মঙ্গলবার, ২৩শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

লালমাই ইউনিয়ন স্বাস্হ্য কমপ্লেক্সের ভিজিটর আসমার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১৮
news-image

 

মো. আরিফুর রহমান মজুমদার:

কুমিল্লার নবগঠিত লালমাই উপজেলার বৃহত্তর বেলঘর ইউনিয়নের গ্রামীন স্বাস্হ্য সেবার একমাত্র বাতিঘর বেলঘর ইউনিয়ন স্বাস্হ্য পরিবার কল্যান কেন্দ্র।এ অঞ্চলের দরিদ্র জনগোষ্টি বঞ্চিত হচ্ছে চিকিৎসা সেবা থেকে।

এটি ওই ইউপির পাড়বাইন গ্রামে অবস্হিত ওই হাসপাতালে ভিজিটর হিসেবে দায়িত্বে আছেন ডাক্তার আসমা আক্তার, তিনি নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করেই, তার পূর্বের কর্মস্হল জেলার নাঙ্গলকোট পৌর সদরের দৈয়ারা নিজ বাসায় গড়ে তোলেন মিনি হসপিটাস সেখানে আছে তার আরেক পার্টনার হাসিনা আক্তার, এখানে চলে তার অবৈধ কারবার এম আর,ডি এন্ড সি,ও বাচ্চা প্রসব।সে অবৈধ গর্ভপাতে নেন ১০/১২ টাকা।তার বিরুদ্ধে কথা বলার সাহস কারো নাই নাঙ্গলকোটে এক প্রভাবশালী মহলের ছত্রছায়ায় চলে তার অবৈধ কারবার।

বৃহস্প্রতিবার সরেজমিনে বেলঘর স্বাস্হ্য পরিবার কল্যান কেন্দ্র।সকাল ৯ থেকে ১১ টা পর্যন্ত বসে থাকার পর সাড়ে ১১ টায় দেখা মেলে তার এসে দরজা খোলে ভিতরে যান।ওই গ্রামের মৃত.সেকান্তর আলী ভূঁইয়ার ছেলে মো.মোসলেম ভূঁইয়া(৫৫)কানে ব্যাথা নিয়ে আসেন ২ ঘন্টা বসে থেকে হতাশ চলে যান।পাড়বাইন উত্তর পাড়া গ্রামের মৃত.আলী মিয়ার ছেলে ফজলুল হক (৪৫) আসেন পায়ে ব্যাথা নিয়ে তিনি প্রতিবেদকে বলেন এ নিয়া আজ তিন দিন আসছি ডাক্তার পাইনা হাসপাতাল বন্ধ থাকে আমি গরীব মানুষ বাহিরে দেখানোর টাকা কই পামু।

ওই গ্রামের রোজিনা নামের গর্ভবতি এক গৃহবধূ আসেন চেকআপ করাতে তিনিও পরপর দুইদিন ফেরত গেছেন, হাসপাতাল বন্ধ ডাক্তার নাই। আবদুল কাদিরের ছেলে মো.রফিক উদ্দিনসহ কমপক্ষে ১০ জন লোক অভিযোগ করে বলেন, ডা: আসমা ১২ টার আগে কোন দিন হাসপাতালে আসেননা,অফিসে আসলে এক ঘন্টা থেকে চলে যান, টাকা ছাড়া কোন রোগিকে ঔষধ দেননা।সাপ্তাহে ২/৩ দিন হাসপাতালে আসেন।এখানেও তার ডিউটি কালিন কোন ডেলিভারীর রোগি আসলে তিনি চিকিৎসা দিবেন রোগির বাড়ীতে, ২/৩ হাজার টাকার বিনিময়ে।

এ বিষয়ে অভিযুক আসমা আক্তার বলেন, এখানে রোগি নাই তাই দেরি করে আসি।এখানে ঔষধ সাপ্লাই নাই।নাঙ্গলকোটের কথা আপনাকে কে বলছে বলে সে ক্ষেপে যান। এবং তার স্বামীকে দিয়ে বিভিন্ন মোবাইল ফোন দিয়ে সাংবাদিকদের হোমকি দেয়।

এবিষয়ে ডাক্তার জাকির হোসেন জানান, তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ পেয়েছি এবং তাদেরকে আমি একটি নোটিশ ও দিয়ছি তারা এখনো জবাব দেন নাই। তবে তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আর পড়তে পারেন