শনিবার, ২রা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

লেভি আরোপ মালয়েশিয়ায় অভিবাসী শ্রমিকদের ওপর

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ২, ২০১৬

Malayshia_Newsshomoyমালয়েশিয়ায় কর্মরত প্রায় তিন লাখ অভিবাসী শ্রমিককে এখন থেকে লেভি দিতে হবে। আগে লেভির এই অর্থ নিয়োগকর্তা পরিশোধ করতো। কিন্তু সোমবার দেশটির কর্তৃপক্ষ নতুন করে বিদেশী শ্রমিকদের ওপর লেভি আরোপ করে।

কুয়ালালামপুরে বাংলাদেশ হাইকমিশনে নিযুক্ত শ্রম বিষয়ক কাউন্সেলর সাইয়েদুল ইসলাম টেলিফোনে ডেইলি স্টারকে বলেন, “শ্রমিকদের পক্ষ থেকে সাধারণত নিয়োগদাতারাই লেভি দিয়ে থাকেন। কিন্তু মালয়েশিয়া সরকার নতুন এক ব্যবস্থার আওতায় শ্রমিকদের ওপর লেভি পরিশোধের দায় চাপিয়ে দিয়েছে।”

তিনি অবশ্য বলেন যে, তারা লেভি পরিশোধের দায় থেকে বাংলাদেশী শ্রমিকদের অব্যাহতি দেয়ার বিষয়ে সে দেশের সরকারের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছেন।

সাইয়েদুল ইসলাম জানান, তারা বাংলাদেশ থেকে নতুন শ্রমিক নেয়ার জন্য মালয়েশিয়া সরকারের সঙ্গে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করার বিষয় নিয়ে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছেন। একইসঙ্গে তারা শ্রমিকদেরকে নতুন আরোপিত লেভি দেয়া থেকে অব্যাহতি দেয়ার জন্যও দেশটির সরকারের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।
মালয়েশিয়ার উপপ্রধানমন্ত্রী দাতুক সেরি ড. আহমদ জাহিদ হামিদি রোববার জানান, দেশটিতে কর্মরত প্রায় ২১ লাখ বিদেশী শ্রমিককে নতুন আরোপিত লেভি দিতে হবে কারণ তারা মালয়েশীয়দের জন্য দেয়া খাবারে ভর্তুকিসহ অনেক ধরণের সুযোগ-সুবিধা লাভ করে।

নতুন নিয়ম অনুযায়ী নির্মাণ ও প্রস্তুতকারক কোম্পানিতে নিয়োজিত শ্রমিকদেরকে জনপ্রতি ১২৫০ রিঙ্গিত (২৩,৫৯৮ টাকা) থেকে সর্বোচ্চ ২,৫০০ রিঙ্গিত (৪৭,২০৫ টাকা) পর্যন্ত লেভি দিতে হবে। এই লেভি থেকে সরকারের আয় হবে অতিরিক্ত আড়াই ’শ কোটি রিঙ্গিত। সেবা খাত এবং বৃক্ষরোপন ও কৃষি খাতে নিয়োজিত শ্রমিকদেরও নির্দিষ্ট হারে লেভি দিতে হবে।
কুয়ালালামপুরে বাংলাদেশ হাইকমিশনের কর্মকর্তারা নতুন এই লেভি আরোপের ফলে বাংলাদেশী শ্রমিকরা নতুন চাপের মুখে পড়বেন বলে মনে করছেন। যেসব শ্রমিক মালয়েশিয়ায় অবস্থান করছেন এবং যারা নতুন করে ঢুকবেন তাদের সবাইকে বছরে একবার করে লেভি দিতে হবে। ফলে মালয়েশিয়ায় যাওয়ার জন্য যারা নাম নিবন্ধন করিয়েছেন তাদেরকেও লেভি দিতে হবে।
নতুন লেভি আরোপের কারণে মালয়েশিয়ায় যাওয়ার জন্য শ্রমিকদের অভিবাসন ব্যয় বাড়বে কিনা জানতে চাওয়া হলে শ্রম বিষয়ক কাউন্সেলর সাইয়েদুল ইসলাম বলেন, তার ধারণা, লেভির কারণে অভিবাসন ব্যয়ের ওপর কোনরকম প্রভাব পড়বে না। তবে বায়রার সভাপতি মোহাম্মদ আবুল বাশার ডেইলি স্টারকে জানান, শ্রমিকদেরকেই যদি লেভি দিতে হয় তাহলে অবশ্যই অভিবাসন ব্যয় বাড়বে।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সাল থেকে সরকারি ব্যবস্থাপনায় শুধু বনায়ন শ্রমিকরা মালয়েশিয়ায় যেতে পারছে। পরে দেশটি সব খাতে শ্রমিক নিতে সম্মত হয় এবং দুই দেশের সরকার এ বিষয়ে চুক্তি সম্পাদনের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে। উৎস : ডেইলি স্টার থেকে অনুবাদ

আর পড়তে পারেন