বুধবার, ২২শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

রোগির শরীরের ভুল গ্রুপের রক্ত সরবরাহ, মিডল্যান্ড হাসপাতাল ও ডাক্তারের বিরুদ্ধে মামলা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ৩১, ২০২৩
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লা নগরীর প্রাণকেন্দ্র মিডল্যান্ড হসপিটালে এক রোগীকে এ পজেটিভ ব্লাড গ্রুপের জায়গায় বি পজেটিভ ব্লাড ট্রান্সফিউশন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় হাসপাতাল ও ডাঃ নাজনীন জাহান লুবনার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

ভুক্তভোগীর পরিবার থেকে জানা যায়, গত ১২ মার্চ বিকাল সাড়ে ৪ টায় বরুড়া উপজেলার লক্ষিপুর ইউনিয়নের পাঁচথুবী গ্রামের রফিকুল ইসলামের স্ত্রী হাসিনা আক্তার কুমিল্লা মিডল্যান্ড হসপিটালে চিকিৎসা নিতে আসেন। তিনি জরায়ুর সমস্যা নিয়ে মিডল্যান্ড হসপিটালে ভর্তি হন। রোগী হাসিনা আক্তারের রক্ত গ্রুপ পরীক্ষা করে রোগীর পরিবারকে বললো, বি পজেটিভ রক্ত লাগবে। তারপর ব্লাড সংগ্রহ এবং ব্লাড ক্রস ম্যাচিং করে রোগীকে অপারেশন থিয়েটারে ব্লাড ট্রান্সফিউশন শুরু করে। তার মাঝে ডাঃ নাজনীন জাহান লুবনা জানান, এক ব্যাগ ব্লাড হবে না, আরেক ব্যাগ ব্লাড লাগবে। অপারেশন সময়কালীন প্রথম ব্যাগ ব্লাড ট্রান্সফিউশনের সময় রোগীর ছটফট, চেচামেচি শুরু হয়। যখন ২ ঘন্টাতেও অপারেশন শেষ হচ্ছে না তখন রোগীর পরিবার অপারেশন থিয়েটারে প্রবেশ করে দেখতে পান জোর জবরস্তি করে ডাঃ নাজনীন জাহান লুবনার সামনে ব্লাড ট্রান্সফিউশন চলছে। এর মাঝে মিডল্যান্ড হসপিটালের ল্যাব বন্ধ করে দেয়। ল্যাব টেকনোলজিস্ট জানান, আপনারা অন্য একটি হসপিটালে গিয়ে ব্লাড কালেকশন ও ব্লাড ক্রস ম্যাচিং করে নিয়ে আসেন। রোগীর একজন স্বজন, ডোনার ও হসপিটালের একজন কর্মচারী অন্য একটি হসপিটালে ব্লাড কালেকশন ও ক্রসম্যাচিং করতে গিয়ে দেখা যায় রোগীর ব্লাড গ্রুপের সাথে ডোনারের ব্লাড গ্রুপ মিলছে না।

তারপর ডাঃ নাজনীন জাহান লুবনা ও হসপিটাল কর্তৃপক্ষ টের পেয়ে রোগী রেখে তাড়াহুড়া করে রোগীর পরিবারকে বলেন আল্লাহ আল্লাহ করেন। রোগীর অবস্থা ভালো না, আপনারা অন্য হসপিটালে নিয়ে যান। এই বলে হসপিটাল ত্যাগ করেন ডাঃ লুবনা।

একজন রোগী অপারেশন থিয়েটারে ব্লাড ট্রান্সফিউশন সময় রোগীর কাপুনি, ছটফট করলে এই সময় করণীয় কি? এই বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন চিকিৎসক জানান, , ব্লাড ট্রান্সফিউশনের সময় রোগীর কাপুনি ও ছটফট করলে ব্লাড দেওয়া বন্ধ করে দেওয়া উচিত।

এই বিষয় ডাঃ নাজনীন জাহান লুবনা বলেন, এখানে আমার কোন দোষ নেই। ল্যাব টেকনোলজিস্টের কারণে এই সমস্যা হয়েছে।

মিডল্যান্ড হসপিটালের ল্যাব টেকনোলজিস্ট বেলায়েত হোসেন স্বপন দোষ স্বীকার করতে তিনি রাজি নন।

এই বিষয়ে রোগীর বোন জামাই (ভাই) আব্দুল মালেক বলেন, ডাঃ নাজনীন জাহান লুবনা ও ল্যাব টেকনোলজিস্ট আমার বোনের জীবনটা শেষ করে দিয়েছে। তিনি এখন হাঁটতে চলতে পারছেন না। তার শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ।

রোগীর আত্মীয় মহিউদ্দিন মাহি বলেন, ডাক্তার ও টেকনোলজিস্ট এর অবহেলায় এই ঘটনা ঘটেছে। অল্পের জন্য রোগী বেঁচে গেছে। কিন্তু রোগীর বিভিন্ন সমস্যা দেখা দিয়েছে।

এ ঘটনায় ৩০ মার্চ (বৃহস্পতিবার) কুমিল্লা আদালতে মামলা হয়। মামলা নং সি আর- ৩৭৩। ধারা- ৩৩৮/৪১৮/৩৪।

ভুক্তভোগীর আইনজীবী জয়নাল আবেদীন মাঝারী বলেন, কুমিল্লার বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিঃ ১ নং আমলী আদালতে হসপিটাল, ডাক্তার ও টেকনোলজিস্ট বিরুদ্ধে সি আর – ৩৭৩ মামলা করা হয়েছে। আদালত সিভিল সার্জনকে তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দিতে বলেছেন।

আর পড়তে পারেন