি গোল করে সর্বোচ্চ গোলদাতার জায়গা দখল করে আছেন জার্মানির মিরোশ্লাভ ক্লোসা।
৩ বার বিশ্বকাপ জেতা একমাত্র ফুটবলার পেলে (১৯৫৮, ১৯৬২ ও ১৯৭০)
চূড়ান্ত পর্বে সবচেয়ে বেশি উপস্থিতি ছিল ব্রাজিলের (২০)।
সবচেয়ে বেশি ফাইনাল খেলা দল জার্মানি -৮ বার ।
সবচেয়ে বেশিবার টুর্নামেন্ট খেলে দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠতে না পারা দল স্কটল্যান্ড (৮)।
সবচেয়ে বেশি টানা শিরোপা ; ইতালি (১৯৩৪, ১৯৩৮), ব্রাজিল (১৯৫৮, ১৯৬২)।
সবচেয়ে বেশি টানা ফাইনাল ; (জার্মানি ১৯৮২-১৯৯০), ব্রাজিল (১৯৯৪-২০০২)।
সবচেয়ে বেশি টানা জয় ১১টি ; ব্রাজিল (২০০২-২০০৬)।
সবচেয়ে বেশিবার অংশগ্রহণ ৫ বার; আন্তোনিও কারভাজাল (মেক্সিকো, ১৯৫০-১৯৬৬) ও লোথার ম্যাথাউস (জার্মানি, ১৯৮২-১৯৯৮)।
সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলা ফুটবলার লোথার ম্যাথাউস (জার্মানি, ২৫ ম্যাচ)।
এক ম্যাচে সবচেয়ে বেশি গোল ৫, রাশিয়ার ওলেগ সালেঙ্কো (ক্যামেরুনের বিপক্ষে, ১৯৯৪)।
সবচেয়ে বেশি হ্যাটট্রিক ২টি স্যান্ডর ককসিস (হাঙ্গেরি, ১৯৫৪), জাঁ ফন্টেইন (ফ্রান্স, ১৯৫৮), জার্ড মুলার (জার্মানি, ১৯৭০) ও গ্যাব্রিয়েল বাতিস্তুতা (আর্জেন্টিনা ১৯৯৪ ও ১৯৯৮)।
সর্বকনিষ্ঠ গোলদাতা পেলে (ব্রাজিল, ১৭ বছর ২৩৯ দিন)।
সবচেয়ে কম বয়সে হ্যাটট্রিক পেলে (১৭ বছর ২৪৪ দিন, ব্রাজিল-ফ্রান্স, ১৯৫৮)।
বিশ্বকাপে দ্রুততম গোল : খেলার ১১ সেকেন্ডের মাথায়; ২০০২ সালের বিশ্বকাপে দক্ষিণ কোরিয়ার বিরুদ্ধে তুরস্কের হয়ে গোলটি করেন হাকান সুকুর; তুরস্ক জিতেছিল ৩-১ গোলে।
সবচেয়ে বেশি গোলের ম্যাচ, অস্ট্রিয়া ৭-৫ সুইজারল্যান্ড, ১৯৫৪।
সবচেয়ে বেশি সময় গোল না খাওয়া গোলরক্ষক ওয়াল্টার জেঙ্গা, ৫১৭ মিনিট (ইতালি, ১৯৯০)।
সবচেয়ে বেশি বয়সী কোচ অটো রেহেগাল (৭১ বছর ৩১৭ দিন, গ্রিস ২০১০)।
খেলোয়াড় ও কোচ হিসেবে টুর্নামেন্ট জয়- মারিও জাগালো ও ফ্রাঞ্জ বেকেনবাওয়ার।
দ্রুততম লালকার্ড ৫৬ সেকেন্ড, হোসে বাতিস্তা (উরুগুয়ে-স্কটল্যান্ড, ১৯৮৬)।
এক আসরে সবচেয়ে বেশি গোল – ফ্রান্সের জাঁ ফন্টেইনের, ১৩টি (১৯৫৮)।
বিদেশি কোচ নিয়ে বিশ্বকাপ জিততে পারেনি কোনো দল।
বেঞ্চে থেকেও লাল কার্ড দেখা ফুটবলার – ক্লদিও ক্যানিজিয়া (আর্জেন্টিনা-সুইডেন, ২০০২)

৩ বার বিশ্বকাপ জেতা একমাত্র ফুটবলার পেলে (১৯৫৮, ১৯৬২ ও ১৯৭০)
কোন কোন দেশ এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপ জিতেছে : ব্রাজিল, উরুগুয়ে, জার্মানি, স্পেন, ইংল্যান্ড, ইটালি, ফ্রান্স ও আর্জেন্টিনা।
(একাধিক বিশ্বকাপ মিলিয়ে) সর্বাধিক গোল-১৩টি : জার্মানির মিরোশ্লাভ ক্লোসা ।
বিশ্বকাপে তরুণতম খেলোয়াড় : উত্তর আয়ারল্যান্ডের নর্মান হোয়াইটসাইড, ১৯৮২ সালের বিশ্বকাপে খেলেন তিনি; হোয়াইসাইডের বয়স তখন ১৭ বছর, এক মাস ১০ দিন।
বিশ্বকাপে প্রবীণতম খেলোয়াড় : ক্যামেরুনের রজার মিলা, ১৯৯০ সালের বিশ্বকাপে খেলেন; তখন তাঁর বয়স ৪২ বছর, এক মাস, আট দিন।
১৯৪২ ও ১৯৪৬ সালে বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয়নি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কারণে৷
ব্রাজিল তাদের ফুটবল ইতিহাসে সবচেয়ে বড় পরাজয়ের রেকর্ড , ২০১৪ সালে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে জার্মানীর বিপক্ষে ৭-১ গোলের পরাজয়। বিশ্বকাপের সেমি-ফাইনালে এর আগে কোনো দল প্রথমার্ধে ৫ বা তার বেশি গোল খায়নি। বিশ্বকাপের সেমি-ফাইনালে সবশেষ ৬ বা তার বেশি গোল করা দল পশ্চিম জার্মানি। ম্যাচের ২৯তম মিনিটেই ৫-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় জার্মানি। বিশ্বকাপের ইতিহাসে এটাই দ্রুততম ৫ গোলের রেকর্ড।
২২৪ গোল নিয়ে ব্রাজিলকে পেছনে ফেলে বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ গোল করা দল এখন জার্মানি।
বিশ্বকাপ ফাইনালে সর্বোচ্চ গোলের রেকর্ড: ১৯৬৬ বিশ্বকাপ ফাইনালে জার্মানির বিপক্ষে এক ম্যাচে সর্বোচ্চ তিন গোল করার রেকর্ড ইংল্যান্ডের জিওফ হার্স্টের।
একাধিক ফাইনালে গোল: একাধিক ফাইনালে গোল করার গৌরব অর্জন করতে পেরেছেন এই পর্যন্ত চারজন খেলোয়াড়। এরা হলেন – ব্রাজিলের ভাভা ও পেলে এবং ফ্রান্সের জিনেদিন জিদান ও জার্মানির পল ব্রেইটনার।

বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ হ্যাটট্রিক: বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি হ্যাটট্রিক হাঙ্গেরির সান্দোর কোসিস, ফ্রান্সের জাস্ট ফন্টেইন, জার্মানির গার্ড মুলার ও আর্জেন্টিনার গ্যাব্রিয়েল বাতিস্তুতার। প্রত্যেকের ঝুলিতেই রয়েছে দুটি করে হ্যাটট্রিক।
বিশ্বকাপের সবচেয়ে দ্রুততম হ্যাটট্রিক: হাঙ্গেরীর লাসজোলো ১৯৮২ বিশ্বকাপে মাত্র ৮ মিনিটেই হ্যাটট্রিক করেছেন। এই ম্যাচে তিনি বদলি হয়ে নেমে সবচেয়ে বেশি গোলের রেকর্ড গড়েন।
বিশ্বকাপের সবচেয়ে দ্রুততম গোলের মালিক: তুরুস্কের হাকান সুকুর খেলা শুরুর মাত্র ১১ সেকেন্ড পর গোল করেন। অন্যদিকে বদলি হিসেবে নেমে সবচেয়ে দ্রুত গোল সান্ড’র। নাইজেরিয়ার এই তারকা ১৬ সেকেন্ডেই গোল করেন।

বিশ্বকাপে শীর্ষ গোলদাতার জন্য গোল্ডেন শু বা গোল্ডেন বুট প্রথম দেয়া হয় ১৯৩০ বিশ্বকাপে। সাম্প্রতিককালে, রুপালী জুতা ও ব্রোঞ্জ জুতা দেয়া হচ্ছে দ্বিতীয় ও তৃতীয় সেরা গোলদাতা।
শ্রেষ্ঠ খেলোয়াড়ের জন্য গোল্ডেন বল প্রথম দেয়া হয় ১৯৮২ বিশ্বকাপে। রুপালি বল ও ব্রোঞ্জ বল দেয়া হয় দ্বিতীয় ও তৃতীয় সেরাদের।

শ্রেষ্ঠ গোলরক্ষকের জন্য ইয়াসিন গোল্ডেন গ্লাভস পুরস্কার প্রথম দেয়া হয় ১৯৯৪ বিশ্বকাপে।
ফিফা ফেয়ার প্লে ট্রফি (যে দলের ক্রীড়া আচরণ সবচেয়ে ভাল তাদের জন্য) প্রথম দেয়া হয় ১৯৭৮ বিশ্বকাপে।

মোস্ট এন্টারটেইনিং টিম (যে দলের খেলা দর্শকদের সবচেয়ে আনন্দ দেয় তাদের জন্য, দর্শক ভোটে নির্ধারন করা হয়।) প্রথম দেয়া হয় ১৯৯৪ বিশ্বকাপে)।
শ্রেষ্ঠ তরুণ খেলোয়াড় (২১ বছরের কমবয়সী খেলোয়াড়দের মধ্যে সেরা খেলোয়াড়কে দেয়া হয়) (প্রথম দেয়া হয় ২০০৬ বিশ্বকাপে) ।
শ্রেষ্ঠ খেলোয়াড়দের বাছাই করে বিশ্বকাপের শেষে একটি দল ঘোষণা করা হয়, যেটি ১৯৯৮ বিশ্বকাপ থেকে চালু হয়েছে।

পশ্চিম জার্মানীর ফ্রাঞ্জ বেকেনবাওয়ার, একমাত্র ব্যক্তি যিনি অধিনায়ক (১৯৭৪) ও কোচ (১৯৯০) হিসবে বিশ্বকাপ জিতেছেন। মারিও জাগালো, ব্রাজিল, একমাত্র ব্যক্তি যিনি চারবার বিশ্বকাপ জিতেছেন, দুইবার খেলোয়াড় হিসেবে (১৯৫৮ ও ১৯৬২), একবার কোচ (১৯৭০) এবং একবার সহকারী কোচ হিসেবে (১৯৯৪) বিশ্বকাপ জিতেছেন।

আর পড়তে পারেন